ঘরের মাঠে ধরাশায়ী রিয়াল

ঢাকা, রবিবার, ২০ জানুয়ারি ২০১৯ | ৬ মাঘ ১৪২৫

ঘরের মাঠে ধরাশায়ী রিয়াল

পরিবর্তন ডেস্ক ৮:৫৫ পূর্বাহ্ণ, ডিসেম্বর ১৩, ২০১৮

ঘরের মাঠে ধরাশায়ী রিয়াল

চ্যাম্পিয়ন্স লিগের বুধবারের রাতটাকে অঘটনের রাতই বলা যায়। একই রাতে ধরাশায়ী হয়েছে দুই জায়ান্ট। ইয়াং বয়েজের মাঠে গিয়ে হেরেছে ক্রিস্তিয়ানো রোনালদোর জুভেন্তাস। আর ঘরের মাঠেই উড়ে গেছে রোনালদোরই সাবেক ক্লাব রিয়াল মাদ্রিদ।

সান্তিয়াগো বার্নাব্যুতে ‘জি’ গ্রুপের ম্যাচে সিএসকেএ মস্কোর বিপক্ষে নেমেছিল সান্তিয়াগো সোলারির দল। কিন্তু রাশান এই ক্লাবটি কাছে ৩-০ গোলে বিধ্বস্ত হয়ে মাঠ ছাড়ে সার্জিও রামোসরা। অবশ্য এই হারের পরও গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়েই নক আউট পর্বে গিয়েছে তারা। নক আউট পর্বে তাদের সঙ্গী রোমা।

রাশিয়ার লুঝনিকি স্টেডিয়ামে প্রথম লেগে ১-০ গোলে হেরেছিল টানা তিনবারের চ্যাম্পিয়নরা। দীর্ঘ দশ বছর পর লিগে কোন দলের কাছে দুই লেগে হারল স্প্যানিশ এই জায়ান্টরা। ২০০৮-০৯ মৌসুমে জুভেন্তাসের কাছে দুই লেগেই হেরেছিল রিয়াল।

এদিন অবশ্য তরুণ খেলোয়াড়দের দিয়ে রক্ষণ সাজিয়েছিলেন সোলারি। বেঞ্চে ছিলেন লুকা মদ্রিচ ও গ্যারেথ বেলরাও। তবে পুরো ম্যাচেই আধিপত্য নিয়ে খেলেছে রিয়ালই। ম্যাচের ৬৯ ভাগ সময়ই বল দখলে ছিল স্বাগতিকদের। গোল মুখের শটেও এগিয়ে ছিল বিস্তর। পুরো ম্যাচে মস্কোর গোলমুখে ১৯টি শট নেয় রিয়াল। যার মধ্যে ৬টি ছিল টার্গেটে। কিন্তু একটিও অতিথিদের জালের দেখা পায়নি।

বিপরীতে রিয়ালের গোলমুখে মস্কোর নেওয়া ১৩ শটের মধ্যে ৫টিই ছিল টার্গেটে। যার মধ্যে ৩টি গিয়ে পৌঁছেছে রিয়ালের জালে।

এদিন শুরুতেই মস্কোর রক্ষণে চাপ সৃষ্টি করে খেলে রিয়াল। গোলের সুযোগও পায় তারা আগে। ম্যাচের ২৩ মিনিটে ভিনিসিউস জুনিয়রের শটটি মস্কোর গোলরক্ষক ঠেকিয়ে দিলে তা পেয়ে যান মার্কো আসেনসিও। কিন্তু তার জোরালো শটটিও লাগে গিয়ে ক্রসবারে।

তবে খেলার ধারা বিপরীতে ম্যাচের ৩৭ মিনিটে এগিয়ে যায় মস্কো। মিডফিল্ডার আর্নর সিগুর্দসনের বাড়ানো বল ডি-বক্সে ঢুকে এক ডিফেন্ডারকে কাটিয়ে দলকে এগিয়ে দেন ফরোয়ার্ড ফিওদোর শেলভ।

প্রথম গোলের ধাক্কা কাটিয়ে উঠতে না উঠতেই আবার গোল খেয়ে বসে রিয়াল। ম্যাচের ৪৩ মিনিটে বার্নাব্যু স্তব্ধ করা গোল করেন শেনিকভ। ২-০ গোলে পিছিয়ে থেকে বিরতিতে যায় স্বাগতিকরা।

বিরতির পর নিয়মিত একাদশের কয়েকজন খেলোয়াড়কে নামান সোলারি। তাতেও অবশ্য কোন কাজ হয়নি। উল্টো ম্যাচের ৭৩ মিনিটে আরেকটি গোল খেয়ে বসে তারা। রিয়ালের জালের তৃতীয় ও শেষ পেরেকটি ঠোকেন শিগার্ডসন।

পিএ