জোকারি করে সে, ইয়ার্কি নাকি- শারাফাতকে টিপু

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৮ | ২৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৫

জোকারি করে সে, ইয়ার্কি নাকি- শারাফাতকে টিপু

পরিবর্তন প্রতিবেদক ৭:৪৬ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ০৯, ২০১৮

জোকারি করে সে, ইয়ার্কি নাকি- শারাফাতকে টিপু

দেশের ফুটবলে আলোচনার বিষয় এখন দুটি। এক—সাফ ফুটবলে নেপালের বিপক্ষে গোলরক্ষক শহীদুল আলম সোহেলের হাস্যকর ভুল। অন্যটি অবশ্য ফুটবলের মাঠের বাইরের বিষয়—চৌধুরী জাফরউল্লাহ শারাফাতের ধারাভাষ্য। সবসময়ই যিনি দর্শকদের হাস্যরসের খোরাক। তবে সাফ ফুটবলের এবারের আসরে শুধু হাস্যরস নয়, টেলিভিশন ধারাভাষ্যে দর্শকদের ক্ষোভেরও কারণ তিনি। বিরক্ত সাবেক ফুটবলার ও কোচ গোলাম সারোয়ার টিপুও। শারাফাতের কাছে তার প্রশ্ন, ‘ফুটবলে মাইনাস থাকলে প্লাস কোনটা?’

ঘরের মাঠে সাফ ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপে শনিবার গ্রুপ পর্ব থেকেই বিদায় নিয়েছে বাংলাদেশ। প্রথম দুই ম্যাচ জেতার পরও নেপালের বিপক্ষে হেরেছে ২-০ গোলে। তাতে পাকিস্তান ও নেপালের সমান পয়েন্ট হলেও গোল গড়ে পিছিয়ে থেকে ছিটকে যায় বাংলাদেশ। দেশের ফুটবলের এই ব্যর্থতার উত্তর খুঁজছে এখন সবাই। পরিবর্তন ডটকমও সেই উত্তর খুঁজতে যোগাযোগ করে গোলাম সারোয়ার টিপুর সঙ্গে।

কিন্তু এই প্রতিবেদকে ধাক্কা খেতে হয় শুরুতেই। মুঠোফোনে দেশের ফুটবলের কিংবদন্তি ফুটবলারের প্রশ্নের মুখে এই প্রতিবেদক- ‘আমাদের ব্যর্থতা? ধারাভাষ্যকার জাফরউল্লাহ শারাফাতকে জিজ্ঞেস করো এর উত্তর?’ প্রথমে অপ্রস্তুত হলেও টিপুর উত্তেজিত কণ্ঠের কারণ বুঝতে কষ্ট হয় না।

নিয়মিত মাঠে আসতে না পারায় টিভিতে বসেই খেলা দেখেন ষাট ও সত্তরের দশকের অন্যতম সেরা ফুটবলার। আর তা দেখতে গিয়ে বাংলা ধারাভাষ্য শুনে যে বিরক্ত হতে হচ্ছে সেটিই ফুটে উঠলো তার সঙ্গে আলাপের প্রথমে, ‘ও (জাফরউল্লাহ শারাফাত) যে বলে হোল অব ডিফেন্স, বল এখন উর্ধ্বমুখী। জিজ্ঞেস করো উর্ধ্বমুখীটা কী? জিজ্ঞেস করো ফুটলাররা যদি মাইনাস করে তাহলে প্লাস কোনটা?’ শারাফাত যেটিকে মাইনাস বলছেন সেটি যে ব্যাক পাস সেটাই বলে দেন টিপু।

জাফরউল্লাহ শারাফাতের অনেক ধারাভাষ্য নিয়েই ইন্টারনেট দুনিয়ায় রয়েছে মজাদার সব অডিও কিংবা ভিডিও। ক্রিকেট, ফুটবলে বাংলা ধারাভাষ্য মানেই তার সরব উপস্থিতি। কিন্তু ক্রিকেট বা ফুটবলের ব্যাকরণে নেই এমন শব্দ তার মুখ থেকে আসে বারবার।

গোলাম সারোয়ার টিপু যেমন বলছিলেন, ‘সে এখনো বলে- ফার্স্ট বার, সেকেন্ড বার। বারে কি লেখা থাকে কোনটা ফার্স্ট বার আর কোনটা সেকেন্ড বার। মানুষের ট্যাক্সের পয়সায় বিটিভি চলে। সেখানে গিয়ে জোকারি করে সে। ইয়ার্কি নাকি...।’ শারাফাতে বিরক্ত টিপু এমনও বলছেন, এটিই এখন লেখার আসল বিষয় বস্তু। মানুষ বিরক্ত এদের ধারাভাষ্য শুনে।

শুধু শারাফাত নয়, বাংলা ধারাভাষ্যকারদের মানহীন ধারাভাষ্যে আসলে সৌন্দর্যহানি হচ্ছে খেলারই। টিপু উদাহরণ দেন, ‘একটা সঙ্গীত অনুষ্ঠানে যদি শিল্পী গান করে, তার কণ্ঠ যতো সুরেলাই হোক, তবলা যে বাজায় বা যারা তার সঙ্গে সঙ্গীত করে তাদরে একটা ভুলেই পুরো অনুষ্ঠান মাটি হতে পারে। সবকিছুই এক হতে হয়। কমেন্ট্রির বিষয়টিও তো তাই।’

কিন্তু দীর্ষদিন ধারাভাষ্য দিয়ে দেশের খ্যাতিমান তকমা পাওয়া শারাফাতরা কবে যে শুধরাবেন।

টিএআর/এমএসআই