‘সেপিয়েন্স’ অবলম্বনে চলচ্চিত্র

ঢাকা, বুধবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ | ৪ আশ্বিন ১৪২৫

‘সেপিয়েন্স’ অবলম্বনে চলচ্চিত্র

পরিবর্তন ডেস্ক ৪:২১ অপরাহ্ণ, জুলাই ১২, ২০১৮

‘সেপিয়েন্স’ অবলম্বনে চলচ্চিত্র

ইসরাইলি অধ্যাপক ইউভাল নোয়া হারিরির আন্তর্জাতিক নন-ফিকশন বেস্ট সেলার ‘সেপিয়েন্স : আ ব্রিফ হিস্ট্রি অব হিউম্যান কাইন্ড’ অবলম্বনে নির্মিত হতে যাচ্ছে চলচ্চিত্র। এতে ওঠে আসবে পৃথিবীতে মানবজাতির আধিপত্য বিস্তারের কাহিনি।

হলিউড রিপোর্টার জানায়, চলচ্চিত্রটির জন্য একসঙ্গে কাজ করছেন ব্লেড রানার, অ্যালিয়েন-খ্যাত রিডলি স্কট ও অস্কারজয়ী প্রামাণ্যচিত্র নির্মাতা আসিফ কাপাডিয়া।

এর আগে কার্ল সেগানের বিখ্যাত সিরিজ ‘কসমস’-এ মহাবিশ্ব ও মানব জাতির ইতিহাস নিয়ে বড় পরিসরে কাজ করা হয়। যার পুনঃনির্মাণ হয় কয়েক বছর আগে। একই নামের প্রকাশিত বইও বেশ জনপ্রিয়। ‘সেপিয়েন্স’ও তেমন বৃহৎ পরিসরের চলচ্চিত্র হতে যাচ্ছে। যেখানে মানুষের অতীত থেকে বর্তমান ইতিহাস ওঠে আসবে।

স্কটের প্রযোজনায় চলচ্চিত্রটি পরিচালনা করবেন কাপাডিয়া। এক বিবৃতিতে কাপাডিয়া জানান, এই বই দুনিয়াকে দেখার ভঙ্গি বদলে দিয়েছে। চলচ্চিত্রেও বিষয়টি অক্ষুণ্ন থাকবে।

হিব্রু ভাষায় ‘সেপিয়েন্স’ প্রকাশ হয় ২০১১ সালে। তিন বছর পর আসে ইংরেজি সংস্করণ। ১ কোটি কপির মতো বিক্রিও হয়েছে। এরই মধ্যে বইটি প্রায় ৪৫টি ভাষায় অনূদিত হয়েছে। বইটিতে লেখক মানব জাতির বিবর্তন থেকে শুরু করে আধুনিক যুগের অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক বিপ্লবের নানা বিষয় বর্ণনা করেছেন। বিশ্লেষণে তিনি ব্যবহার করেছেন বিবর্তনীয় জীববিদ্যার নানা সিদ্ধান্ত। বইতে মানব জাতির ইতিহাসকে চারটি ভাগ বিন্যস্ত করে দেখানো হয়।

ডব্লিউএস