সেই ডি মারিয়া সর্বনাশ করলেন রিয়ালের

ঢাকা, রবিবার, ২০ অক্টোবর ২০১৯ | ৪ কার্তিক ১৪২৬

সেই ডি মারিয়া সর্বনাশ করলেন রিয়ালের

পরিবর্তন ডেস্ক ১০:২৪ পূর্বাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১৯, ২০১৯

সেই ডি মারিয়া সর্বনাশ করলেন রিয়ালের

নেইমার, এডিনসন কাভানি, কিলিয়ান এমবাপে নেই তো কি হয়েছে! অ্যাঙ্গেল ডি মারিয়া আছেন না! কাল রাতে রিয়াল মাদ্রিদকে ধসিয়ে দেওয়ার পর পিএসজি শিবির নিশ্চিতভাবেই এখন ডি মারিয়া স্বস্তিতে মজেছে। ডি মারিয়ার জোড়া গোলেই যে পিএসজি নিজেদের মাঠে দৈত্য রিয়াল মাদ্রিদকে উড়িয়ে দিয়েছে ৩-০ গোলে।

উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ম্যাচ। প্রতিপক্ষ বিশ্বসেরা রিয়াল মাদ্রিদ। কিন্তু মহাগুরুত্বপূর্ণ এই ম্যাচটিতে পিএসজিকে মাঠে নামতে হয় আক্রমণের প্রধান তিন অস্ত্র নেইমার, কাভানি, এমবাপেকে ছাড়াই। এই ত্রয়ীর অনুপস্থিতিতে নিজেদের ঘরের মাঠেও আন্ডারডগ ছিল পিএসজিই।

কিন্তু ম্যাচ শুরু হতেই পাল্টে যায় ধারণা। ম্যাচের শুরু থেকেই দৈত্য রিয়ালকে চেপে ধরে পিএসজি। ফরাসি চ্যাম্পিয়নরা ফলও প্রায় দ্রুতই। ডি মারিয়ার জাদুতে ৩৩ মিনিটের মধ্যেই এগিয়ে যায় ২-০ গোলে। পরে থমাস এল মুনিয়েরের গোলে পিএসজি পেয়েছে ৩-০ গোলের বড় জয়।

তবে রিয়ালের মূল সর্বনাশটা করেছেন ডি মারিয়াই। সেই ডি মারিয়া, দীর্ঘ ৪টি মৌসুম রিয়ালে কাটিয়েছেন যিনি। শুধু ডি মারিয়াই নন, কাল রিয়ালকে হতাশা উপহার দিতে পিএসজির হয়ে মাঠে নেমেছিলেন রিয়ালের আরেক ঘরের ছেলে কেইলন নাভাসও।

আস্থা হারিয়ে এই মৌসুমেই গোলরক্ষক কেইলর নাভাসকে পিএসজির কাছে বেচে দিয়েছে রিয়াল। পিএসজির জার্মান কোচ টমাস টাচেল কাল সেই নাভাসকেই শুরুর একাদশে নামিয়ে দেন রিয়ালের বিপক্ষে। কিন্তু পুরো ম্যাচে নাভাসকে একবারও পরীক্ষায় ফেলতে পারেননি রিয়ালের ফরোয়ার্ডরা।

কাল পিএসজির মাঠ পার্স ডি প্রিন্সেসে দৈত্য রিয়ালের পারফরম্যান্স কতটা হতাশাজনক ছিল সেটি একটি তথ্যেই স্পষ্ট, পুরো ম্যাচে পিএসজির গোল মুখে একটিও শট নিতে পারেনি রিয়ালের ফরোয়ার্ডরা! দীর্ঘ ১৬ বছর পর চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ম্যাচে প্রতিপক্ষের গোলমুখে কোনো শট নিতে ব্যর্থ রিয়াল। সর্বশেষ ২০০৩-০৪ মৌসুমে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ম্যাচে প্রতিপক্ষের পোস্টে কোনো শট নিতে ব্যর্থ হয়েছিল রিয়াল।

রিয়ালের হতাশার তথ্যের এখানেই শেষ নয়। জিনেদিন জিদানের অধীনে এটাই চ্যাম্পিয়ন্স লিগে রিয়ালের সবচেয়ে বড় হার। ২০০৬ সালের পর এই প্রথম চ্যাম্পিয়ন্স লিগের প্রথম ম্যাচেই হারল রিয়াল। ফ্যান্সে গিয়ে ফ্রান্সের কোনো দলের বিপক্ষেও এটাই ২০০৬ সালের পর প্রথম হার।

ফ্রান্সে গিয়ে রিয়াল চ্যাম্পিয়ন্স লিগে সর্বশেষ হেরেছিল ওই ২০০৬ সালে, অলিম্পিক লিঁ’ওর বিপক্ষে। সেই হারটা ছিল চ্যাম্পিয়ন্স লিগের প্রথম ম্যাচে। নেইমার-কাভানি-এমবাপেবিহীন পিএসজিকে ১৪ মিনিটেই এগিয়ে দেন অ্যাঙ্গেল ডি মারিয়া। হুয়ান বারনতের পাশ থেকে দুর্দান্ত ফিনিশিংয়ে পিএসজিকে এগিয়ে দেন আর্জেন্টাইন তারকা।

এরপর ৩৩ মিনিটে মিডফিল্ডার গুয়ের পাশ থেকে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন ডি মারিয়া। ডি মারিয়ার সুবাদে পিএসজির এই ২-০ গোলের জয়কেই মনে হচ্ছিল নিয়তি। ঠিক তখনই মানে, ম্যাচের যোগ করা সময়ে রিয়ালের কফিনে তৃতীয় পেরেকটি ঠুকে দেন বেলজিয়ান ডিফেন্ডার থমাস মুনিয়ের।

কেআর 

 

ফুটবল: আরও পড়ুন

আরও