ভাসানী বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষায় জালিয়াতিতে আটক ৪

ঢাকা, রবিবার, ১৬ জুন ২০১৯ | ২ আষাঢ় ১৪২৬

ভাসানী বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষায় জালিয়াতিতে আটক ৪

টাঙ্গাইল প্রতিনিধি ৮:০৯ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ১২, ২০১৯

ভাসানী বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষায় জালিয়াতিতে আটক ৪

টাঙ্গাইলে মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষে ভতি পরীক্ষায় জালিয়াতি করায় অভিযোগে ৪ শিক্ষার্থীকে আটক করে বিভিন্ন মেয়াদে সাজা দেয়া হয়েছে।

শনিবার বিকেল ৫টার দিকে ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আব্দুল করিমের নেতৃত্বে এ অভিযান পরিচালনা করা হয়। এ সময় ২ শিক্ষার্থীকে ১ বছর কারাদণ্ড ও ২ শিক্ষার্থীর ভর্তি বাতিল করা হয়েছে।

প্রক্সি দিয়ে জালিয়াতির অভিযোগে ১ বছরের কারাদণ্ডপ্রাপ্ত ২ শিক্ষার্থী হলেন, এ ইউনিটের ১ম স্থান অর্জনকারী বগুড়া সদর উপজেলার শেখের কোলার নরুইল উত্তরপাড়া গ্রামের জাহেদুর রহমানের ছেলে শাহরিয়ার পারভেজ ও সি ইউনিটে ২য় স্থান অর্জনকারী বগুড়ার কলোনি এলাকার একেএম বদিউজ্জামানের ছেলে রিয়াসত আজিম শাদাব।

ছবি, স্বাক্ষর ও পরীক্ষায় বাংলা-ইংরেজিতে লেখা বাক্যে হাতের লেখা মিল না থাকায় ভর্তি বাতিল হওয়া ২ শিক্ষার্থী হলেন এ ইউনিটে ৬ষ্ঠ স্থান অর্জনকারী গাজীপুর রাজেন্দ্রপুর আরপি গেইটের গাজী মোহাম্মদ আলীর ছেলে গাজী মোহাম্মদ বনী ইয়ামিন শাওন এবং বি ইউনিটে ১৪১তম স্থান অর্জনকারী টাঙ্গাইল সদর উপজেলার দিঘুলিয়া কালিপুর গ্রামের নিলমনি কর্মকারের ছেলে জয় কর্মকার।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ড. সিরাজুল  ইসলাম বলেন, ভর্তি জালিয়াতি সন্দেহের ভিত্তিতে এদেরকে আটক করা হয়। আমরা বিশ্ববিদ্যালয় প্রসাশন ও টাঙ্গাইল জেলা প্রসাশন তদন্ত করি। তদন্ত সাপেক্ষে জালিয়াতির সাথে যুক্ত থাকা শিক্ষার্থীদের শাস্তি দেয়া হয়।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, গত ৩০ নভেম্বর ও ১ ডিসেম্বর মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। পরে আজ শনিবার ১২ জানুয়ারি সাক্ষাৎকার নেয়ার সময় সন্দেহভাজন ৭ জনকে আটক করা হয়। বিশ্ববিদ্যালয় প্রসাশন ও ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে তদন্ত করে ৪ জনকে শাস্তি দেয়া হয়।

এইচআর