রাবি শিক্ষক লিলন হত্যা মামলার রায় দ্রুত কার্যকরের দাবি

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল ২০১৯ | ১২ বৈশাখ ১৪২৬

রাবি শিক্ষক লিলন হত্যা মামলার রায় দ্রুত কার্যকরের দাবি

রাবি প্রতিনিধি ৭:১৮ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ১৫, ২০১৯

রাবি শিক্ষক লিলন হত্যা মামলার রায় দ্রুত কার্যকরের দাবি

অবশেষে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষক প্রফেসর ড. এ কে এম শফিউল ইসলাম লিলনের হত্যাকাণ্ডের রায় দিয়েছেন আদালত।

৫ বছর পর সোমবার দুপুরে এ রায় দেন মহানগর দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালের বিচারক অনুপ কুমার। হত্যা মামলার রায়ে তিনজনের মৃত্যুদণ্ড ও রাজশাহী জেলা বিএনপির যুগ্ম সম্পাদক আনোয়ার হোসেন উজ্জ্বলসহ আটজন খালাস পেয়েছেন।

তবে দ্রুত রায় কার্যকরের দাবি জানিয়েছেন বিভাগের শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও প্রশাসন।

ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন—আবদুস সালাম পিন্টু, পবা উপজেলার কাটাখালী পৌর যুবদল নেতা আরিফুল ইসলাম মানিক ও লুৎফুল ইসলাম সবুজ। এর মধ্যে সবুজ পলাতক রয়েছেন।

অপরদিকে খালাসপ্রাপ্তরা হলেন—আনোয়ার হোসেন উজ্জ্বল,  নাসরিন আক্তার রেশমা, সিরাজুল ইসলাম, আল মামুন, আরিফ হোসেন, সাগর হোসেন, জিন্নাত আলী ও ইব্রাহিম খলিল ওরফে বাবু।

সূত্রে জানা গেছে, এর আগে ২০১৪ সালের ১৫ নভেম্বর দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয় সংলগ্ন চৌদ্দপাই এলাকায় নিজ বাড়ির সামনে খুন হন শফিউল ইসলাম লিলন। হত্যার পর দিনই বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার এস্তাজুল হক বাদী হয়ে অজ্ঞাত আসামি করে মতিহার থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। এরপর ২৩ নভেম্বর এই হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত সন্দেহে যুবদল নেতা আবদুস সামাদ পিন্টুসহ ছয়জনকে আটক করে র‌্যাব। পরে পিন্টুর স্ত্রী নাসরিন আখতার রেশমাকে আটক করে গোয়েন্দা পুলিশ।

হত্যাকাণ্ডের দায় স্বীকার করে রেশমা আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন। এতে রাজশাহী মহানগর পুলিশের গোয়েন্দা শাখার তৎকালীন পরিদর্শক রেজাউস সাদিক ১১ জনকে অভিযুক্ত করে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয় সমাজবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী আবদুল্লাহ আল আমিন বলেন, স্যারের হত্যাকাণ্ডের রায় ঘোষণা করতেই ৫ বছর কেটে গেছে। আমরা চাই, সব আমলাতান্ত্রিক  জটিলতা কাটিয়ে দ্রুত রায় কার্যকর করা হোক।

এদিকে এ বিষয়ে জানতে চাইলে সমাজবিজ্ঞান বিভাগের সভাপতি ড. মুহা. জুলফিকার আলী ইসলাম বলেন, হত্যাকাণ্ডের বিচারের দাবিতে আমরা যেহেতু সম্মিলিতভাবে আন্দোলন করেছি, তাই সবার সঙ্গে কথা বলে সন্তোষের ব্যাপারে মন্তব্য করবেন বলে জানান তিনি।

সফিউল ইসলাম লিলন হত্যাকাণ্ডের সময় রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ভিসি অধ্যাপক মিজানউদ্দিন বলেন, ভিসি থাকাকালে নির্মম হত্যাকাণ্ডটি হয়। যে রায় হয়েছে তা যেন দ্রুত কার্যকর করা হয়। একই সঙ্গে এ ঘটনায় যাদের সংশ্লিষ্টতা ও হুকুমদাতা রয়েছে তাদেরও আইনের আওতায় এনে বিচারের দাবি করেন তিনি।

এদিকে এ বিষয়ে জানতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালয় ভিসি প্রফেসর এম আবদুস সোবহান সন্তোষ প্রকাশ করে বলেন, বিজ্ঞ বিচারকগণ যে রায় দিয়েছেন, সেটাতে বিশ্ববিদ্যালয় পরিবার সন্তুষ্ট। একই সঙ্গে দ্রুত রায় কার্যকরের দাবি জানান ভিসি।

এমএ