মেসিকে ছুঁলেন, ডি স্টেফানোকে টপকালেন বেনজেমা

ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৯ | ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

মেসিকে ছুঁলেন, ডি স্টেফানোকে টপকালেন বেনজেমা

পরিবর্তন ডেস্ক ৩:৩৯ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ০৭, ২০১৯

মেসিকে ছুঁলেন, ডি স্টেফানোকে টপকালেন বেনজেমা

বুধবার রাতে বার্নাব্যুতে গালাতাসারাইয়ের বিপক্ষে রিয়ালের ৬-০ জয়ের বড় নায়ক ছিলেন রদ্রিগো গোয়েস। ব্রাজিলিয়ান তরুণ দলকে বিশাল জয় এনে দিতে করেছেন ‘পারফেক্ট হ্যাটট্রিক’। গড়েছেন একাধিক রেকর্ড। স্বাভাবিকভাবেই রদ্রিগোকে নিয়েই আলোচনাটা বেশি। তবে তার সতীর্থ করিম বেনজেমাও কম যাননি। জোড়া গোল করে তিনিও গড়েছেন দুদুটো কীর্তি।

প্রথমত লিওনেল মেসির একটা রেকর্ডে ভাগ বসিয়েছেন। দ্বিতীয়ত, গোলের একটা পরিসংখ্যানে রিয়ালেরই আর্জেন্টাইন-স্প্যানিশ কিংবদন্তি আলফ্রেডো ডি স্টেফানোকে পেছনে ফেলেছেন। এই তো কদিন আগেই অনন্য এক রেকর্ড গড়েন মেসি। উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স টানা ১৫ মৌসুমে গোল করার রেকর্ড।

কাল মেসির সেই রেকর্ডটিতে ভাগ বসালেন বেনজেমা। ইতিহাসের দ্বিতীয় ফুটবলার হিসেবে গড়লেন চ্যাম্পিয়ন্স টানা ১৫ মৌসুমে গোল করার কীর্তি। প্রথম গোলটি করার মধ্যদিয়েই মেসির কীর্তিটায় ভাগ বসান বেনজেমা। একই সঙ্গে ফরাসি তারকা ভাগ বসান চ্যাম্পিয়ন্স লিগে রিয়ালের হয়ে করা আলফ্রেডো ডি স্টেফানোর গোল সংখ্যাও।

রিয়ালের হয়ে চ্যাম্পিয়ন্স লিগে আলফ্রেডো ডি স্টেফানো গোল করেছেন ৪৯টি। প্রথম গোলটিতে বেনজেমারও চ্যাম্পিয়ন্স লিগ গোল সংখ্যা হয় ৪৯টি। এরপর দ্বিতীয় গোলটি করে কিংবদন্তি ডি স্টেফানোকে টপকে গেছেন বেনজেমা। মাদ্রিদ জায়ান্টদের হয়ে চ্যাম্পিয়ন্স লিগে তার গোল সংখ্যা এখন ৫০টি। তবে ডি স্টেফানো ৪৯ গোল করেছিলেন মাত্র ৫৮ ম্যাচে। বেনজেমা সেখানে ৫০ গোলের মাইলফলক ছুঁলেন ৯৭ ম্যাচে।

সব মিলে চ্যাম্পিয়ন্স লিগে বেনজেমার মোট গোল সংখ্যা ৬২টি। যা চ্যাম্পিয়ন্স লিগের সর্বোচ্চ গোলদাতাদের তালিকায় বেনজেমাকে পৌঁছে দিয়েছে চতুর্থ স্থানে। তার উপরে কেবল রিয়াল কিংবদন্তি রাউল গঞ্জালেস (৭১টি), লিওনেল মেসি (১১৩) ও ক্রিস্তিয়ানো রোনালদো (১২৯)। মানে সর্বোচ্চ গোলদাতাদের মধ্যে বেনজেমার উপরে থাকা ৩ জনের দুজনই তার ক্লাব রিয়ালের খেলোয়াড়, রাউল ও রোনালদো। যার অর্থ, রিয়ালের হয়ে চ্যাম্পিয়ন্স লিগে সর্বোচ্চ গোলদাতাদের তালিকায় তিন নম্বরে উঠে গেছেন বেনজেমা।

উল্লেখ্য, রিয়ালের বাইরে চ্যাম্পিয়ন্স লিগে বেনজেমা বাকি ১২টি গোল করেছেন স্বদেশি ক্লাব অলিম্পিক লিঁওর হয়ে।

কেআর 

 

ফুটবল: আরও পড়ুন

আরও