চিত্রকর্মে জবিতে যৌন নিপীড়নের প্রতিবাদ

ঢাকা, ২০ জুলাই, ২০১৯ | 2 0 1

চিত্রকর্মে জবিতে যৌন নিপীড়নের প্রতিবাদ

জবি প্রতিনিধি ৯:৪৮ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ২৩, ২০১৯

চিত্রকর্মে জবিতে যৌন নিপীড়নের প্রতিবাদ

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে (জবি) যৌননিপীড়ন-বিরোধী চিত্রকর্ম প্রদর্শনীর আয়োজন করেছে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় সাংস্কৃতিক ইউনিয়ন।

মঙ্গলবার ক্যাম্পাসের ভাস্কর্য চত্বরের সামনে দিনব্যাপী প্রদর্শনীর আয়োজন করা হয়।

আয়োজকরা বলেছেন, সম্প্রতি সময়ে যৌননিপীড়নের ঘটনা বৃদ্ধি পাওয়ায় তাদের এ আয়োজন। শিল্পকর্ম বরাবরই প্রতিবাদের ভাষা হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে। যৌননিপীড়ন বন্ধে নারী-পুরুষ উভয়ের সচেতনতা প্রয়োজন। শিল্পকর্মের সঠিক চর্চার মাধ্যমেই মানুষের বিবেক জাগ্রত করা সম্ভব বলে মনে করছেন তারা।

জবি শাখা সাংস্কৃতিক ইউনিয়নের সদস্য সাবাব আলম সানি বলেন, সমগ্র বাংলাদেশে যৌন নির্যাতনের বিরুদ্ধে আমাদের প্রচেষ্টায় শিল্পকর্মের মাধ্যমে আমরা এর প্রতিবাদ করছি। কারণ, আমরা বিশ্বাস করি যৌন হয়রানি জঘন্য ও ঘৃণ্যতম অপরাধমূলক কাজ। তাই আমরা জবি শিল্পীরা একসঙ্গে শিল্পকর্মের মাধ্যমে ধর্ষকদের সঙ্গ কী ধরনের আচরণ করা উচিত তা তুলে ধরেছি।

চিত্রকর্মগুলোতে শিল্পীরা যৌননিপীড়ন বন্ধের আহ্বান জানিয়েছেন। তুলে ধরা হয়েছে, নারীর প্রতি সমাজ ও পুরুষের বিকৃত যৌন মানসিকতা। এ ছাড়াও নারীর বিভিন্ন প্রতিবাদী চরিত্র।

প্রদর্শনীতে অংশ নেওয়া চারুকলা বিভাগের নবম ব্যাচের অনিক সাহা সুমিত বলেন, প্রদর্শনীতে আমার দুটি চিত্রকর্ম প্রদর্শিত হচ্ছে। একটিতে বিভিন্ন পত্রিকায় প্রকাশিত যৌননিপীড়নের পেপার কাটিংয়ের ওপর নিপীড়নের শিকার নারী প্রতিকৃতি এঁকেছি। এর মাধ্যমে আমি বুঝিয়েছি প্রতিদিনই সংবাদপত্রে যৌননিপীড়নের সংবাদ প্রকাশ হচ্ছে, তার পরও নারীর অবস্থার পরিবর্তন হচ্ছে না, বরং বাড়ছে।

প্রদর্শনী দেখতে আসা পরিসংখ্যান বিভাগের ১৩তম আর্বতনের শিক্ষার্থী সিয়াম বলেন, মানুষের মধ্যে ধর্ষণের শাস্তিটা আরো কঠিনভাবে উপস্থাপন করা উচিত। চিত্রকর্মে নারীর প্রতি সমাজের অবস্থান সুন্দরভাবে ফুটিয়ে তুলেছেন শিল্পীরা।

প্রদর্শনীতে অংশ নেওয়া চারুকলা বিভাগের শিক্ষার্থী নাঈম মৃধা বলেন, চিত্রে দড়ি দিয়ে নারীর হাত বাঁধা অবস্থায় দেখিয়েছি এবং সেখান থেকে রক্ত ঝড়ছে। এর মাধ্যমে বোঝাতে চেয়েছি, যৌন নিপীড়িত নারীর প্রতি সমাজের বিকৃত নিষ্ঠুরতা।

আয়োজনের বিষয়ে শাখা ছাত্র ইউনিয়নের সভাপতি মিফতাহ আল ইহসান তূর্য বলেন, শিল্পের মাধ্যমে যৌননিপীড়নের প্রতিবাদে আমাদের আয়োজন। শিল্প মানুষের মৌলিক ও জৈবিক চাহিদা। মানুষ শিল্পের সঠিক চর্চায় না থাকলে বিভিন্ন অপকর্মে লিপ্ত হয়। আমাদের চেষ্টা ছিল—মানুষ কম করে হলেও একটি ছবি দেখুক এবং নিজেকে প্রশ্ন করার জায়গা থাকছে, বিবেক জাগ্রত হওয়ার সুযোগ তৈরি হচ্ছে।

প্রদর্শনীতে জায়গা পেয়েছে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যায়নরত চারুকলা বিভাগের ২৭ জন ও অন্যান্য বিভাগের ৫ জন শিল্পীর ৩৫টি চিত্রকর্ম, কার্টুন ও শিল্পকর্ম।

জেটিএ

 

ক্যাম্পাস: আরও পড়ুন

আরও