আনুচিংয়ের হ্যাটট্রিকে প্রথমার্ধে ৫-০ গোলে এগিয়ে বাংলাদেশ

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৮ অক্টোবর ২০১৮ | ৩ কার্তিক ১৪২৫

আনুচিংয়ের হ্যাটট্রিকে প্রথমার্ধে ৫-০ গোলে এগিয়ে বাংলাদেশ

তোফায়েল আহমেদ রবিন, কমলাপুর স্টেডিয়াম থেকে ৪:৪৬ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ২১, ২০১৮

আনুচিংয়ের হ্যাটট্রিকে প্রথমার্ধে ৫-০ গোলে এগিয়ে বাংলাদেশ

হ্যাটট্রিক পেতে পারতেন প্রথম ম্যাচেই। কিন্তু নিজেদের প্রথম ম্যাচে বাহরাইনের বিপক্ষে ২ গোল করার পর দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই তাকে তুলে নেন বাংলাদেশ কোচ গোলাম রব্বানী ছোটন। পরে লেবাননের বিপক্ষে জায়গা হয়েছিল সাইড বেঞ্চে। তবে সংযুক্ত আরব আমিরাতের বিপক্ষে প্রথম একাদশে ফিরেই হ্যাটট্রিক তুলে নিয়েছেন আনুচিং মগিনি। এই তারকার হ্যাটট্রিকে আরব আমিরাতের বিপক্ষে প্রথমার্ধেই ৫-০ গোলের লিড পেয়েছে বাংলাদেশ।

শুক্রবার কমলাপুর বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ মোস্তাফা কামাল স্টেডিয়ামে এএফসি অনূর্ধ্ব-১৬ ফুটবলের ‘এফ’ গ্রুপের ম্যাচে মুখোমুখি হয় দুই দল। গ্রুপে বাংলাদেশের এটি তৃতীয় ম্যাচ। নিজেদের প্রথম ম্যাচে বাহরাইনকে ১০-০ আর দ্বিতীয় ম্যাচে লেবাননকে ৮-০ গোলে হারায় বাংলাদেশের মেয়েরা।

আজকের ম্যাচে প্রথমার্ধে আনুচিংয়ের হ্যাটট্রিক ছাড়াও গোল করেছেন শামসুন্নাহার সিনিয়র। অন্য গোলটি বাংলাদেশ পেয়েছে আত্মঘাতী থেকে।

প্রথম দুই ম্যাচ জিতে গ্রুপে বেশ ভালো অবস্থানে বাংলাদেশ। তবে ভিয়েতনামের বিপক্ষে রোববার নিজেদের শেষ ম্যাচটিই হবে বাংলাদেশের আসল পরীক্ষা। তিন ম্যাচে যারা তিনটিতেই জিতেছে। মোট গোল করেছে ২৫টি। গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হতে হলে তাই সেই ম্যাচে বাংলাদেশকে জিততেই হবে। ড্র করলে আসবে গোল ব্যবধান।

ভিয়েতনামের ম্যাচের কথা ভেবেই এম্যাচে একাদশে তিনটি পরিবর্তন এনে মাঠে নামে বাংলাদেশ। নিয়মিত অধিনায়ক মারিয়া মান্ডা, শামসুন্নাহার জুনিয়র ও ঋতুপন্না চাকমাকে বিশ্রাম দেন কোচ গোলাম রব্বানী ছোটন। অধিনায়কত্বের আর্ম ব্যান্ড ছিল আঁখির হাতে। প্রথম একাদশে সুযোগ পান নিলুফা ইয়াসমিন নিলা, আনুচিং মগিনি ও রোজিনা আক্তার।

আগের দুই ম্যাচের মতো শুরুতে বাংলাদেশ গোছালো খেলতে না পারলেও সময়ের সাথে সাথে মানিয়ে নেয়। ৫ মিনিটে ডি-বক্সের ভেতরে তহুরাকে ফাউল করেন আরব আমিরাতের খেলোয়াড়। ফলে পেনাল্টি পায় বাংলাদেশ। শামসুনন্নাহার সিনিয়র স্পট কিক থেকে গোল করে এগিয়ে দেন দলকে।

১৭ মিনিটে মনিকা চাকমার দূরপাল্লার শট চলে যায় বার পোস্টের উপর দিয়ে। ফলে এগিয়ে যাওয়া হয়নি লাল-সবুজের মেয়েদের। ২৫ মিনিটে ডি-বক্সের বাইরে থেকে তহুরার নেয়া শট ক্রসবারে লেগে ফিরলে আবারো হতাশ হতে হয় স্বাগতিক দর্শকদের।

তবে পরের মিনিটেই এগিয়ে যায় বাংলাদেশ। আঁখির শট থেকে আনুচিংয়ের দুর্দান্ত হেড দূরের পোস্টে লেগে জালে জড়ায়। ৩৪ মিনিটে আরেকটি দুর্দান্ত হেডে নিজের দ্বিতীয় গোল আদায় করেন নেন তিনি। ডান প্রান্ত থেকে বড় বোন আনাই মগিনির দুর্দান্ত এক ক্রসে মাথা ছুঁয়ে বল জালে জড়িয়ে দেন তিনি। বাংলাদেশ এগিয়ে যায় ৩-০ গোলে।

৩৬ মিনিটে ফের গোল আনুচিংয়ের। জোগান দাতা সেই বড় বোন। আনাইয়ের ক্রস প্রথমে আমিরাতের ডিফেন্সে প্রতিহত হলেও দুর্দান্ত বাইসাইকেল ভলিতে বল জালে জড়ান আনুচিং। তুলে নেন হ্যাটট্রিক।

৩৯ মিনিটে রোজিনার গোল অফসাইডে বাতিল হয়। প্রথমার্ধের যোগ করা সময়ে আত্মঘাতী গোল পায় বাংলাদেশ। ক্লিয়ার করতে গিয়ে নিজেদের জালেই বল ঠেলে দেন মিডফিল্ডার আলিয়া। আগের দুই ম্যাচের মতো তাই প্রথমার্ধেই ৫-০ গোলের লিড পায় বাংলাদেশ।

টিএআর/এমএসআই