হল ত্যাগের নির্দেশ প্রত্যাখ্যান

ঢাকা, বুধবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৯ | ২৯ কার্তিক ১৪২৬

হল ত্যাগের নির্দেশ প্রত্যাখ্যান

জাবি প্রতিনিধি ৪:৩১ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ০৬, ২০১৯

হল ত্যাগের নির্দেশ প্রত্যাখ্যান

বিকাল সাড়ে ৩টার মধ্যে হল ত্যাগের নির্দেশ প্রত্যাখ্যান করেছেন আন্দোলনকারী শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা।

আজ বুধবার বিকেল সাড়ে ৩টা মধ্যে হল ত্যাগের নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

গতকালও একই নির্দেশ দেয়ার পরও হল ছাড়েননি অনেক শিক্ষার্থীরা।

হল ছাড়ার নির্দেশ আসার পর উপাচার্যের পদত্যাগের বিষয়টি আরো জোরালো হয়।

আন্দোলনকারী শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা বিকেল সোয়া ৩টার দিকে বিক্ষোভ মিছিল বের করেন। মিছিল শেষে পুরাতন প্রশাসনিক ভবনের সামনে উপাচার্য অপসারণ মঞ্চ থেকে আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার কর্মসূচির ঘোষণা দেওয়া হয়।

সমাবেশে ‘দুর্নীতির বিরুদ্ধে জাহাঙ্গীরনগরের’ মুখপাত্র দর্শন বিভাগের অধ্যাপক রায়হান রাইন বলেন, গতকাল শান্তিপূর্ণ কর্মসূচিতে সবার চোখের সামনে হামলার ঘটনা ঘটেছে। তারা নিরব ভূমিকা পালন করেছে।

তিনি বলেন, উপাচার্য নিরাপত্তার অজুহাত দিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা করেছেন। কিন্তু এই নিরাপত্তাহীনতা কে তৈরি করেছে? দুর্নীতিবাজ উপাচার্য ফারজানা করেছে। তাকে এই ক্যাম্পাসে কোনোভাবেই রাখা যাবে না। তাকে অপসারিত হতে হবে।

এর আগে আজ বিকাল সাড়ে ৩টার মধ্যে শিক্ষার্থীদের হল ছাড়ার নির্দেশ দেওয়া হয়।

এর মধ্যে হল না ছাড়লে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে হুঁশিয়ার করা হয়। দুপুর ২টার দিকে হল প্রভোস্ট কমিটির বৈঠক শেষে কমিটির সভাপতি অধ্যাপক বশির আহমেদ এই তথ্য জানান।

এর আগে মঙ্গলবার দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয় সিন্ডিকেটের জরুরি এক সভা শেষে অনির্দিষ্টকালের জন্য বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা করা হয়।

আজ থেকে হল সংলগ্ন খাবার দোকানগুলো বন্ধ রাখারও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে বলেও জানান অধ্যাপক বশির।

উল্লেখ্য, দুর্নীতির অভিযোগে জাবি উপাচার্য অধ্যাপক ফারজানা ইসলামের বিরুদ্ধে প্রায় তিন মাস ধরে আন্দোলন চলছে।

ওএস/এসবি

আড়ও পড়ুন...
জাবি শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের আন্দোলন অব্যাহত

 

ক্যাম্পাস: আরও পড়ুন

আরও