সেই ন্যু-ক্যাম্পে এবার মেসিকে ‘অকার্যকর’ করবেন ফ্যাব্রিগাস!

ঢাকা, রবিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮ | ৮ আশ্বিন ১৪২৫

সেই ন্যু-ক্যাম্পে এবার মেসিকে ‘অকার্যকর’ করবেন ফ্যাব্রিগাস!

পরিবর্তন ডেস্ক ৬:৩৭ অপরাহ্ণ, মার্চ ১৩, ২০১৮

সেই ন্যু-ক্যাম্পে এবার মেসিকে ‘অকার্যকর’ করবেন ফ্যাব্রিগাস!

এই ন্যু-ক্যাম্পে কত বার লিওনেল মেসিকে গোল করায় সহায়তা করেছেন সেস ফ্যাব্রিগাস। কত বার প্রতিপক্ষের গোলমুখে মেসির উদ্দেশ্যে বাড়িয়েছেন সোনার পাস! কত বার গোলের পর একে অন্যের গলা জড়িয়ে করেছেন বাধভাঙা উদযাপন! সবই স্মৃতির পাতায় জ্বলজ্বল করছে। তবে হৃদয়ের পর্দা থেকে চকচকে সেই স্মৃতি সাময়িকের জন্য মুছে ফেলতে চান ফ্যাব্রিগাস। রঙিন সেই স্মৃতিগুলো ঢেকে রেখে ফ্যাব্রিগাস এবার প্রস্তুতি নিচ্ছেন সেই মেসিকে মাঠে ‘অকার্যকর’ রাখার।

এক সময়ের সেই সতীর্থ মেসি যে এবার তার প্রতিপক্ষ। শুধু মেসি নন, এক সময়ের ‘আপন ঘর’ বার্সেলোনাও এবার তার প্রতিপক্ষ। আগামীকাল ন্যু-ক্যাম্পে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শেষ ষোল’র ফিরতি লেগে মুখোমুখি হচ্ছে বার্সেলোনা ও চেলসি। ম্যাচটা হবে বার্সেলোনার ঘরের মাঠ ন্যু-ক্যাম্পে। ক্যারিয়ারে দীর্ঘ ৩টি বছর যে ন্যু-ক্যাম্পে খেলতে নেমেছেন গ্যালারিভর্তি সমর্থকদের ভালোবাসায় সিক্ত হয়ে, কাল সেই ন্যু-ক্যাম্পে নামবেন প্রতিপক্ষ খেলোয়াড় হয়ে।

এক সময় যে বার্সেলোনার জয় পরিকল্পনা এঁকে নামতেন মাঠে, কাল নামবেন সেই বার্সেলোনার সর্বনাশের নীল-নকশা আঁকিয়ে। সাবেক ক্লাব বার্সেলোনার বিপক্ষে এর আগেও খেলেছেন ফ্যাব্রিগাস। খেলেছেন আর্সেনালের হয়ে। গত ২১ ফেব্রুয়ারি খেলেছেন চেলসির হয়েও। তবে ১৪ ফেব্রুয়ারির সেই ম্যাচটা ছিল চেলসির ঘরের মাঠ স্টাম্পফোর্ড ব্রিজে। কাল নামবেন সেই ন্যু-ক্যাম্পে, যেখানে গোল এবং ম্যাচ জয়ের উদযাপন করেছেন অসংখ্য বার।

কালও ন্যু-ক্যাম্পে জয়ের স্বপ্নই আঁকছেন স্প্যানিশ মিডফিল্ডার। কিন্তু তার সেই স্বপ্ন পূরণ হলেও জয় উদযাপনে তিনি ন্যু-ক্যাম্পের গ্যালারিকে পাশে পাবেন না। গ্যালারির সমর্থকরা তাকে অভিনন্দন জানাবে না। উল্টো ভাগ্যে জুটতে পারে দুয়ো!

সেসব নিয়ে অবশ্য ভাবছেন না ফ্যাব্রিগাস। তার ভাবনা জুড়ে শুধুই চেলসির জয়। আর সেই জয় স্বপ্ন আঁকতে গিয়েই সবার আগে তার চোখের সামনে ভেসে উঠছে সেই মেসির ছবি, ২০১১ থেকে ২০১৪, তিন বছরে যাকে গোল বানিয়ে দিয়েছেন অসংখ্যবার।

ফ্যাব্রিগাস ভালো করেই জানেন মাঠে মেসি কি করতে পারেন। জানেন চেলসিকে জেতাতে হলে সবার আগে রুখে দিতে হবে মেসিকে। তাই সাবেক সতীর্থ-বন্ধুত্বের সম্পর্কের কথা ভুলে ফ্যাব্রিগাস মেসিকে দেখছেন শুধুই প্রতিপক্ষ হিসেবে! মনে মনে পরিকল্পনা আঁটছেন মেসিকে বোতলবন্দী করে রাখার।

মেসিকে বোতলবন্দী কিভাবে রাখতে হয়, সেটা ভালোই জানত চেলসির ডিফেন্ডাররা। গত ১৪ ফেব্রুয়ারির আগে চেলসির বিপক্ষে ৮ ম্যাচ খেলেও গোল করতে পারেননি মেসি। তবে দেরিতে হলেও চেলসির বিপক্ষে নিজের গোল-বন্ধ্যাত্ব ১৪ ফেব্রুয়ারি ঘুচিয়েছেন মেসি। সেদিন স্টাম্পফোর্ড ব্রিজ থেকে ১-১ গোলের ড্র নিয়ে ফেরে বার্সেলোনা। দলকে জয় সমান সেই ড্রটা এনে দিয়েছিলেন মেসিই। ম্যাচের শেষ দিকে করা যে গোলটা ছিল চেলসির বিপক্ষে তার প্রথম গোল।

ফল ১-১ সমতা হলেও অ্যাওয়ে গোলের সুবাদে বার্সেলোনাই এগিয়ে। আগামীকাল ফিরতি লেগটাও আবার বার্সা খেলবে ঘরের মাঠে। যে ন্যু-ক্যাম্পে মাঠে নামলেই গোল পান মেসি! দলকে কোয়ার্টার ফাইনালে নিয়ে যেতে মেসি কাল যে আরও বেশি আগ্রাসী থাকবেন, সেটা অন্যদের চেয়ে ভালো জানের ফ্যাব্রিগাস। তাই দলের ডিফেন্ডারদের সহায়তায় মেসিকে বোতলবন্দী রাখার দায়িত্বটা তুলে নিচ্ছেন নিজের কাঁধে। প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন, ন্যু-ক্যাম্পে তার প্রথম চেষ্টা থাকবে নজরবন্দীর জালে রেখে মেসি অকার্যকর করা, ‘যদি আমার সুযোগ হয় মাঠে তার কাছাকাছি খেলার, আমি তাকে রুখে দেওয়ার জন্য আপ্রাণ চেষ্টা করব। জানি, তাকে থামানোটা খুব কঠিন। তবে মাঠে তাকে অস্বস্থিতে রাখতে এবং মাঠে যাতে সে নিখূঁত খেলাটা খেলতে না পারে, সেজন্য আমি সবকিছুই করব।’

৩০ বছর বয়সী ফ্যাব্রিগাস সঙ্গে যোগ করেছেন, ‘মাঠে সে আমার শুধুই প্রতিপক্ষ থাকবে, যে তার দলের জয় চাইবে। আমার চাওয়াও থাকবে একই, চেলসির জয়।

সেই ন্যু-ক্যাম্পে সেই বার্সেলোনার বিপক্ষে খেলা। একবারও অতীতের সেসব স্মৃতি হানা দিয়ে ফ্যাব্রিগাসকে মানসিকভাবে দুর্বল করে দেবে না? ভাসিয়ে নেবে না আবেগের স্রোতে? ফ্যাব্রিগাস বললেন না, তাকে নাকি বার্সেলোনার বিপক্ষে ন্যু-ক্যাম্পে মেসিদের বিপক্ষে খেলাটা আরও অনুপ্রাণিত করবে, ‘সাবেক ক্লাব বা পুরোনো বন্ধুদের বিপক্ষে খেলতে কখনোই আমি বিব্রত হই না। এটা বরং আমাকে আরও অনুপ্রাণিত করে। আর্সেনালের হয়ে খেলেছি। এখন চেলসির হয়ে খেলছি। দুক্ষেত্রেই আমি অনুপ্রাণিত বোধ করেছি।’

ফ্যাব্রিগাসও মানছেন, শেষ আটের দৌড়ে বার্সেলোনাই ফেভারিট। তবে ফেভারিট তত্ত্বকে বুমেরাং করে বুধবার ন্যু-ক্যাম্পে চেলসিই জয় পতাকা উড়াবে বিশ্বাস তার।

কেআর