এমবাপেকে নিয়ে আর ভুল করবে না রিয়াল

ঢাকা, বুধবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৯ | ২৯ কার্তিক ১৪২৬

এমবাপেকে নিয়ে আর ভুল করবে না রিয়াল

পরিবর্তন ডেস্ক ৩:৫৮ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ০২, ২০১৯

এমবাপেকে নিয়ে আর ভুল করবে না রিয়াল

মানুষ কখনো কখনো এমন বড় ভুল করে বসে, এক ভুলেই চরম শিক্ষা নয়। ভুল করেও দ্বিতীয় বার সেই ভুল করার সাহস পায় না। দেখাতে চায় না। কিলিয়ান এমবাপেকে নিয়েও রিয়াল মাদ্রিদের সেই শিক্ষাই হয়েছে। সুযোগ পেয়েও ফরাসি তরুণের সঙ্গে চুক্তি না করার যে ভুলটা একবার করেছে রিয়াল, তার আক্ষেপ-আফসোসেই পুড়ছে গত তিন বছর ধরে।

দ্বিতীয় বার আর সেই ভুল করতে রাজি নয় মাদ্রিদ জায়ান্টরা। যে করেই হোক, আগামী মৌসুমেই পিএসজির ফরাসি তারকাকে দলে ভেড়াতে চায় রিয়াল। এমবাপেকে কেনার জন্য আলাদা তহবিলও গঠন করেছে মাদ্রিদ জায়ান্টরা।

যে তহবিলে একটু একটু করে টাকাও জমা করা শুরু করেছে। গণমাধ্যমের খবর, ৩০০ মিলিয়ন ইউরো দিয়ে হলেও আগামী গ্রীষ্মে এমবাপেকে দলে ভেড়াবে রিয়াল। তার আগেই তাই ‘এমবাপে তহবিলে’ ৩০০ মিলিয়ন ইউরো জমা করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

২০১৭ সালের আগস্টে মোনাকো ছেড়ে পিএসজিতে যোগ দিয়েছেন ফরাসি বিস্ময়বালক। তবে পিএসজির আগে এমবাপেকে কেনার কথা ছিল রিয়ালেরই। এমবাপের প্রতিভায় মুগ্ধ হয়ে তাকে কেনার জন্য আর্জেন্টাইন ফুটবল ঈশ্বর ডিয়েগো ম্যারাডোনা তাড়া দিয়েছিলেন রিয়াল সভাপতি ফ্লোরেন্তিনো পেরেজকে। রিয়াল সভাপতি নিজেও এমবাপের প্রতিভায় মুগ্ধ ছিলেন।

দুইয়ে মিলে ২০১৭ সালে রিয়ালই এমবাপেকে কেনার দৌড়ে এগিয়ে ছিল। সভাপতি পেরেজ এই বিস্ময়কর প্রতিভাকে কেনার জন্য সব দায়িত্ব দিয়েছিলেন কোচ জিনেদিন জিদানকে। জিদান যেহেতু একজন ফরাসি, তাই তার ওপরই মূল দায়িত্বটা দিয়েছিলেন সভাপতি পেরেজ। জিদানও স্বদেশি তরুণের সঙ্গে চুক্তির দায়িত্বটা নিয়েছিলেন। এবং এমবাপের জন্য ১৮০ মিলিয়ন ইউরোর প্রস্তাবও দিয়েছিল রিয়াল।

কিন্তু শেষ পর্যন্ত কী কারণে যেন রিয়াল চুক্তিটা তখন করতে পারেনি। এমবাপে রিয়ালের পরিবর্তে নিজ দেশের ক্লাব পিএসজিকেই বেছে নেন। রিয়ালের প্রস্তাব করা ১৮০ মিলিয়ন ইউরোতেই যোগ দেন পিএসজিতে।

এমবাপে পিএসজির সঙ্গে চুক্তিটা করে ফেলার পর রিয়াল বুঝতে পারে কী ভুল তারা করেছে। সেই ভুলের জন্য কোচ জিদানকে কাঠগড়াও তোলা হয়। কিন্তু একজনকে কাঠগড়ায় তুললেই ভুলের খেসারত হয় না। আফসোস মেটে না। গত তিন বছর ধরেই তাই আফসোসে পুড়ছে রিয়াল।

দিনে দিনে বরং রিয়ালের আফসোসটা আরও বড় হয়েছে। কারণ, ক্যারিয়ারের শুরুতেই অমিয় প্রতিভার অবিশ্বাস্য ঝলকানি দেখানো এমবাপে এরই মধ্যে বিশ্ব ফুটবল আকাশের জ্বলজ্বলে তারা হয়ে উঠেছেন। গোল করায় টেক্কা দিচ্ছেন মেসি-রোনালদোকে।
গত মৌসুমে ইউরোপের শীর্ষ ৫টি লিগের মধ্যে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৩৪টি গোল করেছিলেন এমবাপে। শেষ ম্যাচ পর্যন্তও ইউরোপিয়ান গোল্ডেন বুটের প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছেন মেসির সঙ্গে। এবার মেসি-রোনালদোকে ছাপিয়ে তিনিই গোল করেছেন বেশি। লিগে ৫টি, সব মিলে ১০ ম্যাচে ৯টি।

এমবাপে পিএসজির হয়ে মাঠে নেমেই করছেন গোল। অন্যদিকে মাঠে নেমে প্রতি ম্যাচেই গোলের জন্য হাপিত্যেশ করছে রিয়াল। বর্তমান ফরোয়ার্ডদের গোল-খরা রিয়ালের এমবাপে ক্ষুধাটা বাড়িয়ে দিয়েছে। টাকা যতই লাগুক, আগামী মৌসুমেই এই ক্ষুধা নিবারণ করতে চায় রিয়াল। সভাপতি পেরেজ এবং কোচ জিদান, দুজনেই এমবাপেকে কিনতে এক পায়ে খাড়া।

পিএসজি ছেড়ে রিয়ালে যেতে এক পায়ে খাড়া এমবাপেও। কারণ, সেই ছোট বেলা থেকেই এমবাপের স্বপ্নের ক্লাব রিয়াল। পেশাদার ফুটবলারের হাতেখড়ির পর থেকেই হৃদয় কোণে স্বপ্নের মালা গেঁথে রেখেছেন, একদিন খেলবেন রিয়ালের বিশ্বখ্যাত সাদা জার্সি পরে।

পিএসজির সঙ্গে রিয়ালের সর্ম্পকটাও মধুর। বিশেষ করে পিএসজির কাতারি সভাপতি নাসের আল খেলাইফির সঙ্গে রিয়াল সভাপতি পেরেজের বন্ধুত্বটা গভীর। তাদের গভীর বন্ধুত্বের প্রমাণও গত কয়েক মৌসুমে মিলেছে। মিলেছে গত গ্রীষ্মের দলবদলেও। উচিতের চেয়েও কম দামে গোলরক্ষক কেইলর নাভাসকে পিএসজির কাছে বেচেছে রিয়াল। বিনিময়ে পিএসজির তৃতীয় গোলরক্ষক আলফোনসে আরেওলাকে এক মৌসুমের জন্য ধারে কিনেছে রিয়াল। রিয়াল চাইলে আরও এক মৌসুম আরেওলাকে খেলাতে পারবে। ধার চুক্তির শর্তে সেটাই জুড়ে দেওয়া আছে।

রিয়াল এসব কিছুই করেছে এমবাপেকে কেনার কথা মাথায় রেখে, পিএসজির সঙ্গে বন্ধুত্বের সর্ম্পকটা ধরে রাখতে। পিএসজির ব্রাজিলিয়ান তারকা নেইমারের দিকেও আগ্রহ ছিল রিয়ালের। কিন্তু এই মুহূর্তে নেইমারের ভাবনা বাদ দিয়ে রিয়ালের আগ্রহের কেন্দ্রবিন্দুতে শুধুই এমবাপে। যে করেই হোক আগামী গ্রীষ্মে তাকে কেনার পরিকল্পনা পাকা করে ফেলেছে রিয়াল। শুরু করে দিয়েছে টাকা সংগ্রহের প্রস্তুতিও। সিদ্ধান্ত পাক্কা, তিন বছর আগে করা ভুল দ্বিতীয় বার আর করবে না।

কেআর

 

 

ফুটবল: আরও পড়ুন

আরও