মেলায় ক্রেতা-দর্শনার্থী বাড়লেও তিন কোটি চাপে ইজারাদাররা

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৬ আগস্ট ২০১৮ | ১ ভাদ্র ১৪২৫

মেলায় ক্রেতা-দর্শনার্থী বাড়লেও তিন কোটি চাপে ইজারাদাররা

কামরুল হিরন ১২:৫৯ পূর্বাহ্ণ, জানুয়ারি ২১, ২০১৮

print
মেলায় ক্রেতা-দর্শনার্থী বাড়লেও তিন কোটি চাপে ইজারাদাররা

ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলায় বাড়ছে ক্রেতা-দর্শনার্থী। মেলার তৃতীয় শুক্রবার অর্থাৎ ১৯তম দিনে অন্যান্য দিনের তুলনায় সবচেয়ে বেশি ১ লাখ ৩৫ হাজার দর্শনার্থী মেলা প্রাঙ্গণে প্রবেশ করেছে। শনিবার এই সংখ্যা লাখ পেরিয়ে যাবার সম্ভাবনা। তবুও লাভের হিসাব কষতে গিয়ে কপালে চিন্তিত ভাজ পড়ছে ইজারাদার প্রতিষ্ঠান মীর বাদার্সের।

মেলার ২০তম দিনে একান্ত সাক্ষাতে প্রতিষ্ঠানটির কর্ণধার মীর শহিদুল আলম পরিবর্তন ডটকমকে জানালেন, শেষের দিকে এসে দর্শনার্থী বাড়লেও প্রায় ৩ কোটি টাকার চাপে রয়েছেন এখনো।

তিনি বলেন, গতবার ৬ কোটি টাকায় মেলার গেট ইজারা নিয়েছিলাম। কিন্তু প্রতিযোগিতা বেড়ে যাওয়ায়, এবার বিনিয়োগ করতে হয়েছে ৭ কোটি ৮৫ লাখ ৫০ হাজার টাকা। এছাড়া আরো ৫০ লাখ টাকা অন্যান্য খরচতো রয়েছেই। সবমিলিয়ে বিনিয়োগের পরিমান টাকার হিসেবে ৮ কোটি ৩৫ লাখ ৫০ হাজার।

মীর আরো বলেন, শুরু থেকে এখন (২০তম দিন সন্ধ্যা) পর্যন্ত মেলায় প্রবেশ করেছে প্রায় ৬ লাখ ৩০ হাজার ক্রেতা-দর্শনার্থী। যেখান থেকে প্রতি টিকিট ৩০ টাকা হিসেবে উঠে এসেছে মাত্র ১ কোটি ৮৯ লাখ টাকা।

মেলার বাকি আছে আর ১০ দিন। এখন থেকে যদি প্রতিদিন গড়ে ১ লাখ করেও মানুষ মেলায় প্রবেশ করেন, তবে মেলা শেষে মোট আয়ের পরিমান দাঁড়াবে প্রায় ৫ কোটি টাকা। তাই বাকি ৩ কোটি ৩০ লাখ টাকা কীভাবে উঠবে সেই চাপে আছি।

ইজারা বাদেও বিনিয়োগের ৫০ লাখ টাকার হিসাব দিতে গিয়ে তিনি বলেন, মেলা প্রাঙ্গণে প্রতিদিন আমাদের ৭০০ কর্মী বিভিন্ন দায়িত্ব পালন করছেন। তাদের বেতনসহ খাবারের খরচ যোগাতে হচ্ছে আমাদের।

মীর শহীদুল জানালেন, শুধু টিকিট কাউন্টারেই প্রতিদিন দুই শিফটে ১৫০ কর্মী কাজ করছেন। মাস শেষে যাদের বেতন দিতে হবে ১৮ হাজার টাকা করে। এছাড়া ১নং গেটের দায়িত্বে ৮০ জন, ২নং গেটের দায়িত্বে আছেন ৪০ জন এবং ভিআইপি গেটে দায়িত্ব পালন করছেন ৩৫ জন। আর মেলা প্রাঙ্গণে স্বেচ্ছাসেবকের দায়িত্ব পালন করছেন অনেকেই।

এসব দায়িত্বে কাদের নিয়োগ দেয়া হয়েছে?
জবাবে ইজারাদার প্রতিষ্ঠানের এই কর্ণধার জানালেন, ওরা সবাই আওয়ামী ঘরনা ও পরিবারের ছেলে-মেয়ে। এবারের বাণিজ্য মেলার প্যাভিলিয়নসহ পুরো প্রাঙ্গণকেই অনেক চিত্তাকর্ষক করা হয়েছে। তাই সবাইকে বলবো আপনারা বারবার মেলায় আসুন। ঘুরে যান এই মেলা প্রাঙ্গণ, যোগ করেন তিনি।

কেএইচ/এএস

 
.


আলোচিত সংবাদ