দুই ‘বদলি লুকাস’-এ রক্ষা আর্জেন্টিনার

ঢাকা, বুধবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৯ | ২৯ কার্তিক ১৪২৬

দুই ‘বদলি লুকাস’-এ রক্ষা আর্জেন্টিনার

পরিবর্তন ডেস্ক ৯:৫৯ পূর্বাহ্ণ, অক্টোবর ১০, ২০১৯

দুই ‘বদলি লুকাস’-এ রক্ষা আর্জেন্টিনার

ম্যাচের ২২ মিনিটের মধ্যেই ২-০ গোলে এগিয়ে যায় দুর্দান্ত জার্মানি। ডর্টমুন্ডের সিগনা্ল ইদুনা পার্কে স্বাগতিক জার্মানি সফরকারী আর্জেন্টিনাকে গোল বন্যায় ভাসাতে যাচ্ছে বলেই মনে হচ্ছিল তখন। কিন্তু লড়াকু মানসিকতার স্বাক্ষর রেখে শুরুর সেই আভাস মিথ্যা করে দিয়েছে তারকাহীন আর্জেন্টিনা। শুধু জার্মানির গোল বন্যাই ঠেকায়নি, শেষ পর্যন্ত আর্জেন্টিনা মাঠ ছেড়ে ২-২ গোলের ড্র নিয়ে।

আলবিসেলেস্তেদের এই মর্যাদা রক্ষার ড্র’য়ের নায়ক দুই ‘লুকাস’। লুকাস আলেরিও ও লুকাস ওকাম্পোস। এই দুজনের শেষ দিকের গোলেই ড্র নিয়ে মাঠ ছাড়তে পেরেছে আর্জেন্টিনা। দুজনেই আবার গোল করেছেন বদলি হিসেবে নেমে। ৬৬ মিনিটে আর্জেন্টিনার হয়ে প্রথম গোলটি করেছেন লুকাস আলেরিও। যেটা জাতীয় দলের হয়ে তার দ্বিতীয় গোল। ক্যারিয়ারের প্রথম আন্তর্জাতিক গোলটি তিনি করেছিলেন ২০১৭ সালে সিঙ্গাপুরের বিপক্ষে।

এই ‍লুকাস আলেরিও’র পাশ থেকেই ৮৫ মিনিটে সমতাসূচক গোলটি করেন লুকাস ওকাম্পোস। স্প্যানিশ ক্লাব সেভিয়ার ২৫ বছর বয়সী উইঙ্গারের এটাই ছিল আর্জেন্টিনা জাতীয় দলের হয়ে অভিষেক ম্যাচ। তাতে বদলি হিসেবে নেমে বনে গেছেন নায়ক। সমতাসূচক গোল করে দেশকে এনে দিয়েছেন জয় সমান ড্র।

যে ড্রটি হয়ে থাকল তারুণ্যের প্রদর্শনীর স্বাক্ষী। চোটের কারণে জার্মানির ১১ জন তারকা খেলোয়াড় দলের বাইরে। ফলে বাধ্য হয়েই জার্মান কোচ জোয়াকিম লো দল গড়েছেন তরুণদের নিয়ে। অথচ লো সেই চোট জর্জর তারুণ্য নির্ভর জার্মানিই ২২ মিনিটের মধ্যে করে ফেলে ২ গোল!

জার্মান তরুণদের দাপটে তখন আর্জেন্টিনা অনেকটাই কোনঠাসা। তবে তাদেরও তো নিজেদের তারুণ্য প্রমাণের ছিল। নিষেধাজ্ঞার কারণে লিওনেল মেসি নেই। চোটের কারণে দলে নেই অন্য দুই অভিজ্ঞ ফরোয়ার্ড সার্জিও আগুয়েরো এবং অ্যাঙ্গেল ডি মারিয়াও। তাদের পরিবর্তে আর্জেন্টিনার কোচ লিওনেল স্কালোনিও ভরসা রাখেন তরুণদের উপর।

স্কালোনি শুরুতে আক্রমণ সাজিয়েছিলেন লাওতারো মার্টিনেজ, পাওলো দিবালা, অ্যাঙ্গেল কোরেয়াদের সমন্বয়ে। কিন্তু তারা কেউিই দলকে গোলের রাস্তা দেখাতে পারেননি। বরং আর্জেন্টিনার এই আক্রমণ ত্রয়ীকে ছায়া বানিয়ে রেখে ম্যাচের শুরু থেকেই মাঠে রাজত্ব করতে থাকে জার্মানির ফরোয়ার্ডরা। একের পর এক আক্রমণ গড়ে কাঁপিয়ে দেয় আর্জেন্টিনার রক্ষণ।

১৫ মিনিটে ৪ বারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়নরা পেয়ে যায় গোলও। বক্সের ভেতরে ঘিরে ধরা আর্জেন্টিনার তিন তিনজন ডিফেন্ডারকে বোকা বানান জিনাব্রি। জটলার ভেতর তেকে দুর্দান্ত এক শটে বায়ার্ন মিউনিখের মিডফিল্ডার বল জড়িয়ে দেন জালে। ৭ মিনিট পর আবার গোল উৎসবে মাতে জার্মানি। এবারের উপলক্ষটি এনে দেন হাভার্টজ। প্রথম গোলদাতা জিনাব্রির পাশ থেকেই গোলটা করেন তিনি।

আর্জেন্টিনার প্রথম গোলদাতা লুকাস আলেরিওও দলের দ্বিতীয় গোলটি বানিয়ে দিয়েছেন। জার্মানির প্রথম গোলদাতা জিনাব্রিও তাই। প্রথম গোল নিজে করেছেন। দ্বিতীয়টি বানিয়ে দিয়েছেন।

ম্যাচে দুই দলের তরুণরা বাজিকরদের ধারণাকে ‘প্রায় সত্য’ বলে প্রমাণ করেছেন। ম্যাচের আগেই বাজিকররা অভিমত জানিয়েছিল, জার্মানি-আর্জেন্টিনার প্রীতি ম্যাচটা ১-১ গোলে ড্র হবে। এই ফলের পক্ষেই বাজির দর ঠিক করা হয়েছিল! বাস্তবেও ম্যাচটা ড্র হলো। স্কোরেই যা একটু পার্থক্য, ১-১ এর পরিবর্তে ২-২!

জার্মান ভিত্তিক ওই বাজিকররা চাইলে জ্যোতিষি পেশায় নাম লেখাতেই পারেন! নাকি?

কেআর

 

ফুটবল: আরও পড়ুন

আরও