বাণিজ্য মেলার সৌন্দর্যের বাড়তি আকর্ষণ অর্কিড অ্যাকুরিয়াম

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৩ অক্টোবর ২০১৮ | ৮ কার্তিক ১৪২৫

বাণিজ্য মেলার সৌন্দর্যের বাড়তি আকর্ষণ অর্কিড অ্যাকুরিয়াম

কামরুল হিরন ৯:৩৩ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ০১, ২০১৮

বাণিজ্য মেলার সৌন্দর্যের বাড়তি আকর্ষণ অর্কিড অ্যাকুরিয়াম

ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলায় প্রথমবারের মতো গড়ে তোলা হয়েছে অর্কিড অ্যাকুরিয়াম। দর্শনার্থীরা স্বাভাবিকভাবেই থমকে দাঁড়াচ্ছেন ফুলে ফুলে রাঙা এই অর্কিড অ্যাকুরিয়ামের সামনে। প্রশ্ন করে ধারণা নিচ্ছেন অর্কিড সম্পর্কে।

মূলত নগরবাসীকে অর্কিডের প্রতি আগ্রহী করে তুলতেই এমন উদ্যোগ নেয়া হয়েছে বলে জানালেন অ্যাকুরিয়ামের দায়িত্বে থাকা বাংলাদেশ অর্কিড অ্যাসোসিয়েশনের সদস্য তিন্নি।

অর্কিডপ্রেমী তিন্নি পরিবর্তন ডটকমকে বলেন, যেহেতু এই শহরের বাড়িগুলোতে বাগান করার স্থান খুবই কম, তাই অর্কিডই পারে সেই শূন্যতা পূরণ করতে। আর বাসায় অর্কিডের গাছ থাকলে শিশুরাও ভার্চুয়াল জগত ছেড়ে প্রকৃতির প্রতি আকৃষ্ট হবে। এছাড়া অর্কিডের জন্য আলো-ছায়াযুক্ত পরিবেশটিই উপযুক্ত।

বাণিজ্য মেলার এই অ্যাকুরিয়ামে তিন প্রজাতির প্রায় ১০০টি অর্কিড প্রদর্শন করা হচ্ছে। যার বেশিরভাগই ফুলে ফুলে রাঙা। 

তিন্নি আরো জানান, আমাদের দেশের আবহাওয়ায় অর্কিডে ফুল আসে সাধারণত ফেব্রুয়ারি থেকে সেপ্টেম্বর মাসে। কিন্তু এই ফ্যালেনফসিস (Phalaenopsis) ড্যানড্রোবিয়াম (Dendrobium), আর ক্যাটেলিয়াগ (Cattleya) অর্কিডে ডিসেম্বরেই ফুল ফুটেছে। প্রায় দশ রঙের ফুল দেয় এগুলো। যার মধ্যে রয়েছে হলুদ, গোলাপি, বেগুনি, সাদাসহ নানা রঙের সংমিশ্রণ।   

বাংলাদেশ অর্কিড অ্যাসোসিয়েশনের এই সদস্য বলেন, সারা বিশ্বে ৪৮ হাজারের অধিক প্রজাতির অর্কিড থাকলেও বাংলাদেশের আবহাওয়ার সাথে সব অর্কিড খাপ খাওয়াতে পারে না। অর্কিডের নানা প্রজাতির মধ্যে অল্প কিছু সংখ্যক অর্কিড আমাদের দেশের আবহাওয়ায় খুবই উপযোগী।

অর্কিড গাছে পানি স্প্রে করতে হয় দিনে দুই বার। ঘরের ভিতরে রাখলে স্প্রের পানি মেঝেতে পড়ার আশঙ্কা থাকে। এ ক্ষেত্রে অর্কিড গাছটি বারান্দায় রাখায় ভালো। তবে যখন ফুল ফুটবে তখন ঘরে রাখলেই হয়।

বছরের প্রথম দিনেই দ্বার খোলা হয়েছে ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলার। প্যাভিলিয়ন ও স্টলগুলোতে এখনো পণ্য গোছাতে ব্যস্ত বিক্রেতারা। শুরুর দিনে ক্রেতা-দর্শনার্থীর সংখ্যা কম হলেও উচ্ছ্বসিত উপস্থিতি তাদের। স্বপরিবারে এসেছেন অনেকেই, ঘুড়ে দেখছেন পুরো মেলা প্রাঙ্গণ।

কথা হয় এক দম্পতির সঙ্গে। প্রথম দিনেই মেলায় আসা প্রসঙ্গে শাহেদ (স্বামী) পরিবর্তন ডটকমকে বললেন, রুপন্তীর (স্ত্রী) সঙ্গে আমার বিয়ে হয়েছে বিদায়ী ডিসেম্বরে। ওকে কথা দিয়েছিলাম সংসারের প্রয়োজনীয় সবকিছু কেনা হবে আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা থেকে। কথা রাখতেই এসেছি মেলায়। কারণ পরে অনেক ভিড় হবে এই মেলা প্রাঙ্গণে। 

ছবি: রাফিয়া আহমেদ 

কেএইচ/এএল