অনাথাশ্রমে বড় হওয়া এই নায়িকায় বুঁদ ছিল তামাম বিশ্ব

ঢাকা, বুধবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৯ | ২৯ কার্তিক ১৪২৬

অনাথাশ্রমে বড় হওয়া এই নায়িকায় বুঁদ ছিল তামাম বিশ্ব

পরিবর্তন ডেস্ক ৪:২৯ অপরাহ্ণ, জুলাই ২৮, ২০১৯

অনাথাশ্রমে বড় হওয়া এই নায়িকায় বুঁদ ছিল তামাম বিশ্ব

১৯৬২ সালে মাত্র ৩৬ বছর বয়সে যদি তার রহস্যমৃত্যু না হত, হলিউডের ইতিহাস অন্য ভাবে লেখা হত। তিনি বিশ্ব চলচ্চিত্রের অন্যতম গ্ল্যামারাস সেক্স সিম্বল মেরিলিন মনরো। জীবদ্দশায় যিনি কোনও দিন জানতে পারেননি তার পিতৃপরিচয়।

ভারতের আনন্দবাজার পত্রিকার খবরে বলা হয়, মেরিলিনের জন্ম ১৯২৬ সালের ১ জুন। তার জন্মগত নাম ছিল নোর্মা জিন মর্টেনসন। পরে তিনি ‘বেকার’ পদবী নিয়েছিলেন। তার শৈশব কেটেছে বিভিন্ন অনাথাশ্রম, সরকারি হোম এবং পারিবারিক বন্ধুদের আশ্রয়ে। পিতৃপরিচয়হীন নোর্মার মা ছিলেন মনোরোগী। সিঙ্গল মাদার হয়ে মেয়েকে বড় করার মতো অবস্থায় তিনি ছিলেন না।

পঞ্চদশী নোর্মা তখন থাকছিলেন পারিবারিক বন্ধু গ্রেস গোডার্ডদের পরিবারে। কিন্তু গোডার্ড পরিবারকে হঠাৎ ওয়েস্ট ভার্জিনিয়ায় চলে যেতে হল। নোর্মাকে তারা নিয়ে যেতে পারলেন না। নোর্মার সামনে তখন দুটো উপায়। হয় অনাথাশ্রমে ফিরে যাও, নয় তো বিয়ে করো।

নোর্মা কিছুতেই অনাথাশ্রমে ফিরতে চাইলেন না। ষোলো বছর বয়স পূর্তির সঙ্গে সঙ্গে তার বিয়ে হল কুড়ি বছরের জেমস ডুগার্টির সঙ্গে। বিয়ের দু’বছর পরে তার স্বামীকে জাহাজের চাকরিতে চলে যেতে হল প্রশান্ত মহাসাগরে। মেরিলিন চলে গেলেন ক্যালিফোর্নিয়া, তার শ্বশুর শ্বাশুড়ির সঙ্গে থাকতে।

নতুন জায়গায় গিয়ে একটি ফ্যাক্টরিতে কাজ নিলেন মেরিলিন। সেখানে একদিন ফটোশুট করতে এলেন ডেভিড কোনোভার। মার্কিন বিমান বাহিনীর তরফে তাকে পাঠানো হয়েছিল। কর্মক্ষেত্রে নারীদের মনোবল বাড়াতে নারী কর্মীদের ছবি তোলার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছিল। তবে যে জন্য ছবি তোলা, সে উদ্দেশে মেরিলিনের একটা ছবিও ব্যবহৃত হয়নি।

কিন্তু এর ফলেই তার সামনে খুলে গিয়েছিল মডেলিং-এর দরজা । কয়েক দিনের মধ্যে তিনি চাকরি ছেড়ে মডেলিং শুরু করলেন। মডেলিং-এর সময় তিনি নাম নিতেন জিন নর্ম্যান। এর মধ্যেই এল ফিল্মের সুযোগ। তত দিনে কোঁকড়া চুল স্ট্রেট করিয়েছেন তিনি। বাদামি চুলে এসেছে সোনালি রং।

টোয়েনটিয়েথ সেঞ্চুরি ফক্স-এর সঙ্গে তার চুক্তি হল। নতুন নাম হল ‘মেরিলিন মনরো’। সংস্থার কর্তা বেন লিয়নই বাছলেন নাম। ‘মেরিলিন’ এসেছিল ‘মেরিলিন মিলার’ থেকে। মেরিলিন মিলার ছিলেন অকালপ্রয়াত বিগত দিনের ব্রডওয়ে তারকা। ‘মনরো’ পদবী বেছে নিয়েছিলেন মেরিলিন নিজেই। ওটা ছিল তার মায়ের অবিবাহিত অবস্থার পদবী। পরে পর্দার নামকেই অফিশিয়াল নেম করে নিয়েছিলেন।

কিন্তু স্ত্রীর ক্যারিয়ারে বেঁকে বসলেন স্বামী ডুগার্টি। ক্যারিয়ার আর স্বামীর মধ্যে মেরিলিন বেছে নিলেন প্রথমটাই। ভেঙে গেল তার প্রথম বিয়ে। ব্যক্তিগত জীবনে ফাটল এলেও কাজের জায়গায় তিনি তখন মধ্যগগনে। ‘লেডিস অব দ্য কোরাস’, ‘এ টিকিট টু টোমাহক’, ‘অল অ্যাবাউট ইভ’, ‘দ্য ফায়ারবল’, ‘রাইট ক্রস’, ‘লাভ নেস্ট’, ‘লেটস মেক ইট লিগ্যাল’, ‘নায়াগ্রা’ একের পর এক হিট তার ফিল্মোগ্রাফিতে।

নিজের সময়ের উজ্জ্বল তারকা হলেও তার পারিশ্রামিক তখনও সে রকম বাড়েনি টোয়েনটিয়েথ সেঞ্চুরি ফক্সে। তার থেকে অনেকেই তখন বেশি পারিশ্রমিক পেতেন সেখানে। এই নিয়ে দু’পক্ষের দ্বন্দ্ব চরমে উঠেছিল। মেরিলিনের ব্যক্তিগত জীবনও তখন উথালপাথাল।

একসঙ্গে ডেট করছেন অভিনেতা মার্লন ব্র্যান্ডো এবং নাট্যকার আর্থার মিলারের সঙ্গে। আবার মেরিলিনের জন্যই তখন ভাঙতে বসেছে বেসবল খেলোয়াড় ডি ম্যাগিয়ো-র সংসার। এ দিকে কমিউনিজমের সঙ্গে যু্ক্ত থাকার অভিযোগে ম্যাগিয়োর উপরে নজর রেখেছে মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থা এফবিআই।

মেরিলিনকে সতর্ক করল টোয়েনটিয়েথ সেঞ্চুরি ফক্স। বলা হল, সম্পর্ক ভেঙে ফেলতে। কিন্তু মেরিলিন সরে আসতে চাননি প্রেম থেকে। শেষ অবধি ১৯৫৪ সালে বিয়ে করেন ডি ম্যাগিয়োকে। একই সময়ে টোয়েনটিয়েথ সেঞ্চুরি ফক্সের সঙ্গে মেরিলিনের চুক্তিও আগের থেকে ভাল হয়। ছবি পিছু তার পারিশ্রমিক স্থির হয় এক লক্ষ ডলার।

কিন্তু ডি ম্যাগিয়োর সঙ্গে বিয়ে স্থায়ী হল মাত্র আট মাস। ১৯৫৬ সালে মেরিলিন বিয়ে করলেন নাট্যকার আর্থার মিলারকে। মিলার ছিলেন ইহুদি। তাকে বিয়ে করে ধর্মান্তরিত হন মেরিলিনও। ফলে মিশরে তার সব ছবি নিষিদ্ধ করে দেওয়া হয়।

চল্লিশের দশকের শেষ থেকে পঞ্চাশের দশক অবধি হলিউড রাজত্ব করেছিলেন মেরিলিন মনরো। কিন্তু ষাটের দশক তার কোনও দিক থেকেই ভাল ছিল না। ১৯৬১ সালে ভেঙে যায় তার তৃতীয় বিয়ে। এ দিকে হলিউডি ক্যারিয়ারেও শুরু হয় পড়ন্ত বেলা।

১৯৬২-র ৫ আগস্ট নিজের ঘরে মেরিলিন মনরোকে মৃত অবস্থায় পাওয়া গিয়েছিল। তার রক্তের নমুনায় বিষ ছিল। আপাতভাবে তার মৃত্যুকে আত্মহত্যা বলেই চিহ্নিত করা হয়েছিল। কিন্তু অনেকেই এর সঙ্গে প্রয়াত প্রাক্তন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জন এফ কেনেডির সঙ্গে তার সম্পর্ক জড়িত বলে মনে করেন। তবে এই দ্বন্দ্বের উপর থেকে রহস্যের পর্দা কোনও দিনই ওঠেনি।

বলা হয়, ইন্টেলেকচুয়াল পুরুষদের প্রতি দুর্বলতা ছিল মেরিলিনের। রন্ধনে অপটু এই সুন্দরী ভালবাসতেন বই পড়তে। তার বইয়ের সংগ্রহ ছিল ঈর্ষণীয়। একনিষ্ঠ পাঠক হলেও মেরিলিন কিন্তু চিত্রনাট্যের পাঠ ভাল মনে রাখতে পারতেন না। কিন্তু অসামান্য গ্ল্যামার আর অভিনয়ের কাছে ম্লান হয়ে গিয়েছিল তার বাকি সব দুর্বলতা।

কমেডি ও ট্র্যাজিক, দু’ধরনের ছবিতে সমদক্ষতায় অভিনয়ের জন্য তাকে তুলনা করা হয় স্বয়ং চার্লি চ্যাপলিনের সঙ্গে।

জিজাক/

 

হলিউড ও অন্যান্য: আরও পড়ুন

আরও