সসম্মানে চলে যান, জাবি ভিসিকে আন্দোলনকারীরা

ঢাকা, সোমবার, ১৪ অক্টোবর ২০১৯ | ২৯ আশ্বিন ১৪২৬

সসম্মানে চলে যান, জাবি ভিসিকে আন্দোলনকারীরা

জাবি প্রতিনিধি ৯:১৪ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১৯, ২০১৯

সসম্মানে চলে যান, জাবি ভিসিকে আন্দোলনকারীরা

দুর্নীতিতে জড়িত থাকার অভিযোগে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) উপাচার্য অধ্যাপক ফারজানা ইসলামের পদত্যাগ দাবি করে বিক্ষোভ মিছিল করেছে আন্দোলনকারী শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা।

মিছিলে আন্দোলনকারীরা স্লোগান দেন ভিসি তোমায় জানিয়ে দিলাম, ওয়ালাইকুম আসসালাম; দফা এক দাবি এক, উপাচার্যের পদত্যাগ; আলবিদা আলবিদা, উপাচার্যের আলবিদা।

মিছিলটি সমাজবিজ্ঞান অনুষদের সামনে থেকে শুরু হয়ে গুরুত্বপূর্ণ সড়কসমূহ প্রদক্ষিণ করে পুরাতন প্রশাসনিক ভবনের সামনে সংক্ষিপ্ত সমাবেশের মাধ্যমে শেষ হয়।

মিছিল শেষে সংক্ষিপ্ত সমাবেশে ছাত্র ইউনিয়ন জাবি সংসদের সদস্য রাকিবুল রনি বলেন, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের যেসব ছাত্রলীগ নেতা চাঁদাবাজি করেছেন যারা টাকা পেয়েছেন তারা স্বীকার করেছেন যে উপাচার্য টাকা নাকি ছাত্রলীগ নেতাদের হলে পৌঁছে দিয়েছে। এই লজ্জা আমরা আর রাখতে পারি না।  জনগণের রক্ত পানি করা টাকা থেকে আপনি লুটপাট করবেন আর হাসি তামাশা করবেন তা হতে পারে না। আপনার পদত্যাগের মাধ্যমে রেহাই হবে না আপনাকে বিচারের মুখোমুখি হতে হবে।

নৃবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক মির্জা তাসলিমা সুলতানা বলেন, আমরা আজকের অবস্থানে আসতে বাধ্য হয়েছি। বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য এমন গুরুতর অপরাধের সাথে জড়িত থাকার পরে আর কোন ভাবেই এ পদে থাকতে পারেন না।

উপাচার্যকে পদত্যাগের আহ্বান জানিয়ে দুর্নীতির বিরুদ্ধে জাহাঙ্গীরনগর আন্দোলনের অন্যতম সমন্বয়ক আশিকুর রহমান বলেন, একজন শ্রমিকের ট্যাক্সের টাকা ছাত্র নেতাদের মধ্যে ভাগ-বাটোয়ারার করা হয়েছে। এটা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীরা কোন ভাবেই মেনে নিবে না। আমরা উপাচার্যকে জানাতে চাই সসম্মানে পদ ছেড়ে দেন না হলে এই বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষক শিক্ষার্থীরা আপনার পদ ছাড়তে বাধ্য করবে।

এর আগে গতকাল বুধবার সন্ধ্যায় আন্দোলনকারী শিক্ষক শিক্ষার্থীদের সাথে দীর্ঘ তিন ঘণ্টা আলোচনা শেষে নতুন কলা ভবনের সামনে এক সংবাদ সম্মেলনে পহেলা অক্টোবরের মধ্যে উপাচার্যের পদত্যাগ দাবি ও তাকে ভর্তি পরীক্ষার সময় অবাঞ্ছিত ঘোষণা করেন আন্দোলনকারীরা।

তবে উপাচার্য অধ্যাপক ফারজানা ইসলাম জানিয়ে দিয়েছেন আন্দোলন কিংবা আল্টিমেটামে পদত্যাগ করবেন না। ‘আমাকে যারা এই পদে বসিয়েছেন তারা চাইলে পদ ছেড়ে দিবো। তাছাড়া এই বিশ্ববিদ্যালয় তো শুধু আন্দোলনকারীদের নয় আরো অনেকে তো আছে। তারা তো আর পদত্যাগ চাইছে না।

এসবি

 

ক্যাম্পাস: আরও পড়ুন

আরও