বিশ্বের সবচেয়ে দামী ১০ বদলি ফুটবলার

ঢাকা, বুধবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৯ | ২৯ কার্তিক ১৪২৬

বিশ্বের সবচেয়ে দামী ১০ বদলি ফুটবলার

পরিবর্তন ডেস্ক ১০:১৬ পূর্বাহ্ণ, নভেম্বর ০৯, ২০১৯

বিশ্বের সবচেয়ে দামী ১০ বদলি ফুটবলার

বিশ্ব বাজারে তারকা ফুটবলারদের দাম এখন আকাশচুম্বি। যত টাকাই লাগুক, পছন্দের খেলোয়াড় কিনতে কোনো রকম কার্পণ্য করে না ইউরোপের বড় বড় ক্লাবগুলো। কিন্তু চড়া দামে কিনলেও সবাই দাম অনুযায়ী পারফর্ম করতে পারেন না। নতুন ক্লাবে নিজেকে মেলে ধরতে না পারায় আকাশচুম্বি দামের খেলোয়াড়ও নিয়মিত একাদশের জায়গা হারিয়ে ঠাই পাচ্ছেন বদলি তালিকায়। এমনকি শত মিলিয়ন ইউরো দামী খেলোয়াড়কেও ম্যাচের পর ম্যাচ কাটাতে হচ্ছে রিজার্ভ বেঞ্চ গরম করে।

বর্তমান মৌসুমে যেসব আকাশচুম্বি চুক্তির খেলোয়াড় পারফর্ম করতে না পেরে ‘রিজার্ভ বেঞ্চ’ বা ‘বদলি খেলোয়াড়’ বনে গেছেন, গবেষণা চালিয়ে তাদের একটা তালিকা করেছে স্পেনের জনপ্রিয় ক্রীড়া দৈনিক মার্কা। তালিকা থেকে বিশ্বের সবচেয়ে দামী ১০ জন বদলি খেলোয়াড়ের নামও প্রকাশ করেছে পত্রিকাটি। পরিবর্তন পাঠকদের জন্য সবচেয়ে দামী সেই ১০ জন বদলি খেলোয়াড়ের বিবরণ তুলে ধরা হলো এখানে।

১. নম্বরে উসমানে ডেম্বেলে (বার্সেলোনা), ১২৫ মিলিয়ন ইউরো

গত মৌসুমে ২৮৫ মিলিয়ন ইউরো দামী দুই খেলোয়াড়কে রিজার্ভ বেঞ্চে বসিয়ে রাখার অবিশ্বাস্য বিলাসিতা দেখানোর নজির গড়েছে বার্সেলোনা। কাতালন ক্লাবটি একই সঙ্গে রিজার্ভ বেঞ্চে বসিয়ে রাখে ১৬০ মিলিয়ন ইউরো ফিলিপে কুতিনহো ও ১২৫ মিলিয়ন ইউরোর উসমানে ডেম্বেলেকে। দুজনের মধ্যে ফিলিপে কুতিনহোকে এবার বায়ার্ন মিউনিখের কাছে ধারে বিক্রি করে দিয়েছে বার্সা। জার্মান ক্লাবটিতে গিয়ে ব্রাজিলিয়ান তারকা নিজের জায়গাটা পাকা করে ফেলেছেন। নিয়মিতই খেলছেন শুরুর একাদশে।

কিন্তু বার্সেলোনাতেই থেকে যাওয়া ডেম্বেলের কোনো উন্নতি হয়নি। বরং তারই স্বদেশি আতোইন গ্রিজমান বার্সেলোনায় যোগ দেওয়ায় ডেম্বেলের জায়গাটা বদলি তালিকায় আরও পাকা হয়েছে। মার্কার হিসাব বলছে, বার্সেলোনার এই ফরাসি তরুণই বর্তমানে বিশ্বের সবচেয়ে দামী বদলি খেলোয়াড়।

২. হামেশ রদ্রিগেজ (রিয়াল মাদ্রিদ), ৭৫ মিলিয়ন ইউরো

২০১৪ ব্রাজিল বিশ্বকাপে কলম্বিয়া জাতীয় দলের হয়ে অবিশ্বাস্য পারফর্ম করেন হামেশ রদ্রিগেজ। বিশ্বকাপ মঞ্চের সেই আগুন জ্বলা পারফরম্যান্সের সুবাদে টুর্নামেন্টের পরই কলম্বিয়ান এই তারকাকে মোনাকোর কাছ থেকে নগদ ৭৫ মিলিয়ন ইউরো দিয়ে কিনে ফেলে রিয়াল। কিন্তু কলম্বিয়ান তারকা রিয়ালে নিজেকে মেলে ধরতে পারেননি। বরং কোচ জিনেদিন জিদানের সঙ্গে তিক্ততার কারণে বনে যান রিজার্ভ বেঞ্চের খেলোয়াড়।

মাঝে তো দুটি মৌসুম তিনি বায়ার্ন মিউনিখেই ধারে খেলে এলেন। তবে ধার চুক্তি শেষে রিয়াল আবার দলে ফিরিয়ে এনেছে তাকে। কিন্তু হামেশ রদ্রিগেজ আপন ঘরে ফিরে আবার সেই অফফর্মের শিকার। ফল, বাজে ফর্ম আর কোচ জিদানের সঙ্গে মনোমালিন্যের কারণে আবারও তিনি রিয়ালের বদলি তালিকায় পাকা হয়ে গেছেন।

৩. রিয়াদ মাহরেজ (ম্যানচেস্টার সিটি), ৬৭ মিলিয়ন ইউরো

ফ্রান্সে জন্ম নেওয়া আলজেরিয়ান এই ফুটবলার লেস্টার সিটিতে থাকার সময় অবিশ্বাস্য ফর্মে ছিলেন। তার সেই ফর্মে মুগ্ধ হয়েই ২০১৮ সালে তাকে লেস্টার থেকে পাক্কা ৬৭ মিলিয়ন ইউরো দিয়ে কিনে এনেছে ম্যানচেস্টার সিটি। কিন্তু ম্যান সিটিতে এসে হঠাৎই কী যেন হয়ে গেছে তার! ম্যান সিটির শুরুর একাদশে নিজের জায়গাটা পাকা করতে পারেননি। সার্জিও আগুয়েরো, গ্যাব্রিয়েল জেসুস, বার্নার্ডো সিলভাদের ভিড়ে তার জায়গা হয়েছে বদলি তালিকায়।

৪. হুয়াও কেনসেলো (ম্যানচেস্টার সিটি), ৬৫ মিলিয়ন ইউরো

পর্তুগিজ এই ডিফেন্ডার/উইঙ্গারের গল্পটাও ঠিক তার ক্লাব সতীর্থ রিয়াদ মাহরেজের মতোই। জুভেন্টাসে গত মৌসুমটি দুর্দান্ত কেটেছে তার। তাই দলের শক্তি বৃদ্ধির আশায় তাকে ৬৫ মিলিয়ন ইউরো দিয়ে কিনে এনেছেন ম্যান সিটির স্প্যানিশ কোচ পেপ গার্দিওলা। কিন্তু ম্যান সিটিতে এসে কেনসেলো নিজেকে খুঁজে পাচ্ছেন না। কোচের আস্থা অর্জন করতে না পারায় পাকা হয়েছে রিজার্ভ বেঞ্চের জায়গা।

৫. অ্যান্থনিও মার্শাল (ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড), ৬০ মিলিয়ন ইউরো

ফরাসি ক্লাব মোনাকো থেকে ২০১৫ সালে ফরাসি এই ফরোয়ার্ডকে ৬০ মিলিয়ন ইউরে দিয়ে কিনেছে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড। শুরুতে ওল্ড ট্রাফোর্ডে মোটামুটি ভালোই করছিলেন। কিন্তু সময়ের স্রোতে নিজের ফর্মটা হারিয়ে ফেলেছেন। এ মৌসুমে হারিয়ে ফেলেছেন শুরুর একাদশের জায়গাও। ফল, এবার ম্যাচের পর ম্যাচ তাকে কাটাচ্ছে হচ্ছে রিজার্ভ বেঞ্চে।

৬. লুকা জভিচ (রিয়াল মাদ্রিদ), ৬০ মিলিয়ন ইউরো

জার্মান ক্লাব এন্ট্রাচট ফ্রাঙ্কফুর্টের হয়ে গত মৌসুমটি কি অবিশ্বাস্যই না কাটিয়েছেন লুকা জভিচ। উড়ন্ত পারফরম্যান্সের কারণে সার্বিয়ান এই তরুণকে কেনার জন্য ইউরোপের নামীদামী ক্লাবগুলো রীতিমতো ঝাপিয়ে পড়েছিল। শেষ পর্যন্ত তাকে ৬০ মিলিয়ন ইউরো দিয়ে তাকে দলে ভিড়িয়েছে রিয়াল মাদ্রিদ। কিন্তু বার্নাব্যুতে গত মৌসুমের সেই লুকা জভিচকে খুঁজেই পাওয়া যাচ্ছে না। যেন নিজের ছায়া হয়ে গেছেন! ফল, তার জায়গাটা হয়ে গেছে রিয়ালের বদলি তালিকা।

৭. নবি কেইতা (লিভারপুল), ৬০ মিলিয়ন ইউরো

জার্মান ক্লাব লেইপজিংয়ে নিজের সময়টা দুর্দান্ত কাটিয়েছেন গিনিয়ান এই মিডফিল্ডার। উড়ন্ত পারফরম্যান্সের প্রেমে পড়েই তাকে ২০১৮ সালে ৬০ মিলিয়ন ইউরো দিয়ে কিনে এনেছে লিভারপুল। গত মৌসুমে লিভারপুলকে উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শিরোপা জেতাতে বিশেষ ভূমিকাও রেখেছেন ২৪ বছর বয়সী নবি কেইতা। কিন্তু ফর্ম হারিয়ে এ মৌসুমে লিভারপুলের রিজার্ভ বেঞ্চই হয়ে গেছে তার স্থায়ী নিবাস! মৌসুমে এ পর্যন্ত মাত্র দুটি ম্যাচে মাঠে নেমেছেন বদলি হিসেবে!

৮. এদের মিলিতাও (রিয়াল মাদ্রিদ), ৬০ মিলিয়ন ইউরো)

এই ব্রাজিলিয়ান তরুণের গল্পটাও তার রিয়াল সতীর্থ লুকা জভিচের মতোই। পর্তুগিজ ক্লাব এফসি পোর্তোর হয়ে গত মৌসুমটি দুর্দান্ত কাটিয়েছেন। এবার তাই তাকে নগদ ৬০ মিলিয়ন ইউরো দিয়ে কিনে এনেছে রিয়াল। কিন্তু ব্রাজিলের ২১ বছরের তরুণ কোচ জিদানের আস্থা অর্জন করতে পারেননি। ফল, স্বপ্নের মালা গেথে বার্নাব্যুতে এলেও তিনি বনে গেছেন রিয়ালের বদলি তালিকার খেলোয়াড়!

৯. ফারলান মেন্ডি (রিয়াল মাদ্রিদ), ৪৮ মিলিয়ন ইউরো

রিয়াল মাদ্রিদের এই নতুন সদস্যের পরিণতিও তার দুই সতীর্থ লুকা জভিচ এবং এদের মিলিতাওয়ের মতো। ফরাসি ক্লাব অলিম্পিক লিঁও’তে গত মৌসুমটি অবিশ্বাস্য কাটিয়েছেন ফরাসি ডিফেন্ডার। স্বদেশির প্রতিভা আর পারফরম্যান্সে মুগ্ধ হয়েই ফারলান মেন্ডিকে ৪৮ মিলিয়ন ইউরো দিয়ে কিনেছেন জিদান। কিন্তু রিয়ালে এসেই চোটে পড়েন ফ্রান্সের ২৪ বছর বয়সী ডফেন্ডার। চোট কাটিয়ে ফিরলেও বার্নাব্যুতে নিজেকে মেলে ধরতে পারছেন না। ফল, রিয়ালের রিজার্ভ বেঞ্চে বসেই তাকে কাটাতে হচ্ছে ম্যাচের পর ম্যাচ।

১০. মেসুত ওজিল (আর্সেনাল), ৪৭ মিলিয়ন ইউরো

জার্মান জাতীয় দল এবং রিয়াল মাদ্রিদের হয়ে কী সময়টাই না কাটিয়েছেন! তখন তাকে বিশ্বের অন্যতম সেরা মিডফিল্ডার হিসেবেই বিবেচনা করা হতো তাকে। ফল, ২০১৩ সালে অনেক বড় আশা নিয়েই তাকে ৪৭ মিলিয়ন ইউরোয় কিনে নেয় আর্সেনাল। ইংলিশ ক্লাবটিতে যোগ দিয়েই বনে যান দলের নেতা। শুরুতে আর্সেনালের হয়েও সময়টা ভালোই গেছে তার। কিন্তু বছর দুই পর থেকেই ওজিলের পায়ের ভাটার শুরু। বাজে ফর্মের সেই রশিটা আর উল্টাতে পারেননি। বরং পেছন হেঁটে হেঁটে এক সময়ের দলের ‘নেতা’ ওজিল হয়ে গেছেন আর্সেনালের রিজার্ভ বেঞ্চের খেলোয়াড়! হায়রে নিয়তি!

কেআর

 

ফুটবল: আরও পড়ুন

আরও