ইবিতে লাগাতার কর্মবিরতিতে কর্মকর্তারা

ঢাকা, ১৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ | 2 0 1

ইবিতে লাগাতার কর্মবিরতিতে কর্মকর্তারা

ইবি প্রতিনিধি ৬:৪৯ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ০২, ২০১৯

ইবিতে লাগাতার কর্মবিরতিতে কর্মকর্তারা

তিন দফা দাবি আদায়ে লাগাতার কর্মবিরতি শুরু করেছেন ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) কর্মকর্তারা।

সোমবার সকাল ৯টায় প্রশাসন ভবনের সামনে ইবি কর্মকর্তা সমিতির ব্যানারে এই কর্মবিরতি ও প্রতিবাদ সভা শুরু হয়।

জানা গেছে, গত বছরের ১০ ডিসেম্বর অফিস সময় ৯টা থেকে সাড়ে ৪টার পরিবর্তে ৮টা থেকে ২টা, চাকরির অবসরের বয়স ৬০ থেকে ৬২ বছরে উন্নীত করা এবং উপ-রেজিস্ট্রার ও সমমানের কর্মকর্তাদের বেতন চতুর্থ গ্রেডে উন্নীতকরণ, সহকারী রেজিস্ট্রার ও সমমানের কর্মকর্তাদের ষষ্ঠ গ্রেডে উন্নীত করার দাবি জানিয়ে আন্দোলন শুরু করে কর্মকর্তা সমিতি।

চতুর্থ গ্রেড বিশ্ববিদ্যালয়ের সহযোগী অধ্যাপক ও ষষ্ঠ গ্রেড সহকারী অধ্যাপকের মর্যাদার সমান। দাবি মেনে না নেয়ায় বিভিন্ন সময়ে ক্যাম্পাসে মৌন মিছিল, মানববন্ধন ও কর্মবিরতি পালন করে কর্মকর্তা সমিতি।

দাবির পর্যালোচনার পরিপ্রেক্ষিতে শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. কামাল উদ্দিনকে আহ্বায়ক করে ৮ সদস্যের কমিটি গঠন করে কর্তৃপক্ষ।

ড. কামাল উদ্দিন পদত্যাগ করলে ছাত্র উপদেষ্টা অধ্যাপক ড. পরেশ চন্দ্র বর্ম্মণকে আহ্বায়ক করা হয়। সে কমিটিও সমস্যা সমাধানে ব্যর্থ হয়।

এরপর গত ৩১ আগস্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের সিন্ডিকেট সভায় নতুন করে বিশ্ববিদ্যালয়ের মানব সম্পদ ব্যবস্থাপনা বিভাগের সভাপতি অধ্যাপক ড. কাজী আখতার হোসেনকে আহ্বায়ক করে তিন সদস্যের কমিটি গঠন করে কর্তৃপক্ষ।

কমিটিতে কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের অধ্যাপক ড. আহসানুল হক আম্বিয়া, অর্থ ও হিসাব শাখার উপ-হিসাব পরিচালক মিন্টু কুমার বিষ্ণু রয়েছেন।

সিন্ডিকেট সভাতেও দাবি-দাওয়া বাস্তবায়নের বিষয়ে কোনো নির্দেশনা না আসায় সোমবার থেকে লাগাতার কর্মবিরতি শুরু করেছেন কর্মকর্তারা।

একই সঙ্গে আগামী বুধবার পর্যন্ত কর্মবিরতি ও প্রতিবাদ সভা এবং দাবি অনাদায়ে কঠোর কর্মসূচির ঘোষণা দেন তারা।

ভিসির উদ্দেশে সমিতির সাধারণ সম্পাদক মীর মোরশেদুর রহমান বলেন, ‘জরুরি সিন্ডিকেট ডেকে আমাদের তিন দাবি মেনে নিন, মঙ্গল হবে। দাবি না মানলে আপনাকে যেকোনো পরিস্থিতির জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে।’

বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি অধ্যাপক ড. হারুন-উর রশিদ আসকারী বলেন, ‘কর্মকর্তাদের দাবি-দাওয়ার প্রতি আমি শ্রদ্ধাশীল। চাকরির বয়স বৃদ্ধির বিষয়টি রাষ্ট্রপতির দপ্তরে পাঠানো হয়েছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘একটি বিষয়ে প্রক্রিয়া অনুসরণ করে ব্যবস্থা নেয়া হয়। এখানে অগ্রহণযোগ্য কিছু করে দাবি আদায় করা সম্ভব নয়। কর্মকর্তাদের কাছে আমরা সব সময় দায়িত্বশীল আচরণ কামনা করি।’

আইআর/আইএম

 

ক্যাম্পাস: আরও পড়ুন

আরও