জাফর ইকবালের ফেরার অপেক্ষায় শাবি

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮ | ৯ আশ্বিন ১৪২৫

জাফর ইকবালের ফেরার অপেক্ষায় শাবি

শাবি প্রতিনিধি ৭:১৬ পূর্বাহ্ণ, মার্চ ১৩, ২০১৮

জাফর ইকবালের ফেরার অপেক্ষায় শাবি

অধ্যাপক ড. মুহম্মদ জাফর ইকবালের জন্য অপেক্ষার প্রহর গুনছেন শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। তাদের প্রত্যাশা তিনি সুস্থ হয়ে অতি শীঘ্রই ক্যাম্পাসে ফিরে আগের মতোই বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক ও গবেষণাকার্যে নিয়োজিত থাকবেন।

শিক্ষার্থীরা জানান, তিনি শাবি তথা দেশের সম্পদ। শাবিকে বিশ্বের দরবারে তুলে ধরতে তাঁর অবদান অনস্বীকার্য।  তার হাত ধরেই উদ্ভাবন, গবেষণা ও সাফল্যে শাবি দেশের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির ক্ষেত্রে অবদান রাখছে।  তিনি ক্যাম্পাসে না থাকায় শিক্ষার স্বাভাবিক কার্যক্রম ব্যাহত হচ্ছে এবং এক ধরণের শূন্যতা বিরাজ করছে বলে অভিমত তাদের।

কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং (সিএসই) বিভাগের শিক্ষার্থী অনিক বলেন, স্যার আমাদের মোট ৪ টি কোর্স পড়িয়েছেন।  স্যারের পড়ানোর ধাঁচ অন্যান্য শিক্ষকদের তুলনায় সম্পূর্ণ ভিন্ন। স্যার না থাকায় এক ধরণের শূন্যতা অনুভব করছি। তিনি যেন দ্রুত আমাদের মাঝে ফিরে আসেন এ কামনা করি।

ড. জাফর ইকবাল সিএসই বা ইইই বিভাগের একাডেমিক কার্যক্রমে সরাসরি সম্পৃক্ত থাকলেও অন্যান্য বিভাগের শিক্ষার্থীদের কাছেও তিনি গুরুত্বপূর্ণ।  নৃবিজ্ঞান বিভাগের ৩য় বর্ষের শিক্ষার্থী আব্দুল্লাহ আল সুমন তাঁর অভিমত ব্যক্ত করে বলেন, ‘স্যার সায়েন্স ফ্যাকাল্টির ক্লাস নিলেও অনেক ক্ষেত্রে সবার জন্য উম্মুক্ত।  বিভিন্ন আলোচনা সভা ও সেমিনারে তিনি যে কথা বলতেন তা আমাদের জন্য অনুপ্রেরণামূলক।  আমাদের কাছে মনে হচ্ছে সবই আছে, কিন্তু একটি জিনিসের অভাব পরিলক্ষিত হচ্ছে।  তিনি সুস্থ হয়ে আবার ফিরে এসে আগের মতোই তাঁর সকল কার্যক্রম চালিয়ে যাবেন এ প্রত্যাশা করি।’

তবে ক্যাম্পাসে ড. জাফর ইকবালের উপস্থিতি শিক্ষার্থীদের জন্য আত্মবিশ্বাসের ব্যাপার উল্লেখ করে  সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের ভারপ্রাপ্ত সমন্বয়ক রিফাত হায়দার বলেন, ‘ক্যাম্পাস গড়ে উঠার পিছনে তাঁর অবদান অনেক। স্যার এখানে আছেন বলেই অনেকে পড়তে আসেন। স্যার না থাকাটা আমাদের জন্য খুবই ক্ষতিকর।’

কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মো. সাইফুল ইসলাম পরিবর্তন ডটকমকে বলেন, ‘আমরা স্যারের অপেক্ষায় আছি।  স্যার বড় ধরণের দুর্ঘটনার হাত থেকে রক্ষা পেয়ে আমাদের মাঝে আবার ফিরছেন।  স্যারকে বরণ করে নিতে আমাদের ছোট-খাট প্ল্যান রয়েছে।’

এ বিষয়ে ড. জাফর ইকবালের ব্যক্তিগত সহকারী জয়নাল আবেদীন জানান, স্যার ১৪ মার্চ বিকেলে বিমানের একটি ফ্লাইটে ক্যাম্পাসে আসবেন।  তবে সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালের (সিএমএইচ) কনসালট্যান্ট সার্জন মেজর জেনারেল মুন্সী মুজিবুর রহমান জানান, ড. জাফর ইকবালের শারীরিক অবস্থার অনেকটা উন্নতি হয়েছে। তিনি  নিয়মিত খাবার খাচ্ছেন ও বিশ্রাম নিচ্ছেন। দু-এক দিনের মধ্যে তার সেলাই কাটা হবে। তিনি জানিয়েছেন, সেলাই কাটার পর তিনি কর্মস্থল শাবিতে ফিরবেন।

প্রসঙ্গত, গত ৩ মার্চ শনিবার বিকেলে বিশ্ববিদ্যালয়ের ইইই বিভাগের জাতীয় পর্যায়ের একটি উৎসব চলাকালে ফয়জুল হাসান নামের এক যুবক তাকে ছুরিকাঘাতের মাধ্যমে হত্যাচেষ্টা চালায়। পরে তাৎক্ষণিক সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে অস্ত্রোপচারের পর ওই রাতে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে তাকে ঢাকায় সিএমএইচে আনা হয়।

এমএ/আরজি