জিদানের প্রথম পরীক্ষাতেই এ+ পেলেন ব্রাজিলিয়ান রদ্রিগো

ঢাকা, ২০ আগস্ট, ২০১৯ | 2 0 1

জিদানের প্রথম পরীক্ষাতেই এ+ পেলেন ব্রাজিলিয়ান রদ্রিগো

পরিবর্তন ডেস্ক ১১:৪৫ পূর্বাহ্ণ, জুলাই ২৩, ২০১৯

জিদানের প্রথম পরীক্ষাতেই এ+ পেলেন ব্রাজিলিয়ান রদ্রিগো

বয়স মাত্র ১৮। এই বয়সে নিজ দেশ ছেড়ে সাত-সমুদ্রের ওপাড়ের আরেক দেশে এসেছেন। ক্লাব নতুন। নতুন সব সতীর্থ। কন্ডিশন, আবহাওয়াও নতুন। অচেনা-অজানা পরিবেশে এসে মানিয়ে নেওয়া কঠিনই। সেটা সাধারণের জন্য। কিন্তু অবিশ্বাস্য প্রতিভাবানদের কাছে কোনো বাধাই বাধা নয়। অমিয় প্রতিভার জোরে সব বাধাই তারা জয় করতে পারেন সহজে। কোচ যেভাবেই পরীক্ষা-নিরীক্ষা করুক, পাস করতে বেগ পেতে হয় না। রদ্রিগো অন্তত সেটাই প্রমাণ করে দিলেন। কোচ জিনেদিন জিদানের প্রথম পরীক্ষাতেই এ+ পেয়েছেন রিয়াল মাদ্রিদের ব্রাজিলিয়ান তরুণ।

এই মৌসুমেই ব্রাজিলের ১৮ বছর বয়সী তরুণকে পাক্কা ৪৫ মিলিয়ন ইউরো দিয়ে কিনে এনেছে রিয়াল মাদ্রিদ। গত পরশু রিয়ালের জার্সি গায়ে হয়ে গেল তার অভিষেকও। বায়ার্ন মিউনিখের বিপক্ষে প্রাক-মৌসুম প্রস্তুতি টুর্নামেন্ট ইন্টারন্যাশনাটল চ্যাম্পিয়ন্স কাপে। প্রাক-মৌসুম প্রস্তুতির এই ম্যাচটিতে নতুন কেনা সব খেলোয়াড়কেই অভিষেক ঘটিয়েছেন কোচ জিদান। আর এই অভিষেক ম্যাচেই ব্রাজিলিয়ান তরুণ প্রমাণ করে দিয়েছেন, তাকে কিনে রিয়াল কোনো ভুল করেনি।

নিজের যোগ্যতার প্রমাণটা তিনি আবার দিয়েছেন কোচ জিদানের পরীক্ষার মাধ্যমে। রদ্রিগো মূলত ফরোয়ার্ড। স্বদেশি ক্লাব সান্তোসে তিনি খাঁটি স্ট্রাইকার হিসেবেই খেলতেন। কিন্তু রিয়ালের জার্সি গায়ে প্রথম ম্যাচটিতেই তার অন্য রকম একটা পরীক্ষা নেন কোচ জিদান। স্ট্রাইকার রদ্রিগোকে খেলান মিডফিল্ডার হিসেবে! ক্রোয়েশিয়ান মিডফিল্ডার লুকা মড্রিচ যে পজিশনে খেলেন, রদ্রিগোকে জিদান খেলিয়েছেন সেই পজিশনেই।

নতুন এই ভূমিকাতেই বাজিমাত করেছেন ব্রাজিল তরুণ। দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে বদলি হিসেবে পায়ের ঝলকানিতে শুধু কোচ-সমর্থকদের মনই জয় করেননি। মিডফিল্ডারের ভূমিকায় খেলেও ম্যাচের রিয়ালের একমাত্র গোলটা করেন তিনিই।

মানে রিয়ালে অভিষেকেই গোল পেয়েছেন। সেটিও নিজের পছন্দের ভূমিকা বদলে মিডফিল্ডার হিসেবে। ম্যাচ শেষে এই প্রশ্নটাই ওঠে, স্ট্রাইকার রদ্রিগোকে কেন মিডফিল্ডার হিসেবে খেলালেন জিদান? জিদানের মুখ থেকে এর স্পষ্ট কোনো উত্তর মিলেনি। তবে কারণ আবিষ্কার করতে স্প্যানিশ গণমাধ্যমের কোনো অসুবিধাই হয়নি।

আসলে দলের ট্রায়ালেই অমিয় প্রতিভাবান রদ্রিগোয় মুগ্ধ হন জিদান। ফরাসি মহানায়ক খুব সহজেই বুঝে যান, রদ্রিগোর মধ্যে বিশেষ গুণ আছে। যে গুণের পুরো ফায়দা লুটতে হলে তাকে স্ট্রাইকার হিসেবে খেলালে চলবে না। তার জন্য উপযুক্ত জায়গা খুঁজে বের করতে হবে। সেই উপযুক্ত পজিশন খুঁজে বের করার লক্ষ্যে প্রথম ম্যাচেই তাকে নিয়ে পরীক্ষা চালান জিদান। খেলান স্বাধীন মিডফিল্ডারের ভূমিকায়।

স্বাধীন মিডফিল্ডার দলের প্রাণ। দলের খেলাটা তৈরি করা হয় স্বাধীন মিডফিল্ডারকে ঘিরেই। প্রথম ম্যাচেই সেই গুরুদায়িত্ব রদ্রিগোর কচি কাঁধে চাপিয়ে দেন জিদান। ব্রাজিল তরুণ কোচের সেই আস্থার প্রতিদান দিয়েছেন দারুণভাবে।

তবে পরীক্ষা-নিরীক্ষা এখানেই শেষ নয়। বরং শুরু। জিদান আভাস দিয়েছেন, রদ্রিগোর জন্য উপযুক্ত পজিশন ঠিক করতে আরও পরীক্ষা-নিরীক্ষা, গবেষণা চলবে। ফুটবলবোদ্ধাদের অভিমত, রিয়ালের ভবিষ্যত সম্পদই হবেন রদ্রিগো। ব্রাজিল তরুণকে ভবিষ্যতের সম্পদ হিসেবে হিসেবে গড়ে তোলার লক্ষ্যেই প্রথম থেকেই তাকে নিয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষায় মন দিয়েছেন জিদান। রদ্রিগোও নিশ্চয়ই কোচ জিদানের পরীক্ষাই হাসিমুখে দিতে প্রস্তুত!

কেআর/পিএ/

 

 

ফুটবল: আরও পড়ুন

আরও