জাবির ছিনতাইকারী ৩ শিক্ষার্থীকে ২ বছরের জন্য বহিষ্কার

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৭ জানুয়ারি ২০১৯ | ৪ মাঘ ১৪২৫

জাবির ছিনতাইকারী ৩ শিক্ষার্থীকে ২ বছরের জন্য বহিষ্কার

জাবি প্রতিনিধি ১২:১৯ পূর্বাহ্ণ, ডিসেম্বর ১৪, ২০১৮

জাবির ছিনতাইকারী ৩ শিক্ষার্থীকে ২ বছরের জন্য বহিষ্কার

ক্যাম্পাসে ছিনতাইয়ের সঙ্গে জড়িত থাকার অপরাধে ৩ শিক্ষার্থীকে ২ বছরের জন্য বহিষ্কার করে অফিস আদেশ জারি করেছে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

গত সোমবার বিশ্ববিদ্যালয় রেজিস্ট্রার রহিমা কানিজ স্বাক্ষরিত অফিস আদেশটি বিশ্ববিদ্যালয়ের সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন দপ্তরে প্রেরণ করা হয়।

বহিষ্কৃত ৩ জন হলেন, রসায়ন বিভাগের ৪৩ ব্যাচের শিক্ষার্থীকে মাজেদুল হাসান রবিন, দর্শন বিভাগের ৪৩ ব্যাচের শিক্ষার্থী আশরাফুল ইসলাম দ্বীপ, ভূতাত্ত্বিক বিজ্ঞান বিভাগের ৪৫ ব্যাচের শিক্ষার্থী মো. রায়হান পাটোয়ারী।

অফিস আদেশে বহিষ্কারের পাশাপাশি এই ৩ জনকে ক্যাম্পাসে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করা হয়েছে এবং শাস্তি চলাকালীন ক্যাম্পাসে দেখা গেলে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে সোপর্দ করার কথা বলা হয়েছে।

বহিষ্কারের কারণ হিসেবে অফিস আদেশে জানানো হয়, গত ২২ জুন একজন দর্শনার্থী তার বান্ধবীকে নিয়ে ক্যাম্পাসে ঘুরতে আসলে বহিষ্কৃতরা ওই দর্শনার্থীর মোবাইল-মানিব্যাগ ছিনিয়ে নেয়।

বহিষ্কৃতদের মধ্যে রবিন শাখা ছাত্রলীগের সহ-সম্পাদক পদে রয়েছেন এবং রায়হান ছাত্রলীগ কর্মী। দ্বীপ একসময় বিশ্ববিদ্যালয়ের আ ফ ম কামাল উদ্দিন হলে ছাত্রলীগের রাজনীতির সাথে জড়িত ছিলেন। পরে হল ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা তাকে হল থেকে বের করে দিলে সে রফিক-জব্বার হলে গিয়ে ওঠে। এরপর ছাত্রলীগের রাজনীতিতে তাকে সক্রিয় দেখা যায়নি।

বহিষ্কার হওয়ার পরও রবিন ও রায়হান পাটোয়ারী এখনও হলটির ২১২ ও ২১৯ নং কক্ষে অবস্থান করছেন। এছাড়াও তারা ৩২২ নং কক্ষটিও ব্যবহার করছেন বলে জানা গেছে।

শাখা ছাত্রলীগও তাদের বিরুদ্ধে এখন পর্যন্ত কোনো শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়নি। দ্বীপ হলে না থাকলেও ক্যাম্পাসে তার যাতায়াত আছে বলে বিভিন্ন সুত্রে জানা গেছে।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে শাখা ছাত্রলীগের সভাপাতি জুয়েল রানা দাবি করেন তাদের বহিষ্কার হওয়ার বিষয়টি তিনি জানতেন না।

‘কোন অপরাধী বা ছিনতাইকারীর ছাত্রলীগের রাজনীতিতে জায়গা হবে না, সে যেই হোক না কেন। অন্যায় যে করবে তার শাস্তি হওয়া উচিত। এখন আমরা সংগঠন থেকে ব্যবস্থা নিব।’ বলেন, ছাত্রলীগ সভাপতি।

হল প্রভোস্ট অধ্যাপক সোহেল আহমেদের কাছে এসব বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বহিষ্কারাদেশ ও বহিষ্কৃতদের ব্যাপারে সুস্পষ্ট তথ্য জানাতে পারেননি।

তিনি বলেন, ‘আমরাতো আসলে ১৬ ডিসেম্বর, ১৪ ডিসেম্বর নিয়ে ভীষণ ব্যস্ত। তারপরে নির্বাচনী একটা বিষয়, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী একটু আগে গেলেন। আমরা এখানে সকাল থেকেই সারাদিনই ছিলাম। হলে প্রোগ্রাম, ডিপার্টমেন্টে প্রোগ্রাম। আমরা তো এংগেজড।’

অফিস আদেশ জারি হতে সময় লাগলো ১ মাস

ছিনতাইকারী এই তিনজনকে বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় গত ৭ নভেম্বর অনুষ্ঠিত বিশ্ববিদ্যালয়ের ৩০৩তম সিন্ডিকেট সভায়। এর এক মাস পর গত সোমবার অফিস আদেশটি বের হয়।

সিন্ডিকেট সভায় কোনো বিষয়ে সিদ্ধান্ত হওয়ার পর অফিস আদেশ জারি করতে এরকম দীর্ঘসূত্রিতাকে অনাকাঙ্খিত মনে করছেন ছাত্র নেতারা।

জাবি শাখা ছাত্র ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক আরিফুল ইসলাম অনিক বলেন, প্রশাসনের এমন ঔদাসীন্য অপরাধীদের অপরাধ করতে উৎসাহ দেয়। কোন সিদ্ধান্ত হওয়ার পর সেটার যদি একমাস দেড়মাস পর আদেশ জারি হয় তা এই ডিজিটাইলেজেশনের যুগে অনাকাঙ্খিত।

বিষয়টি ব্যাখ্যা করে অনিক বলেন, ‘ধরা যাক কাউকে কোন অপরাধে ১ মাসের জন্য বহিষ্কার করা হলো, আদেশও জারি হলো ১ মাস পর তাহলে তো শাস্তিটা আর প্রয়োগ হলো না।’

তবে রেজিস্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত) রহিমা কানিজের দাবি, ভর্তি পরীক্ষা কার্যক্রমের ব্যস্ততার কারণে এমনটা হয়েছে।

এআরই