স্বপ্নের রিয়াল ছাড়ার অনুমতি চাইলেন দুর্ভাগা কোভাচিচ!

ঢাকা, বুধবার, ২৪ অক্টোবর ২০১৮ | ৮ কার্তিক ১৪২৫

স্বপ্নের রিয়াল ছাড়ার অনুমতি চাইলেন দুর্ভাগা কোভাচিচ!

পরিবর্তন ডেস্ক ৬:৫০ অপরাহ্ণ, জুলাই ২২, ২০১৮

স্বপ্নের রিয়াল ছাড়ার অনুমতি চাইলেন দুর্ভাগা কোভাচিচ!

নিয়তি আসলে এমনই। সবার জন্যই স্বপ্নের ঘর স্বপ্নময় হয় না। স্বপ্ন উড়ে গিয়ে স্বপ্নের ঘরটি হয়ে উঠে দুঃস্বপ্নের নীড়! মাতেও কোভাচিচ তেমনই এক দুর্ভাগা। ২০১৫ সালে স্বপ্নের রিয়াল মাদ্রিদে যখন যোগ দেন, ক্রোয়েশিয়ার এই মিডফিল্ডারের দু’চোখে চকচক করছিল উচ্ছ্বাস। আনন্দ-আবেগে বলেই ফেলেন, ‘আমার আজন্ম স্বপ্ন পূরণ হলো।’ অতি তারকার ভিড়ে সেই স্বপ্নের রিয়ালই এখন তার কাছে দুঃস্বপ্নের ঘর। যে ঘরে থাকতে একদমই মন চাইছে না তার। হতাশায়, কষ্টে মনটা ছটফট করছে বেরিয়ে যাওয়ার। সেই ছটফটানি এতোটাই তীব্র যে, কোচের কাছে সরাসরিই আকুতি জানালেন তাকে রিয়াল ছাড়ার অনুমতি দেওয়ার!

অন্য আর সব ফুটবলারের মতো কোভাচিচেরও ছোটবেলার স্বপ্ন ছিল, একদিন বিশ্বসেরা রিয়ালে খেলবেন। অবশেষে ২০১৫ সালে তার সেই স্বপ্ন সত্যি হয়ে আসে। ইতালিয়ান ক্লাব ইন্টারমিলান ছেড়ে যোগ দেন রিয়াল মাদ্রিদে। স্বপ্নের ক্লাবে যোগ দিয়ে তরুণ কোভাচিচের সে কি উচ্ছ্বাস! কিন্তু সেই উচ্ছ্বাসের পাহাড় ঠেলে বাস্তবতাটা বুঝতে খুব বেশি সময় লাগেনি তার। দ্রুতই বুঝতে পারেন, তারকাখচিত রিয়ালের শুরুর একাদশে জায়গা পাওয়াটা খুবই কঠিন।

তারপরও স্বপ্ন ছিল কঠিনত্বের পাহাড় ডিঙিয়ে শুরুর একাদশে নিজের জায়গাটা পাকা করার। কিন্তু কোভাচিচ গত তিন মৌসুমে তা পারেননি। পারবেন কি করে! বিশ্বসেরা রিয়ালে যে তারই স্বদেশি লুকা মড্রিচ, টনি ক্রুস, কাসেমিরো, ইসকোদের মতো মিডফিল্ডাররা আছেন। বিশ্বসেরা এই মিডফিল্ডারদের সঙ্গে লড়াই করে নিজের জায়গাটা পাকা করা তরুণ কোভাচিচের জন্য কঠিনই ছিল।

তাই দলে থাকলেও বেশির ভাগ ম্যাচেই থাকতে হয়েছে বেঞ্চে বসে। খেলার সুযোগ যাও এসেছে, তা বদলি হিসেবে। গত মৌসুমেই যেমন খেলেছেন মাত্র ২১টি ম্যাচে। বাকি সব ম্যাচই তাকে দেখতে হয়েছে রিজার্ভ বেঞ্চের দর্শক হিসেবে! কিন্তু কোভাচিচ তো এভাবে ম্যাচের পর ম্যাচ বেঞ্চে বসে কাটাতে চান না। তিনি নিয়মিত খেলতে চান। তিনি ভালো করেই জানেন নিজেকে মেলে ধরতে হলে নিয়মিত খেলতে হবে। আর নিয়মিত খেলতে হলে তাকে রিয়াল ছাড়তে হবে।

নিজের সঙ্গে বোঝাপড়া করে গত মার্চেই তাই রিয়াল ছাড়ার সিদ্ধান্ত ক্রোয়েশিয়ান মিডফিল্ডার। নিজের সেই ইচ্ছার কথা তখন গণমাধ্যমের সঙ্গে শেয়ারও করেন তিনি, ‘আমি জানি রিয়ালের শুরুর একাদশে জায়গা পাওয়াটা কঠিন। বিশেষ করে আমি খুব কম বয়সেই এসেছি। এবং আমি এখনো তরুণ। আমি পরিস্থিতিটা বুঝতে পারছি। আর এ কারণেই রিয়াল ছেড়ে যাওয়াটা আমার জন্য সবচেয়ে ভালো হবে। অন্য ক্লাবে গেলে আমার নিয়মিত খেলার সুযোগ বাড়বে।’

রিয়াল কর্তারা ভেবেছিল সময়ের ব্যবধানে কোভাচিচের মানসিকতা হয়তো পরিবর্তন হবে। কিন্তু না। তার রিয়াল ছাড়ার বাসনা পাল্টায়নি। বরং ইচ্ছাটা আরও গাঢ় হয়েছে। শুক্রবার রিয়ালের অনুশীলন সেন্টার ভালদেবেবাসে কোচ জুলিয়েন লোপেতেগুইয়ের সঙ্গে বৈঠকে বসেন কোভাচিচ। বৈঠকে রিয়ালের কোচকে স্পষ্ট করেই বলেছেন, তিনি ক্লাব ছাড়তে চান। তাকে ক্লাব ছাড়ার অনুমতি দেওয়া হোক, ‘আমি বেশি বেশি খেলতে চাই। আমার জন্য তাই রিয়াল ছাড়াটাই শ্রেয় হবে। আশা করি আমার ইচ্ছাটাকে গুরুত্বের সঙ্গে দেখবেন।’

কোভাচিচ যেহেতু আগে থেকেই ক্লাব ছাড়ার কথা বলে আসছেন, কাজেই কোচ লোপেতেগুইয়ের জন্য এটা বিস্ময়ের কিছু নয়। তবে রিয়াল কর্তাদের জন্য অবশ্যই দুশ্চিন্তার বিষয়। কারণ, এরই মধ্যে দলেল প্রানভোমড়া ক্রিস্তিয়ানো রোনালদো ক্লাব ছেড়ে চলে গেছেন।

আরেক ফরোয়ার্ড করিম বেনজেমাও যাব যাব করছেন। বিপরীতে রিয়াল এখনো নতুন কাউকে দলে ভেড়াতে পারেনি। এরই মধ্যে আবার কোভাচিচকে বিক্রির নিলামে তোলঅটা তাদের জন্য একটু কঠিনই। কিন্তু কোভাচিচ নিজে থেকেই যখন আবেদন করেছেন, রিয়ালকে বাধ্য হয়েই তাকে বিক্রির নিলামে তুলতে হবে।

স্বপ্নের রিয়ালে কোভাচিচই প্রথম দুর্ভাগা নন। তারকার ভিড়ে স্বপ্নের রিয়াল অনেক ফুটবলারের জন্যই দুঃস্বপ্নের নীড় হয়ে উঠেছে। সাম্প্রতিক অতীতের দিকে তাকালেই দেখা যায়, হামেশ রদ্রিগেজ, আলভারো মোরাতারাও ছিলেন কোভাচিচের মতো কপাল পোড়া।

তারাও স্বপ্নের রিয়ালে যোগ দিয়েছিলেন স্বপ্নের ফানুস উড়িয়ে। কিন্তু তারার লড়াইয়ে টেক্কা না দিতে পারে তাদের ক্লাব ছাড়তে হয়েছে। কলম্বিয়ান ফরোয়ার্ড রদ্রিগেজ গত মৌসুমে গেছেন বায়ার্ন মিউনিখে। মোরাতা প্রথমে গিয়েছিলেন জুভেন্টাসে। সেখান থেকে ফিরে আসলেও গত মৌসুমে আবার তাকে বিক্রি করে দেওয়া হয়েছে চেলসির কাছে। কোভাচিচের ঠিকানা কোথায় হয়, সেটাই এখন দেথার।

রিয়ালে তেমন সুযোগ না পেলেও ক্রোয়েশিয়া জাতীয় দলের হয়ে বিশ্বকাপে দুর্দান্ত খেলেছেন কোভাচিচ। রিয়াল বিক্রির নিলামে তুললে হয়তো বড় কোনো ক্লাবেই ঠিকানা হবে তার।

কেআর