জেসুস নায়ক, জেসুস খলনায়ক

ঢাকা, শনিবার, ৯ নভেম্বর ২০১৯ | ২৪ কার্তিক ১৪২৬

জেসুস নায়ক, জেসুস খলনায়ক

পরিবর্তন ডেস্ক ১২:৫৫ অপরাহ্ণ, জুলাই ০৮, ২০১৯

জেসুস নায়ক, জেসুস খলনায়ক

একটা ম্যাচে একজন ফুটবলারকে কত রূপ দেখাতে পারে ফুটবল! গত রাতে এস্তাদিও মারাকানায় কোপা আমেরিকার ফাইনালে ফুটবলের সেই বহুরূপী চেহারাটা খুব ভালো করেই দেখা হয়ে গেল গ্যাব্রিয়েল জেসুসের। যা দেখার পর তিনি এখন গাইতেই পারেন, ‘কত রঙ্গ জানো রে ফুটবল, কত রঙ্গ জানো!’

রাতে মারাকানার ফাইনালে পেরুকে ৩-১ গোলে হারিয়ে দীর্ঘ ১২ বছর পর কোপার শিরোপা জিতেছে ব্রাজিল। নিশ্চিতভাবেই ব্রাজিলের এই ফাইনাল জয়ের নায়ক জেসুস। ম্যানচেস্টার সিটির তারকা নিজে একটা গোল করেছেন। সতীর্থ এভারটনকে দিয়ে আরেকটা করিয়েছেন।

অথচ ম্যাচের ৭০ মিনিটে সেই জেসুসকেই নায়ক থেকে খলনায়ক বানিয়ে দেয় ফুটবল! নিজে গোল করে, সতীর্থকে দিয়ে করিয়ে স্বপ্নের মতো একটা রাত কাটাতে যাচ্ছিলেন যিনি, সেই জেসুসকে মাঠ ছাড়তে হয় লালকার্ড দেখে, হতাশায় মাথা নিচু করে। ফুটবল আসলেই বড় নিষ্ঠুর!

অবশ্য জেসুস পুরোপুরি খলনায়ক বনে যাননি। কারণ, তার বিদায়ে দলের ক্ষতি কিছু হয়নি। তবে ব্রাজিল শিবিরে শঙ্কার বেল বাজিয়েছিল ঠিকই। দ্বিতীয় হলুদকার্ড তথা লালকার্ড দেখে যখন মাঠ ছাড়েন জেসুস, ব্রাজিল তখন ২-১ গোলে এগিয়ে। ম্যাচের বাকি সময়টা ১০ জন নিয়ে খেলতে হবে। মাত্র ১ গোলে এগিয়ে থাকায় ব্রাজিল শিবিরে শঙ্কা জাগাটাই তো স্বাভাবিক। তবে ভাগ্য ভালো, শঙ্কাটা শেষ পর্যন্ত উড়ে গেছে।

শেষ ২০ মিনিট ব্রাজিল একজন কম নিয়ে খেলার সুযোগটা কাজে লাগাতে পারেননি পেরু। ইল্টো ম্যাচের অন্তিত মুহূর্তে নিজেরাই আরেকটা গোল হজম করে। পেনাল্টি থেকে গোল করে ব্রাজিলের জয় নিশ্চিত করেন রিচার্লিশন।

তবে মারাকানার ফাইনালে জেসুসই যে কেন্দ্রীয় চরিত্র ছিলেন, তা নিয়ে কারো সংশয় থাকার কথা নয়। জেসুস নিজেও হয়তো কল্পনার আয়নায় নিজেকে একবার নায়ক রূপে দেখছেন, পরক্ষণেই আবার দেখছেন খলনায়ক রূপে!

কেআর

 

 

ফুটবল: আরও পড়ুন

আরও