গণপরিবহনে যৌন হয়রানি রোধে অভিনব প্রতিবাদ!

ঢাকা, ১৪ জুলাই, ২০১৯ | 2 0 1

গণপরিবহনে যৌন হয়রানি রোধে অভিনব প্রতিবাদ!

চবি প্রতিনিধি ১১:০২ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ১৫, ২০১৯

গণপরিবহনে যৌন হয়রানি রোধে অভিনব প্রতিবাদ!

দীর্ঘ ২১ কিলোমিটার ‘প্রতিবাদমূলক দৌড়’ দিয়ে গণপরিবহনে যৌন হয়রানি রোধে এক অভিনব প্রতিবাদ জানিয়েছেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় (চবি) শিক্ষা ও গবেষণা ইন্সটিটিউটের ২০১৬-১৭ সেশনের শিক্ষার্থী শাহারিয়ার বিন বশর।

সোমবার (১৫ এপ্রিল) সকাল সাতটার দিকে চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার থেকে শুরু হয়ে সোয়া ৯টায় চবি কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে এসে এই দৌড় শেষ করেন তিনি।

এ বিষয়ে শাহারিয়ার বিন বশর বলেন, গত শুক্রবার আমি মিনি ম্যারাথন প্রতিযোগিতায় দ্বিতীয় স্থান অর্জন করে বাসায় এসে জানতে পারি যে, আমার মামাতো বোনের বান্ধবী ক্যাম্পাস থেকে ফেরার পথে বাসে যৌন হয়রানী শিকার হয়েছে। এ ঘটনায় গণপরিবহনে যৌন হয়রানি রোধে নিজ অবস্থান থেকে প্রতিবাদ জানানোর জন্যই আমার ক্ষুদ্র প্রচেষ্ঠায় এই ‘প্রতিবাদমূলক দৌড়’। আমি চাই, গণপরিবহনে যৌন হয়রানি যার যার অবস্থান থেকে সবাই প্রতিবাদ করুন। আমরা দেশের সচেতন নাগরিকরা যদি নিজ জায়গা থেকে সচেতনতা গড়ে তুলি, প্রতিবাদ জানাই তাইলেই গণপরিবহনে যৌন হয়রানি বন্ধ করা সম্ভব।

উল্লেখ্য, গত বৃহস্পতিবার চট্টগ্রামের হাটহাজারী থানাধীন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় এলাকা থেকে নগরীর নিউমার্কেটের উদ্দেশ্যে ছেড়ে আসা ৩নং রুটের বাসে হেলপারের লাঞ্ছনার শিকার হন চবি অর্থনীতি বিভাগের এক ছাত্রী।

তিনি ঘটনার দিন বিকেলে ক্লাস শেষ করে আনুমানিক বিকেল ৩টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয় ১নং গেইট হতে ৩নং বাসে ওঠেন। বাসটি নগরের রিয়াজুদ্দিন বাজার এলাকায় পৌঁছলে ভুক্তভোগী ছাড়া সব যাত্রী একে একে নেমে যান। একা পেয়ে হঠাৎই বাসটি তার রুট পাল্টে স্টেশন রোডের দিকে চলতে শুরু করে। তখন ভুক্তভোগী নিরাপত্তার স্বার্থে চালককে বাস থামাতে বলেন।

কিন্তু, দেখতে পান হঠাৎ বাসের হেলপার তার দিকে ধেয়ে আসেন এবং গলায় ওড়না পেঁচিয়ে শ্বাসরোধের চেষ্টা করেন। সে সময় দম বন্ধ হয়ে আসলে মেয়েটি আত্মরক্ষার্থে এবং নিজের সম্ভ্রম বাঁচাতে হাতে থাকা মোবাইল দিয়ে হেলপারকে আঘাত করে ওই ছাত্রী জীবনের ঝুঁকি নিয়ে চলন্ত বাস থেকেই লাফ দেন।

এ ঘটনার পর বৃহস্পতিবার বিকেল ৪টা ৫০ মিনিটে ওই ছাত্রী নিজের ফেসবুকে একটি পোস্ট দিয়ে ঘটনার বিস্তারিত তুলে ধরেন।

সেই পোস্টে হেলপারের যৌন হয়রানির চেষ্টা, তাতে চালকের ইন্ধন এবং জীবনের বিনিময়ে সম্ভ্রম রক্ষায় তার পদক্ষেপের বর্ণনা দেয়ার পর দীর্ঘশ্বাস ফেলেন।

শেষে তিনি লেখেন, ‘এইদেশে আর থাকব না ভাই’। তার এই পোস্টটি ফেসবুকে ভাইরাল হয়।

পরদিন শুক্রবার সকালে ভুক্তভোগী ছাত্রী বাদী হয়ে কোতোয়ালি থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা করলে ঐদিন রাতে বিপ্লব দেবনাথ (২৫) নামে এই বাসচালকে আটক করে চট্টগ্রাম নগরীর কোতোয়ালি থানা পুলিশ। আলামত হিসেবে বাসটিকে (চট্টো মেট্রো: জ ১১ ১১-২০) জব্দ করা।

পরে শনিবার চট্টগ্রাম মহানগর হাকিম সরওয়ার জাহান বাসচালকে ৩ দিনের রিমান্ডের আদেশ দেন।

তবে চালককে আটক করা হলেও ঘটনার মূল অভিযোক্ত হেলপারকে আটক করতে পারেনি পুলিশ।

এআরই

 

ক্যাম্পাস: আরও পড়ুন

আরও