প্রতিবাদ জানাতে এক ম্যাচে ৩৯ গোল!

ঢাকা, বুধবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৯ | ২৯ কার্তিক ১৪২৬

প্রতিবাদ জানাতে এক ম্যাচে ৩৯ গোল!

পরিবর্তন ডেস্ক ১১:৩৭ পূর্বাহ্ণ, জুন ১৮, ২০১৯

প্রতিবাদ জানাতে এক ম্যাচে ৩৯ গোল!

এও কি সম্ভব! একটা ফুটবল ম্যাচে ৩৯ গোল হতে পারে! অবিশ্বাস্য শোনালেও ঘটনা সত্যি। ম্যাকাওয়ের এফএ কাপের এক ম্যাচে গুণে গুণে ৩৯ গোল হয়েছে!

গোলবন্যার সেই ম্যাচে সাং সাইকে ২১-১৮ গোলে হারিয়েছে কা আই।

বোঝাই যাচ্ছে, স্বাভাবিক প্রক্রিয়ায় এক ম্যাচে এত গোল হয়নি। আসলে দেশের ফেডারেশনের একটা সিদ্ধান্তের প্রতিবাদ জানাতে গিয়েই এই গোল উৎসবে মেতে উঠেছিল দুই ক্লাবের খেলোয়াড়েরা!

২০২২ বিশ্বকাপের প্রাক-বাছাইয়ে ম্যাকাওয়ের প্রতিপক্ষ ছিল শ্রীলঙ্কা। নিজেদের মাঠের প্রথম লেগে ১-০ গোলে জিতেও ছিল ম্যাকাও। কিন্তু গত ১১ জুন শ্রীলঙ্কার মাঠে দ্বিতীয় লেগটি খেলতেই যায়নি ম্যাকাও।

সম্প্রতি শ্রীলঙ্কায় ভয়াবহ বোমা হামলার কারণে শ্রীলঙ্কায় খেলতে যেতে অস্বীকৃতি জানায় ম্যাকাও। যদিও ম্যাকাওয়ের ফুটবলাররা শ্রীলঙ্কায় খেলতে যাওয়ার পক্ষেই ছিল। কিন্তু ম্যাকাওয়ের ফুটবল ফেডারেশন রাজি না হওয়ায় বাধ্য হয়ে ফিফা ম্যাচটি বাতিল করেছে।

যেহেতু ম্যাকাও নিজেদের সিদ্ধান্তেই খেলতে অস্বীকৃতি জানিয়েছে, ধারণা করা হচ্ছে, এর মাধ্যমে ম্যাকাওয়ের বিশ্বকাপ বাছাই দৌড় এখানেই শেষ! যদিও ফিফা এখনো আনুষ্ঠানিক সিদ্ধান্ত নেয়নি।

তবে যদি ম্যাকাওয়ের বিশ্বকাপ বাছাই দৌড় এখানেই শেষ হয়, সেক্ষেত্রে আগামী দুই বছর আন্তর্জাতিক ম্যাচও খেলতে পারবে না তারা। সম্ভাব্য এই শাস্তির কথা ভেবেই কিনা ফেডারেশনের সিদ্ধান্তের প্রতিবাদ জানিয়েছে সাং সাই ও কা আইয়ের ফুটবলাররা।

বুঝতেই পারছেন, ম্যাকাও জাতীয় দলের অনেক ফুটবলারই খেলেন এই দুটি ক্লাবের হয়ে। যাই হোক, প্রতিবাদের জন্য উদ্ভট ও অভিনব এক পথই বেছে নিয়েছিলেন ফুটবলাররা।

মজার ব্যাপার হলো, শুধু ফরোয়ার্ডরা নন, মাঠের এই গোল উৎসবে শরীক হয়েছিলেন দুই গোলের গোলরক্ষকরাও। নিজেদের গোলপোস্ট প্রতিপক্ষের জন্য ফাঁকা করে দিয়ে গোলরক্ষকরাও উপরে উঠে গিয়ে করেছেন গোল!

আরও মজার ব্যাপার হলো, গোল করার পথে প্রতিপক্ষ খেলোয়াড়েরা কেউ বাঁধা দেয়নি। উল্টো গোলদাতাকে অভিনন্দন জানিয়েছে। প্রতিবাদের অংশ হিসেবে প্রতিপক্ষ ভুলে খেলোয়াড়েরা এক হয়ে গিয়েছিল আর কি!

ম্যাচের প্রথমার্ধে অবশ্য গোল হয় মাত্র ১১টি। বাকি ২৮টি গোল হয়েছে দ্বিতীয়ার্ধে। গোল করতে করতে ক্লান্ত হয়ে পড়াতেই হয়তো আরও গোল হয়নি। নয়তো ফাঁকা পোস্টে চাইলে আরও গোল করতে পারতেন দুই দলের খেলোয়াড়েরা।

তবে একটা বিষয় লক্ষ্যণীয়, প্রতিবাদ জানাতে কেউ কিন্তু নিজেদের জালে শট নিয়ে বসেননি। ম্যাচে আত্মঘাতী গোল হয়নি একটিও।

এমন অভিনব প্রতিবাদ জানাতে পেরে খেলোয়াড়দের প্রতিক্রিয়া কি, সেটা জানা যায়নি। তবে সাং সাই ও কা আই, দুই ক্লাবের পক্ষ থেকেই ফেডোরেশনের কাছে ক্ষমা চাওয়া হয়েছে।

বিবৃতির মাধ্যমে জানিয়েছে, ম্যাচে এমন উদ্ভট ফলাফলের জন্য তারা দুঃখিত।  বিবৃতিতে ক্লাব দুটি এটাও নিশ্চিত করেছে, প্রতিবাদের এই সিদ্ধান্ত একান্তই খেলোয়াড়দের। ক্লাবের পক্ষ থেকে এমন কোনো নির্দেশনা দেওয়া হয়নি।

ফুটবলাররা মাঠে নেমেই এমন প্রতিবাদের সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

তবে ক্লাব দুটি এটাও জানিয়েছে, খেলোয়াড়দের এই প্রতিবাদের প্রতি তারা শ্রদ্ধাশীল! কারণ তারা খেলোয়াড়দের মত প্রকাশের স্বাধীনতায় বিশ্বাসী!

কেআর

 

ফুটবল: আরও পড়ুন

আরও