সেই লালানায় হার রক্ষা লিভারপুলের

ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৯ | ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

সেই লালানায় হার রক্ষা লিভারপুলের

পরিবর্তন ডেস্ক ৯:২৮ পূর্বাহ্ণ, অক্টোবর ২১, ২০১৯

সেই লালানায় হার রক্ষা লিভারপুলের

ম্যাচের বড় নায়ক কে, মার্কাস রাশফোর্ড নাকি অ্যাডাম লালানা? কাল ওল্ড ট্রাফোর্ডে মুখোমুখি হয়েছিল ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ও লিভারপুল। ইতিহাস, ঐতিহ্যের মাপকাঠিতে ইংলিশ ফুটবলের সবচেয়ে বড় ম্যাচ। তো কাল ইতিহাস-ঐতিহ্য মেনে দুই জায়ান্টের দ্বৈরথটাও শেষ হয়েছে ১-১ সমতা এঁকে। আর ম্যাচ শেষে ওই প্রশ্নটাই ভাসছে বাতাসে, কে বড় নায়ক, রাশফোর্ড নাকি লালানা?

খুব সহজ ভাষায় বলতে গেলে, উত্তরটা হবে দুজনই। টগবগিয়ে ছুটে চলা লিভারপুলের রাশ টেনে ধরে রাশফোর্ড নিজ ক্লাব ইউনাইটেডকে পাইয়ে দিয়েছেন ড্র। এই অর্থে রাশফোর্ডই বড় নায়ক। অন্যদিকে ম্যাচের শেষ দিকে গোল করে লিভারপুলের হার বাঁচিয়েছেন অ্যাডাম লালানা।

সেই লালানা, যিনি ক্লাব লিভারপুলের জার্সিতে সর্বশেষ গোল করেছিলেন আড়াই বছর আগে, ২০১৭ সালের মে মাসে! দীর্ঘদিন পর গোল করে সেই লালানা ধরে রেখেছেন অল-রেডদের অপরাজিত দৌড়ের লাগাম। সুতরাং অ্যাডাম লালানাও বড় নায়ক।

সাম্প্রতিক পারফরম্যান্সের নিত্তিতে ওল্ড ট্রাফোর্ডে সফরকারী লিভারপুলই ছিল ফেভারিট। লিগে প্রথম ৮ ম্যাচেই জিতেছে তারা। সর্বোচ্চ ২৪ পয়েন্ট নিয়ে তালিকার শীর্ষে তারা। অন্যদিকে আগের ৮ ম্যাচে ২ জয় ৪ হারে ইউনাইটেডের পয়েন্ট মাত্র ৯। এই তথ্যেই ম্যাচে লিভারপুলের ফেভারিটত্ব স্পষ্ট। কিন্তু ওই ইতিহাস, ঐতিহ্য। যে বিচারে দুই দলই সমানে সমান।

সাম্প্রতিক পারফরম্যান্সের ধারাবাহিকতাকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে কাল ওল্ড ট্রাফোর্ডে ইতিহাস-ঐতিহ্যের বিচারই যেন চলল। যে ম্যাচে আন্ডারডগ-ফেভারিট বলে কিছু থাকল না। দুই দলই লড়ল সমানতালে। ম্যাচের শেষ পরিণতিটাও সমতার সূত্রেই অঙ্কিত।

‘দুই লাল’-এর লড়াইয়ের শুরুতে দাপট ছিল মোহাম্মেদ সালাহবিহীন লিভারপুলেরই। কিন্তু সময়ের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে স্বাগতিক ইউনাইটেডও দ্রুত ফিরে আসে খেলায়। খেলায় ফেরার সূত্র ধরে ৩৬ মিনিটে গোলও পেয়ে যায় রেড ডেভিলরা। দুর্দান্ত এক গোল করে ইউনাইটেডকে এগিয়ে দেন মার্কাস রাশফোর্ড।

তার এই গোলে জয়ও দেখছিল ইউনাইটেড। কিন্তু শেষ পর্যন্ত জয় তারা পায়নি। পেতে দেননি লালানা। আড়াই বছর পর গোল করে তিনি হার বাঁচিয়েছেন লিভারপুলের।

রাশফোর্ড-লালানার পাশাপাশি ম্যাচটিতে আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে ছিল আরও একটি বিষয়। ভিএআর (ভিডিও অ্যাসিস্ট্যান্ট রেফারি, সংক্ষেপে রিভিউ) বিতর্ক। ম্যাচের ৪৩ মিনিটেই রাশফোর্ডের গোলটি শোধ করেছিলেন লিভারপুলের সেনেগালিজ উইঙ্গার সাদিও মানে। কিন্তু তার গোলটি বাতিল করে দিয়েছে ভিএআর। ভিডিওতে দেখা গেছে, নিজের নিয়ন্ত্রণে নেওয়ার আগে বলে হাতের ছোঁয়া লেগেছিল সাদিও মানের।

এর আগে রাশফোর্ডের গোলের সঙ্গেও মিশে আছে ভিএআর বিতর্ক। রাশফোর্টড গোলটি করার আগের মিনিটেই ফাউল করেছিলেন তার এক সতীর্থ। কিন্তু ভিএআর তা আমলে নেয়নি। ওঠা ফাউল ধরা হলে রাশফোর্ড গোলটা করতে পারতেন না।

যাই হোক, লিভারপুলের এই ড্রয়ে বড় লাভটা হয়েছে ম্যানচেস্টার সিটির। শীর্ষে থাকা লিভারপুলের সঙ্গে তাদের পয়েন্টের ব্যবধানটা এখন নেমে এসেছে ৬-এ। ৯ ম্যাচে ২৫ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে লিভারপুল। দুইয়ে থাকা ম্যান সিটির পয়েন্ট সমান ১৯। পরশু যারা ক্রিস্টাল প্যালেসের বিপক্ষে জিতেছে ২-০ গোলে।

অন্যদিকে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের জন্য চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী লিভারপুলের সঙ্গে ড্র করার তৃপ্তিটাই যা। নয়তো প্রাপ্ত এক পয়েন্টে পয়েন্ট তালিকায় তাদের উন্নতি কিছু হয়নি। ৯ ম্যাচে ১০ পয়েন্ট নিয়ে পয়েন্ট তালিকার সেই ১৩ নম্বরেই রয়েছে তারা।

কেআর

 

ফুটবল: আরও পড়ুন

আরও