অ্যান্টিবায়োটিক না কমালে ‘সুপারবাগে’ মরবে কোটি মানুষ!

ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৮ | ২৯ কার্তিক ১৪২৫

অ্যান্টিবায়োটিক না কমালে ‘সুপারবাগে’ মরবে কোটি মানুষ!

পরিবর্তন ডেস্ক ৯:২৮ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ০৭, ২০১৮

অ্যান্টিবায়োটিক না কমালে ‘সুপারবাগে’ মরবে কোটি মানুষ!

ইউরোপ, উত্তর আমেরিকা ও অস্ট্রেলিয়াসহ পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের কোটি কোটি মানুষ ‘সুপারবাগ’ অর্থাৎ প্রচণ্ড শক্তিশালী জীবাণুর সংক্রমণে মারা যাওয়ার ঝুঁকিতে রয়েছে বলে সতর্ক করে দিয়েছেন বিজ্ঞানীরা।

বুধবার বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন, অনেক ব্যাকটেরিয়া এখন বেশিরভাগ প্রচলিত ওষুধে কাবু হচ্ছে না। ঝুঁকিতে থাকা দেশগুলো এসব ব্যাকটেরিয়ার মোকাবেলা করার বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে না নিলে তাদের আক্রমণে ২০৫০ সালের মধ্যে ব্যাপক প্রাণহানির আশঙ্কা রয়েছে।

অর্গানাইজেশন ফর ইকোনমিক কো-অপারেশন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট (ওইসিডি) জনস্বাস্থ্য ও ব্যয়ের ক্ষেত্রে ‘ভয়াবহ দুর্যোগের’ বিষয়ে সতর্ক করে দিয়েছে বলে জানায় বার্তা সংস্থা এএফপি।

ওইসিডি বলছে, হাসপাতালের পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার সাধারণ মান উন্নত না করলে এবং অপ্রয়োজনীয় অ্যান্টিবায়োটিকের ব্যবহার না কমালে এই দুর্যোগ দেখা দিতে পারে।

ওষুধে মরে না এমন ব্যাকটেরিয়ার প্রকোপে ২০১৫ সালে ৩৩ হাজার মানুষ মারা গেছে বলে জানিয়েছে এই সপ্তাহে প্রকাশিত পৃথকভাবে প্রকাশিত একটি গবেষণাপত্র।

ওইসিডি’র যুগান্তকারী প্রতিবেদনটিতে বলা হয়, ২০৫০ সালের মধ্যে ২৪ লাখ মানুষ মারা যেতে পারে। এসব সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে প্রতিবেদনে উল্লেখিত দেশগুলোর প্রতিবছর ৩৫০ কোটি ডলার খরচ হবে বলে অনুমাণ করা হয়েছে।

ওইসিডি’র জনস্বাস্থ্য বিভাগের প্রধান মাইকেল চেচ্চিনি এএফপিকে বলেন, এই দেশগুলো ইতোমধ্যেই তাদের স্বাস্থ্য বাজেটের ১০ শতাংশ ওষুধ থেকে সুরক্ষিত জীবাণু বা এএমআর-এর চিকিৎসায় ব্যয় করছে।

তিনি বলেন, ‘এএমআর-এর জন্য খরচ ফ্লু চিকিৎসার চেয়ে বেশি খরচ হয়। এইচআইভি’র চিকিৎসার খরচের চেয়েও এর খরচ বেশি। দেশগুলো এই সমস্যার মোকাবেলাকে প্রাধান্য না দিলে এই খরচ আরও বেড়ে যাবে।’

এমআর/আইএম