শিক্ষক লাঞ্ছনার দায়ে ইবি কর্মকর্তা বরখাস্ত

ঢাকা, ১০ জুলাই, ২০১৯ | 2 0 1

শিক্ষক লাঞ্ছনার দায়ে ইবি কর্মকর্তা বরখাস্ত

ইবি প্রতিনিধি- ৭:৫১ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ১৩, ২০১৮

শিক্ষক লাঞ্ছনার দায়ে ইবি কর্মকর্তা বরখাস্ত

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের জ্যেষ্ঠ শিক্ষক ও জিয়া পরিষদের কেন্দ্রীয় মহাসচিব অধ্যাপক ড. এমতাজ হোসেনকে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করার দায়ে মানজারে আলম মিরু নামের এক উপ রেজিস্ট্রারকে সাময়িক বরখাস্ত করেছে কর্তৃপক্ষ।

এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার বিকেলে তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার এস এম আব্দুল লতিফ।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, বিগত কয়েক মাস ধরে জিয়া পরিষদ কুষ্টিয়া জেলা শাখার কমিটি অনুমোদন নিতে জিয়া পরিষদের কেন্দ্রীয় মহাসচিব অধ্যাপক ড. এমতাজ হোসেনের কাছে ঘোরাঘুরি করতেন বিশ্ববিদ্যালয়ের সংস্থাপন শাখার উপ-রেজিস্ট্রার মানজারে আলম মিরু। কিন্তু ড. এমতাজ হোসেন ওই কমিটি অনুমোদন দিতেন না।

গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেলে ড. এমতাজ হোসেনের ক্যাম্পাসের ডরমিটরির ৪০৯ নং কক্ষে যান ওই কর্মকর্তা। কোনো কথা বুঝে ওঠার আগেই ওই শিক্ষককে মারধর শুরু করে। এই ঘটনায় ওই কর্মকর্তাকে সাময়িক বরখাস্ত করেছে প্রশাসন। একই সাথে তার বিরুদ্ধে তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে বলে জানা গেছে।

রেজিস্ট্রার দপ্তর সূত্র জানায়, তদন্ত কমিটিতে ট্যুরিজম অ্যান্ড হসপিটালিটি ম্যানেজমেন্ট বিভাগের সভাপতি ও নব নির্বাচিত শিক্ষক সমিতির সদস্য অধ্যাপক মাহবুবুল আরফিনকে আহ্বায়ক এবং জিয়া পরিষদের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ইদ্রিস আলী ও কর্মকর্তা আব্দুর রশিদ বকুলকে সদস্য করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার এস এম আব্দুল লতিফ বলেন, ‘মারধরের ঘটনায় তদন্ত কমিটি গঠন করেছে কর্তৃপক্ষ। প্রতিবেদন পেলে পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’

এদিকে এ ঘটনায় অধ্যাপক ড. এমতাজ হোসেন বাদী হয়ে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় থানায় একটি মামলা করেছেন বলে নিশ্চিত করেছেন থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রতন শেখ।

ওসি জানান, মামলায় মানজারে আলম মিরুর নাম উল্লেখ করে আরও দুই ব্যক্তিকে অজ্ঞাতনামা করা হয়েছে। মামলা নং ৫৬৫/১৩,১২,১৮। মামলায় ৩২৩ ও ৫০৬ দুটি ধারা দেওয়া হয়েছে।

আইআর/এএসটি

 

ক্যাম্পাস: আরও পড়ুন

আরও