নির্দোষ দাবি করলেন শাবির বহিষ্কৃত ছাত্রলীগ নেতারা

ঢাকা, শুক্রবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮ | ৬ আশ্বিন ১৪২৫

নির্দোষ দাবি করলেন শাবির বহিষ্কৃত ছাত্রলীগ নেতারা

শাবি প্রতিনিধি ১০:৩৭ অপরাহ্ণ, মার্চ ২১, ২০১৮

নির্দোষ দাবি করলেন শাবির বহিষ্কৃত ছাত্রলীগ নেতারা

আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষের ঘটনায় বহিষ্কৃত নেতাকর্মীরা নিজেদের নির্দোষ দাবি করে সংবাদ সম্মেলন করেছেন।

তাদের দাবি, মঙ্গলবার সংঘর্ষের ঘটনায় ঘটনাস্থলে তারা কেউই উপস্থিত ছিলেন না। অথচ তাদেরকে বহিষ্কার করা হয়েছে। কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের দৃষ্টি আকর্ষণ করে অতিদ্রুত সুষ্ঠু তদন্তের মাধ্যমে দোষীদের বিচার এবং নির্দোষদের দায়মুক্তির আহ্বান জানান তারা।

বুধবার বিকেল ৫টায় শাবি প্রেসক্লাবে সম্মেলন সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে বহিষ্কৃত সহ-সভাপতি সৈয়দ জুয়েম লিখিত বক্তব্যে বলেন, ‘আমাদেরকে পরিকল্পিতভাবে এ ঘটনায় জড়ানো হয়েছে। গতকালের ঘটনার প্রেক্ষিতে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ বারজন নেতাকর্মীকে বহিষ্কার করেছে। অথচ অস্ত্রধারী তরিকুল ইসলাম তারেকের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়নি যা অত্যন্ত দুঃখজনক।’

তারা অভিযোগ করেন, আমাদের বিষয়ে কেন্দ্রকে ভুল বার্তা দেয়া হয়েছে। এই ইউনিট যারা পরিচালনা করছেন তারা অযোগ্য। সভাপতি ফাওখোর ও নানা অপকর্মের হোতা, আর সাধারণ সম্পাদক অছাত্র। এছাড়া তারেক অছাত্র, মাদক ব্যবসায়ী ও ছাত্রদলের পৃষ্ঠপোষক।

সংবাদ সম্মেলনে আরো উপস্থিত ছিলেন যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক আশরাফুল আলম অন্তু, সাংগঠনিক সম্পাদক দোলন আহমেদ, উপ-মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক লক্ষণ চন্দ্র বর্মণ, সদস্য মুনকীর কাজী, তৌফিকুর রহমান তন্ময়, বাসির মিয়া প্রমুখ। এদের সবাইকে শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগে বুধবার দুপুরে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ বহিষ্কার করে।

অন্যদিকে এ ঘটনার পর থেকেই ক্যাম্পাসে উত্তেজনা বিরাজ করছে। যেকোনো সময় বিবদমান গ্রুপগুলোর মধ্যে বড় ধরনের সংঘর্ষের আশংকা রয়েছে।

এ রিপোর্ট লেখার সময় তারিকুল ইসলামের পক্ষে শাহপরান হলের মূল ফটক তালাবদ্ধ করে ভেতরে সশস্ত্র অবস্থান নিয়েছে ভারপ্রাপ্ত সভাপতি রুহুল আমিন ও সাধারণ সম্পাদক ইমরান খানের অনুসারীরা। অন্যদিকে বহিষ্কৃত নেতা আবু সাঈদ আকন্দ ও সাজিদুল ইসলাম সবুজের অনুসারী নেতাকর্মীরা হলের বাইরে অবস্থান করছে। 

মঙ্গলবার রাত ১০টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটক সংলগ্ন সাতকরা রেস্টুরেন্টে শাখা ছাত্রলীগের সাইদ-সবুজের অনুসারীদের সঙ্গে ও সহ-সভাপতি তারিকুল ইসলাম তারেকের অনুসারীদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে এসএম আব্দুল্লাহ রনি নামে এক সাধারণ শিক্ষার্থী গুলিবিদ্ধ হন।

এমএ/এএল