মেসি নন, আর্জেন্টাইনদের ভরসার প্রতীক মার্টিনেজ!

ঢাকা, রবিবার, ২০ অক্টোবর ২০১৯ | ৪ কার্তিক ১৪২৬

মেসি নন, আর্জেন্টাইনদের ভরসার প্রতীক মার্টিনেজ!

পরিবর্তন ডেস্ক ৩:৪৮ অপরাহ্ণ, জুলাই ০২, ২০১৯

মেসি নন, আর্জেন্টাইনদের ভরসার প্রতীক মার্টিনেজ!

লিওনেল মেসি মানেই নিজ দলের জন্য আস্থা-ভরসার জায়গা। পাশাপাশি প্রতিপক্ষের জন্য আতঙ্কের নাম। কিন্তু, চিরায়ত এই চিত্রনাট্য এবার পাল্টে গেছে!

প্রতিপক্ষের জন্য সাক্ষাৎ আতঙ্ক মেসি, এটা ঠিকই আছে। আগামীকাল বুধবারের সেমিফাইনাল সামনে রেখে ব্রাজিলিয়ানরা যেমন মেসিকে নিয়ে বেশি আতঙ্কিত। মাঠে মেসিকে কিভাবে রুখে দেয়া যাবে, ব্রাজিলিয়ানরা সেই গবেষণাতেই ব্যস্ত।

কিন্তু, মেসির দল আর্জেন্টিনা? মেসি নন, কালকের সেমিফাইনালকে সামনে রেখে আর্জেন্টাইনদের পুরো ভরসা এখন লাওতারো মার্টিনেজ!

মেসির উপর ভরসা তো নেই-ই। এমনকি সার্গিও আগুয়েরোকেও ভরসা মানছেন না আর্জেন্টাইনরা। তাদের এখন বিশ্বাস, ব্রাজিলের বিপক্ষে কোপার সেমিতে কেউ যদি দলকে উদ্ধার করতে পারেন, তিনি তরুণ মার্টিনেজ!

খেলার পাতায় তো বটেই, আর্জেন্টাইন গণমাধ্যমগুলো একাট্টা হয়ে সম্পাদকীয়তেও মার্টিনেজকে ভরসার প্রতীক মেনে বিশাল বিশাল লেখা ছাপা হচ্ছে।

আর্জেন্টাইনদের এই নববিশ্বাসের কারণটাও স্পষ্টই। খাদের কিনারা থেকে আর্জেন্টিনা যে কোপার সেমিফাইনালে উঠেছে, সেটি তো এই মার্টিনেজের পায়ের জাদুতেই।

কলম্বিয়ার কাছে ২-০ গোলে হারের পর প্যারাগুয়ের বিপক্ষে কোনো রকমে ১-১ গোলের ড্র। ফলে আর্জেন্টিনার কোয়ার্টার ফাইনালে উঠা নিয়েই তৈরি হয়েছিল সংশয়ের বৃত্ত।

সেই বৃত্ত ভেঙে দলকে উদ্ধার করেছেন মার্টিনেজ। কোয়ার্টার ফাইনালে উঠতে কাতারের বিপক্ষে গ্রুপপর্বের শেষ ম্যাচে আর্জেন্টিনার প্রয়োজন ছিল জয়। সেই প্রয়োজন মেটাতে সবার আগে এগিয়ে আসেন মার্টিনেজ। প্রথম গোলটি করে দলেল জয়ের দরজা খুলে দেন তিনিই। পরে সার্গিও আগুয়েরোর গোলটি বাড়ায় জয়ের ব্যবধান।

ভেনেজুয়েলার বিপক্ষে কোয়ার্টার ফাইনালের চিত্রনাট্যও একই। দলের প্রথম গোলটি করেন ইন্টার মিলানের এই তরুণ ফরোয়ার্ডই। পরে জয়ের ব্যবধান ২-০ করেন জিওভান্তি লো সেলসো। মানে আর্জেন্টিনা যে দুটি জয় পেয়েছে, সেই দুটি জয়ের পথইা তৈরি করেছেন ২১ বছর বয়সী মার্টিনেজ।

সব মিলে ৪ ম্যাচে আর্জেন্টিনা ফিল্ড গোল করেছে ৪টি। তার দুটিই মার্টিনেজের পা ছুঁয়ে। এবারের কোপায় মেসি এখনো ফিল্ড গোলের দেখাই পাননি। একমাত্র গোলটা তিনি করেছেন পেনাল্টি থেকে।

শুধু এই কোপাতেই নয়। অভিষেকের পর থেকেই নিজের জাতটা চিনিয়ে যাচ্ছেন মার্টিনেজ। ২০১৮ রাশিয়া বিশ্বকাপে মেসিদের ব্যর্থতার পর নতুন করে পথ চলার শপথ নেয় আর্জেন্টিনা। সেই পরিকল্পনার সুবাদেই জাতীয় দলে ডাক পান মার্টিনেজ। সেই থেকে মাত্র ১০ ম্যাচেই মার্টিনেজ করেছেন ৬ গোল।

ক্ষীপ্র গতি যেমন আছে, তেমিন প্রাপ্ত সুযোগ কাজে লাগানোর দক্ষতাও দারুণ। সব মিলে ব্রাজিলের বিপক্ষে সেমিফাইনালে এই মার্টিনেজকেই আস্থা রাখছেন আর্জেন্টাইনরা।

মার্টিনেজ পারবেন, দেশবাসীর আস্থার প্রতিদান দিয়ে আর্জেন্টিনাকে ফাইনালে তুলতে? যদি পারেন, তাহলে আর্জেন্টাইনরা নেভাতে পারবেন একটা প্রতিশোধের আগুনও। কোপায় দুই দলের সর্বশেষ দুই সাক্ষাতেই জয়ী ব্রাজিল। আর্জেন্টাইনদের সেই দুটি হারই আবার ফাইনালে। ২০০৪ সালের পর ও ২০০৭ সালেও আর্জেন্টিনাকে হারিয়েই কোপার শিরোপা জেতে ব্রাজিল।

এরপর আর প্রতিযোগিতামূলক ম্যাচে কখনো মুখোমুখি হয়নি দুদল। দীর্ঘ ১২ বছর পর সেই কোপাই আবার ব্রাজিল-আর্জেন্টিনাকে মুখোমুখি দাঁড় করিয়ে দিয়েছে। আগামীকাল বুধবার মুখোমুখি হচ্ছে সেমিফাইনালে। বেলো হরিজেন্তোতে ম্যাচটা শুরু হবে বাংলাদেশ সময় ভোর সাড়ে ৬টায়।

কেআর

 

ফুটবল: আরও পড়ুন

আরও