নীলক্ষেতে দোকানদারদের হামলায় ঢাবির ৫ শিক্ষার্থী আহত

ঢাকা, বুধবার, ২৪ অক্টোবর ২০১৮ | ৮ কার্তিক ১৪২৫

নীলক্ষেতে দোকানদারদের হামলায় ঢাবির ৫ শিক্ষার্থী আহত

ঢাবি প্রতিনিধি ১১:৪৯ অপরাহ্ণ, জুলাই ১৯, ২০১৮

নীলক্ষেতে দোকানদারদের হামলায় ঢাবির ৫ শিক্ষার্থী আহত

রাজধানীর নীলক্ষেতে বই কেনা নিয়ে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে দোকানদারদের মারধরের শিকার হয়েছেন ঢাবির ৫ শিক্ষার্থী। তাদের একটি দোকানে ঘণ্টাব্যাপী আটকে রাখা হয়। একজন দোকান কর্মচারীও মারধরের শিকার হন। বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে রাজধানীর নীলক্ষেতে বই মার্কেটে এ ঘটনা ঘটে।

মারধরের শিকার ৫ শিক্ষার্থী হলেন- দ্বিতীয় বর্ষের শান্তি ও সংঘর্ষ বিভাগের বাঁধন, দর্শন বিভাগের মাহিন, উইমেন অ্যান্ড জেন্ডার স্টাডিজ বিভাগের নিপুণ, প্রথম বর্ষের স্বাস্থ্য অর্থনীতি বিভাগের রুবেল এবং ব্যাংকিং অ্যান্ড ইন্স্যুরেন্স বিভাগের তালেখ। আহত দোকান কর্মচারীর নাম জানা যায়নি।

প্রত্যক্ষদর্শীদের সূত্রে জানা যায়, রাত ৮টার দিকে মুক্তিযোদ্ধা জিয়াউর রহমান হলের প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থীরা বই কিনতে গেলে দোকানদারদের সাথে তাদের বাগ্বিতণ্ডা হয়। কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে একই হলের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থীরা ঘটনাস্থলে আসে। এসময় দোকানদাররা জড়ো হয়ে এদের ৫ জনকে মারধর করে মার্কেটের ভিতরে আটকে রাখে এবং গেট আটকিয়ে দেয়।

রাত ৯টার দিকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন হলের শিক্ষার্থীরা তাদের উদ্ধার করতে গেলে ওই এলাকায় উত্তেজনা তৈরি হয়। রাত সাড়ে ৯টার দিকে পুলিশের সহযোগিতায় আটককৃত ৫ জনকে উদ্ধার করা  হয়। এ সময় ওই দোকানের একজন কর্মচারী বের হলে তাকে মারধর করে উপস্থিত শিক্ষার্থীরা। পরে পুলিশ এসে এই কর্মচারীকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যায়।

ঘটনার বিষয়ে জানতে চাইলে আহত শান্তি ও সংঘর্ষ বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী বাঁধন বলেন, আমাদের জুনিয়র প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থীদের সাথে দোকানদাররা খারাপ ব্যবহার করে। আমরা বিষয়টি জানতে ঘটনাস্থলে গেলে আমাদের উপর অতর্কিত হামলা করা হয়। আমার মাথায় ব্যান্ডেজ, পিঠ ও হাত জখম হয়।

জানতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালয়ের জিয়াউর রহমান হলের ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল্লাহ আল মাসুদ লিমন বলেন, আমার হলের ৫ জন শিক্ষার্থীকে দোকানদাররা তুচ্ছ কারণে মারধর করে আটক করে রাখে। পুলিশের সহযোগিতায় তাদের উদ্ধার করা হয়। আমরা প্রশাসনের কাছে দোষীদের বিচার দাবি করেছি।

ওএইচ/এএল