ভিয়েতনাম রাষ্ট্রপতির বাংলাদেশ সফর বাণিজ্য বাড়াতে সহায়ক হবে

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৬ আগস্ট ২০১৮ | ১ ভাদ্র ১৪২৫

ভিয়েতনাম রাষ্ট্রপতির বাংলাদেশ সফর বাণিজ্য বাড়াতে সহায়ক হবে

পরিবর্তন প্রতিবেদক ১০:৩৭ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ৩০, ২০১৮

print
ভিয়েতনাম রাষ্ট্রপতির বাংলাদেশ সফর বাণিজ্য বাড়াতে সহায়ক হবে

ভিয়েতনামের রাষ্ট্রপতি মি. ত্রান দাইকুয়াংয়ের আসন্ন বাংলাদেশ সফর দুটি দেশের মধ্যে দ্বিপাক্ষিক  বাণিজ্য উন্নয়নের ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা  রাখবে  বলে  আশাবাদ ব্যক্ত করেছে এফবিসিসিআই। দেশ দুটির সম্ভাবনাময় বিভিন্ন বাণিজ্য খাতে বিনিয়োগ স্থাপন এবং দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য ব্যবধান কমিয়ে আনার ক্ষেত্রেও এ সফর বিশেষ ভূমিকা রাখবে বলে আশা করা হচ্ছে।

আগামী ৪ থেকে ৬ মার্চ ভিয়েতনামের রাষ্ট্রপতির বাংলাদেশ সফরকালে ‘বাংলাদেশ-ভিয়েতনাম বিজনেস ফোরাম’-এর আয়োজন করা হবে। যেখানে দুই দেশের শীর্ষস্থানীয় ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলো অংশ নেবে।

ফোরামে খাতভিত্তিক ‘বিজনেস টু বিজনেস’ আলোচনার মাধ্যমে সম্ভাবনাময় খাতগুলো চিহ্নিত করা এবং সেসব খাতে বিনিয়োগ ও যৌথ বিনিয়োগের সুযোগ সৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে।

ভিয়েতনামের উপ পররাষ্ট্রমন্ত্রী মি. ড্যাং ডিন কুই-এর নেতৃত্বে দেশটির এক বাণিজ্য প্রতিনিধি দলের সাথে এফবিসিসিআই নেতৃবৃন্দের একসভায় মঙ্গলবার এসব কথা বলা হয়।

এফবিসিসিআই সভাপতি মো. শফিউল ইসলাম (মহিউদ্দিন)-এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ সভায় সংগঠনের সিনিয়র সহ-সভাপতি শেখ ফজলে ফাহিম, সহ-সভাপতি মো. মুনতাকিম আশরাফ এবং পরিচালকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। বাংলাদেশে ভিয়েতনামের রাষ্ট্রদূত মি. ত্রান ভ্যান খোয়া এবং  দূতাবাসের কর্মকর্তারা এসময় উপস্থিত ছিলেন।  

এফবিসিসিআই সভাপতি শফিউল ইসলাম (মহিউদ্দিন) বলেন, গত কয়েক বছর ধরেই বাংলাদেশের প্রবৃদ্ধি ধারাবাহিকভাবে ৬ শতাংশ হারে অর্জিত হচ্ছে।  যা গত দু’বছরে ৭ শতাংশে উন্নীত হয়েছে। নিম্ন মধ্যম আয়ের দেশ থেকে আগামী ২০২১ সালের মধ্যেই বাংলাদেশ মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হতে যাচ্ছে।

বাংলাদেশ সরকারের আকর্ষণীয় বিনিয়োগ সুবিধা যেমন: ট্যাক্স হলিডে, কর্পোরেট কর সুবিধা ইত্যাদি গ্রহণ করে তিনি ভিয়েতনাম ব্যবসায়ীদেরকে ইকনোমিক জোনসহ বাংলাদেশের সম্ভাবনাময় বিভিন্ন খাতে বিনিয়োগের আহ্বান জানান।

তিনি বলেন, দেশ দু’টির মধ্যকার বাণিজ্য ব্যবধান কমাতে যথেষ্ট কাজ করার সুযোগ রয়েছে। পোশাক,  ঔষধ, কৃষিযন্ত্রপাতি, সিরামিক, হাল্কা  প্রকৌশল শিল্প  ইত্যাদি খাতে বাংলাদেশ-ভিয়েতনামের যৌথ বিনিয়োগ এবং বাংলাদেশে ভিয়েতনামের প্রযুক্তি হস্তান্তর করা যেতে পারে।

ভিয়েতনামের উপ পররাষ্ট্র মন্ত্রী  ড্যাং ডিন কুই বলেন, ভিয়েতনাম ও বাংলাদেশের চমৎকার বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক পারস্পরিক সহযোগিতার মাধ্যমে আরও জোরদার করা যেতে পারে। তাদের রাষ্ট্রপতির আসন্ন বাংলাদেশ সফর দুই দেশের ব্যবসায়ী প্রতিনিধিদের মধ্যে আরও নিবিড় যোগাযোগ এবং ফলপ্রসূ আলোচনার সুযোগ সৃষ্টি করবে।

উল্লেখ্য, ২০১৬-১৭ অর্থবছরে বাংলাদেশ ৬৬.৪৪ মিলিয়ন মার্কিন ডলারের পণ্য ভিয়েতনামে রপ্তানি করে এবং ভিয়েতনাম থেকে৪১২.২০মিলিয়ন ডলারের পণ্য আমদানি করে। ভিয়েতনামে বাংলাদেশের রপ্তানিযোগ্য পণ্যগুলো হচ্ছে কৃষিজাত পণ্য, পাট ও চামড়াজাত পণ্য, হিমায়িত খাদ্য এবং ঔষধ সামগ্রী। আর ভিয়েতনাম থেকে মুলত খণিজ দ্রব্য, বস্ত্র ও বস্ত্র সামগ্রী, যন্ত্রপাতি ও প্লাস্টিক উপাদান আমদানি করা হয়।

এফএ/এএল

 
.


আলোচিত সংবাদ