বাণিজ্য মেলায় বিক্রেতারা হাঁকলেও সাড়া নেই ক্রেতাদের

ঢাকা, সোমবার, ২৩ জুলাই ২০১৮ | ৭ শ্রাবণ ১৪২৫

বাণিজ্য মেলায় বিক্রেতারা হাঁকলেও সাড়া নেই ক্রেতাদের

পরিবর্তন প্রতিবেদক ১০:০৪ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ০৩, ২০১৮

print
বাণিজ্য মেলায় বিক্রেতারা হাঁকলেও সাড়া নেই ক্রেতাদের

ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলায় ক্রেতা ও দর্শনার্থীদের উপস্থিতি ছিল কম। এছাড়া কিছু স্টলের মূল কাঠামো তৈরি হলেও এখনও চলছে সাজানোর কাজ। মেলার তৃতীয় দিনে বিক্রেতারা নানাভাবে ক্রেতা-দর্শনার্থীদের হাঁকলেও সাড়া পাচ্ছেন না।

বুধবার সরেজমিন দেখা গেছে, পোশাক, কসমেটিকস, ফার্নিচারের দোকানে ক্রেতার উপস্থিতি খুবই কম। সকালে উপস্থিতি কম থাকলেও বেলা গড়ানোর সাথে কিছুটা বাড়ে ক্রেতা-দর্শনার্থীর সংখ্যা। যাদের বেশিরভাগই ঘুরতে এসেছেন বলে জানান।

বিক্রেতারা জানিয়েছেন, দর্শনার্থীরা বিভিন্ন স্টল ঘুরে পছন্দের পণ্য দেখছেন এবং মূল্য সম্পর্কে ধারণা নিচ্ছেন। ক্রেতারা বলছেন, আপাতত কিছু না কিনলেও পরে এসে কেনাকাটা করবেন।

'এই যে আপু এদিকে আসেন চামড়ার ব্যাগ ৪০০ টাকা' 'খালি লন ২৫০ টাকা' '৩০০ টাকার মাল ১৫০ টাকা' 'একদাম ২০০'- এভাবে নারীদের বিভিন্ন জিনিস বিক্রির জন্য মেলায় আসা দর্শনার্থীদের দৃষ্টি আকর্ষণ করতে চাইছেন দোকানিরা। কিন্তু সাড়া পাচ্ছেন না তেমন।

'এই যে আপা ৪০০, শুধু ৪০০ টাকা' এভাবে 'তৃণমূল কারুপণ্য'র বিক্রয় প্রতিনিধি মোস্তফা পাটোয়ারি ক্রেতাদের দৃষ্টি আকর্ষণ করছিলেন।

তিনি পরিবর্তন ডটকমকে বলেন, 'এখনো মেলা জমে উঠেনি, লোকজন অনেক কম। শুধু ডেকেই যাচ্ছি কিন্তু কেউ কিনছে না, অনেকে আবার দোকানেই আসে না। উপস্থিতি কম কেনো জানতে চাইলে তিনি বলেন, মাসের কেবল শুরু, অনেকেই হয়তো বেতন পাননি। জানুয়ারি মাস, বাসা পাল্টানোর ঝামেলায় অনেকেই থাকবেন। তাই হয়তো মেলায় ক্রেতা-দর্শনার্থীর সংখ্যা কম। তবে আগামী শুক্রবার থেকে মেলা জমবে বলে তিনি আশা করছেন।

বড় একটি শপিং ব্যাগ হাতে ধানমন্ডি থেকে আসা বিন্তি বলেন, আজ শুধু প্লাস্টিকের ঝুড়ি কিনেছি। এটার মূল্য নির্ধারিত ছিল, কিন্তু কসমেটিকস কিনতে গিয়ে মনে হয়েছে দাম অনেক বেশি রাখা হচ্ছে। আজ বেশি কিছু কিনবো না। তবে বিভিন্ন স্টল ঘুরে পণ্যের মান ও মূল্য সম্পর্কে ধারণা নিয়ে যাচ্ছি। পরে এসে কিনবো।

গত ১ তারিখ থেকে রাজধানীর শেরেবাংলা নগরে শুরু হয়েছে ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা।

আয়োজকরা জানিয়েছেন, বাণিজ্য মেলা এবার একটু ভিন্ন আঙ্গিকে করা হয়েছে।

মোবাইল অ্যাপসে সহজে পছন্দের প্যাভিলিয়ন খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে।

বাণিজ্য মেলার মাস্টারপ্ল্যান অনুযায়ী বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে (প্যাভিলিয়ন, স্টল ও রেস্টুরেন্ট) ৫৮৯টি স্টল বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।

এসবের মধ্যে সংরক্ষিত মহিলা স্টল রয়েছে ২০টি, প্রিমিয়ার প্যাভিলিয়ন ৬৫টি, প্রিমিয়ার মিনি প্যাভিলিয়ন ৩৭টি, সাধারণ প্যাভিলিয়ন ১৫টি, সাধারণ মিনি প্যাভিলিয়ন ২৮টি, প্রিমিয়ার স্টল ৭২টি, রেস্টুরেন্ট ৩টি, সংরক্ষিত প্যাভিলিয়ন ৬টি, সংরক্ষিত মিনি প্যাভিলিয়ন ৮টি, বিদেশি প্যাভিলিয়ন ২৬টি, বিদেশি মিনি প্যাভিলিয়ন ৫টি, বিদেশি প্রিমিয়ার স্টল ১৩টি, সাধারণ স্টল ২৫৬টি, ফুড স্টল ২৯টি।

গতবারের ৫০ বাই ৫০ ফিট বঙ্গবন্ধু স্মৃতি প্যাভিলিয়নটির দৈর্ঘ্য ও প্রস্থ বাড়িয়ে ১০০ বাই ৬০ ফিট করা হয়েছে।

সোমবার থেকে শুরু হওয়া এ মেলা চলবে ৩১ জানুয়ারি পর্যন্ত। মেলায় প্রবেশ ফি আগের মতোই প্রাপ্ত বয়স্কদের জন্য ৩০ টাকা ও অপ্রাপ্ত বয়স্কদের জন্য ২০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত চলবে এই মেলা।

এসআই/কেএইচ/এএল

 
.



আলোচিত সংবাদ