পানামা-হতাশার ম্যাচ যে ৫ বার্তা দিল ব্রাজিলকে

ঢাকা, শনিবার, ৭ ডিসেম্বর ২০১৯ | ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

পানামা-হতাশার ম্যাচ যে ৫ বার্তা দিল ব্রাজিলকে

পরিবর্তন ডেস্ক ১১:০৭ পূর্বাহ্ণ, মার্চ ২৪, ২০১৯

পানামা-হতাশার ম্যাচ যে ৫ বার্তা দিল ব্রাজিলকে

পুঁচকে পানামার সঙ্গে ড্র হতাশায় পুড়তে হবে, ম্যাচের আগে এমনটা ভাবতেই পারেননি ব্রাজিলিয়ানরা। কিন্তু বাস্তবে কাল পর্তুগালের ক্লাব এফসি পোর্তোর মাঠ এস্তাদিও ডু দ্রাগাওতে ঘটেছে সেটাই। দৈত্য ব্রাজিলকে ১-১ রুখে দিয়ে ইতিহাস রচনা করেছে পানামা। এই প্রথম ব্রাজিলের বিপক্ষে গোল করার স্বাদ পেল দলটি। পেল প্রথম বারের মতো ড্র করার মর্যাদা।

পানামার জন্য এই ড্র যেমন ঐতিহাসিক আনন্দের, ব্রাজিলের জন্য ঠিক ততটাই হতাশার। যে ড্র হতাশার ম্যাচ ৫ বারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ব্রাজিলকে দিয়েছে ৫টি শিক্ষা বা বার্তা। এই ৫ বার্তার প্রথম বার্তাটির নাম নেইমার। ২৭ বছর বয়সী নেইমার এই ব্রাজিল দলের প্রাণভোমরা। কারো কারো মতে, নেইমার এই ব্রাজিল দলের অর্ধেক। কালকের ম্যাচটি যেন দেখিয়ে দিল চোখে আঙুল দিয়ে সেটিই।

চোটের কারণে পিএসজি তারকা মাঠের বাইরে। দলের সঙ্গে পর্তুগালে গেলেও নেইমার কাল ম্যাচটা দেখেছেন ভিআইপি গ্যালারিতে বসে। নেইমারবিহীন ব্রাজিলকে ঠিক ব্রাজিল বলে মনেই হয়নি। রবার্তো ফিরমিনো, রিচার্লিশন, ফিলিপে কুতিনহো, লুকাস পাকুয়েতারা মিলে অবশ্য একের পর এক আক্রমণ শানিয়েছেন। কিন্তু তাদের সেই আক্রমণের ফিনিশিং ভালো হয়নি। পুরো ম্যাচেই নেইমারের অনুপস্থিতি টের পাওয়া গেছে।

খোদ ব্রাজিলেই নেইমারের অনেক নিন্দুক আছেন। যারা সুযোগ পেলেই পিএসজি তারকাকে ধুয়ে দেন। দাঁড় করান কাঠগড়ায়। কালকের ম্যাচটি দেখে তাদের সেই মনোভাব পরিবর্তন হতে বাধ্য। পানামা-হতাশা ব্রাজিলিয়ানদের ভালো করেই বুঝিয়ে দিয়েছে, আসন্ন কোপা আমেরিকায় ভালো কিছু পেতে হলে নেইমারকে অবশ্যই লাগবে। একমাত্র নেইমারই পারবেন দলকে সঠিক পথে রাখতে। তাকে ছাড়া এই ব্রাজিল ছন্নছাড়া। চালকবিহীন গাড়ি!

ব্রাজিল কোচ তিতের জন্য দ্বিতীয় বার্তা—মাঝমাঠ। কোচ তিতে অবশ্য ম্যাচের আগেই মাঝমাঠ নিয়ে নিজের শঙ্কার কথা জানিয়েছিলেন। কিন্তু মাঠের পারফরম্যান্স তার শঙ্কাকেও ছাপিয়ে গেছে। আর্থার, কাসেমিরো, পাকুয়েতা মিলে দলের খেলাটা সেভাবে তৈরি করতে পারেননি। ম্যাচটি ভালো করেই বুঝিয়ে দিয়েছে ঘরের মাঠের কোপা আমেরিকায় শিরোপা সাফল্য পেতে চাইলে মাঝমাঠকে আরও সৃষ্টিশীল করা লাগবে।

তৃতীয় বার্তাটি ফিলিপে কুতিনহো। বার্সেলোনা তারকা এই ব্রাজিল দলের অন্যতম সেরা অস্ত্র। নেইমারের পর সবচেয়ে বড় তারকা। দলের দ্বিতীয় নেতা। কিন্তু নেতার ভূমিকা নেওয়া দূরের কথা, কাল কুতিনহোকে সেভাবে খুঁজেই পাওয়া যায়নি। ক্লাব বার্সেলোনার জার্সি গায়ে এ মৌসুমের শুরু থেকেই ধুঁকছেন ২৬ বছর বয়সী মিডফিল্ডার/ফরোয়ার্ড। বাধ্য হয়ে বার্সেলোনা তাকে বিক্রি করে দেওয়ার কথা পর্যন্ত ভাবছে।

কাল জাতীয় দলের জার্সি গায়েও সেই বিবর্ণ কুতিনহোরই দেখা মিলল। পুরো ম্যাচে উল্লেখ করার মতো কিছুই করতে পারেননি তিনি। এমনকি প্রতিপক্ষ পানামার গোলপোস্ট লক্ষ্য করে উল্লেখ করার মতো শটও নিতে পারেননি। এই নিষ্প্রভা স্পষ্ট করেই বলে দিয়েছে, কোপা আমেরিকার আগে কুতিনহোকে আরও কঠোর পরিশ্রম করতে হবে। নিজের প্রতি আত্মবিশ্বাস বাড়াতে হবে।

শেষ দুটি বার্তা অবশ্য ব্রাজিল কোচ তিতের জন্য স্বস্তির। সেই দুটি বার্তা হলেন কালকের গোলদাতা পাকুয়েতা ও রিচার্লিশন। নেইমারের অনুপস্থিতিতে কাল তার ১০ নম্বর জার্সিটি পাকুয়েতাকে পরতে দিয়েছিলেন কোচ তিতে। এসি মিলানের মিডফিল্ডার কোচের সেই আস্থার প্রতিদান দিয়েছেন জাতীয় দলের হয়ে ক্যারিয়ারের প্রথম গোল করে।

রিয়াল মাদ্রিদের মিডফিল্ডার কাসেমিরোর ক্রস থেকে ব্রাজিলের একমাত্র গোলটা করেছেন তিনিই। শুধু গোল করা নয়, তরুণ পাকুয়েতা নিজের হার না মানা মানসিকতাও দেখিয়েছেন। যতক্ষণ মাঠে ছিলেন, প্রাণপণ লড়েছেন। তার এই জয়ী মানসিকতা দেখে কোচ তিতে খুশিই হওয়ার কথা। পাশাপাশি ব্রাজিল কোচকে অদৃশ্যে যেন এই বার্তাও দিল, এখন থেকে পাকুয়েতাকে নিয়মিত শুরুর একাদশে খেলানোর পরিকল্পনাই করতে পারেন তিনি।

ব্রাজিলের জন্য আরেক স্বস্তির বার্তার নাম রিচার্লিশন। ২০১৮ বিশ্বকাপ ব্যর্থতার পর থেকেই এভারটনের এই তরুণ ফরোয়ার্ডকে জাতীয় দলে ডাকেন তিতে। সেই থেকে ব্রাজিলের ৭টি ম্যাচেই খেললেন এই তরুণ। প্রতিটা ম্যাচেই যেন একটু একটু করে উন্নতি করছেন।


উন্নতির ছাপ রেখেছেন কালও। তবে দুর্ভাগ্য তার, কালও গোল পাননি। গোল পাওয়া থেকে তাকে হতাশ করেছে ক্রস বার। তার বুলেট গতির শট পানামার ডিফেন্ডার এবং গোলরক্ষককে পরাস্ত করলেও প্রতিহত হয়েছে ক্রসবারে লেগে।

ব্রাজিলের আক্রমণভাগে নেইমার, রবার্তো ফিরমিনো, গ্যাব্রিয়েল জেসুস, ফিলিপে কুতিনহোর মতো প্রতিষ্ঠিত তারকারা আছেন। তবে রিচার্লিশন বুঝিয়ে দিচ্ছেন, তার ওপর আস্থা রাখলে ভুল করবেন না কোচ! রিচার্লিশন ড্রেসিংরুমেও খুব জনপ্রিয়। হাসি-রসিকতায় সতীর্থদের জমিয়ে রাখতে পারেন। একটা দলের জন্য যেটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

পাকুয়েতা, রিচার্লিশন নিজেদের প্রমাণ করার আর একটা সুযোগ পাচ্ছেন মঙ্গলবার। সেদিন আরেকটি প্রীতি ম্যাচে ব্রাজিল মুখোমুখি হবে চেক প্রজাতন্ত্রের। সামনেই যেহেতু কোপা আমেরিকা, নিজেদের ঘরের মাঠের সেই টুর্নামেন্টে দলের অংশী হওয়ার স্বপ্নে দুই তরুণ পাকুয়েতা ও রিচার্লিশন নিশ্চয়ই মঙ্গলবারের সুযোগটাও কাজে লাগাতে চাইবেন।
কেআর/পিএ

 

 

ফুটবল: আরও পড়ুন

আরও