দীর্ঘ দিন ডায়েট করার সহজ উপায়

ঢাকা, ২৭ জুলাই, ২০১৯ | 2 0 1

দীর্ঘ দিন ডায়েট করার সহজ উপায়

পরিবর্তন ডেস্ক ৯:০২ পূর্বাহ্ণ, জুলাই ০৮, ২০১৯

দীর্ঘ দিন ডায়েট করার সহজ উপায়

ডায়েটিংয়ে লেগে থাকা কঠিন কাজ৷ প্রবল উৎসাহে শুরু হলেও, মাঝে মাঝেই পদস্খলন হয়৷ এক–আধবার হলে তাতে বিরাট ক্ষতি কিছু নেই৷ কারণ ডায়েটিংয়ের নিয়মই হল, সপ্তাহে এক–আধ দিন নিয়ম করে অনিয়ম করা, তাতে বাকি দিনগুলোতে ডায়েটিংয়ে লেগে থাকা সহজ হয়৷

কিন্তু বাধা হয়ে দাঁড়ায় মন৷ একটা বিরিয়ানি বা আইসক্রিমের হাত ধরে এত লোভ এসে জমা হয় যে তার হাত ধরে পর পর আরও ক’দিন উল্টোপাল্টা খেয়ে ফেলার পর আবার নতুন করে শুরু করতে হয় সব৷ খারাপ হয় মন৷

কিন্তু একটু প্রস্তুতি নিয়ে কাজে নামলে, এই সব ছোটখাটো বিচ্যুতি সামলে ডায়েটিংয়ে লেগে থাকা যায় অনায়াসেই৷ তা হলে কী করবেন? কীভাবে নেবেন প্রস্তুতি? জেনে নিন, ডায়েটিংয়ের আগে কী কী করতে হবে আর কী কী করা যাবে না৷

ডায়েটিংয়ের প্রস্তুতিঃ

কী কী খাবার দেখলে নিজেকে সামলাতে পারেন না তা নোট করুন৷ তার মধ্যে যেগুলো হাই ক্যালোরি তাদের মার্ক করে নিন৷

কখন কোন খাবার খাওয়ার ইচ্ছে প্রবল হয় এবং কীভাবে তা কাটানো যেতে পারে বা তার বদলে কিছুটা কম ক্যালোরির কোনো উপকারি খাবার খাওয়া যেতে পারে, তার পরিকল্পনা করে নিন৷ তা হলেই দেখবেন, যখনই হাই ক্যালোরির খাবার খাওয়ার ইচ্ছে হবে, সঙ্গে সঙ্গে তার পরিবর্ত খাবারের কথাও মাথায় চলে আসবে৷

দুপুরে বা রাতে মিষ্টির বদলে খান কম ক্যালোরির পুষ্টিকর টাটকা বা শুকনো ফল৷ বিকেলে ভাজার বদলে রোস্টেড, গ্রিলড বা বেকড খাবার, কোল্ড ড্রিঙ্কের বদলে ফলের রস, ডাবের পানি৷

ঠিক করে নিন পুরো সপ্তাহ নিয়ম মেনে কাটানোর পর সপ্তাহান্তে একদিন পছন্দের খাবার প্রাণভরে খাবেন৷

একঘেয়ে খাবার না খেয়ে পুষ্টি ও ক্যালোরির সঙ্গে স্বাদের কথাও মাথায় রাখুন৷ কম তেল–মশলায় কীভাবে স্বাদু খাবার বানানো যায় তা নিয়ে পরীক্ষা–নিরীক্ষা করুন৷

ডায়েটিং একা একা না করে বাড়িতে ও কাজের জায়গায় আরো কাউকে জোগাড় করা যায় কি না দেখুন, বিশেষ করে যাদের সঙ্গে খাওয়াদাওয়া করেন৷ হাবিজাবি খাওয়ার ইচ্ছে হলে তারা সতর্ক করতে পারবেন৷ এতে উৎসাহও বাড়বে৷ এদের সঙ্গে বাইরে খেতে গেলে ভুলভাল খাওয়া কম হবে৷ বাড়ির জন্য খাবারদাবার কেনার সময়ও এদের সঙ্গে রাখতে পারলে ভালো৷

ঘুমের সঙ্গে ফাঁকিবাজি করবেন না৷ কম ঘুমোলে শরীরে এমন কিছু হরমোনের ক্ষরণ বাড়ে, যারা খিদে বাড়ায়৷ তাছাড়া কম ঘুমের ক্লান্তি দূর করতে আসক্তি বাড়ে মিষ্টি খাবারের প্রতি৷

নিজেকে ব্যস্ত রাখুন৷ কারণ একঘেয়েমি কাটাতেও কিন্তু মানুষ এটা সেটা খায়৷ নানান কাজে নিজেকে ব্যস্ত করে নিলে সে বিপদ কেটে যায়৷

মোটিভেশন কমে যাচ্ছে বলে মনে হলে ডায়েটিংয়ের সুফল নিয়ে ভাবুন৷

মেনে চলার কৌশলঃ

ভুলভাল খাওয়ার ইচ্ছা হলে ভাবুন, এক মুহূর্তের আনন্দের জন্য ভুল পদক্ষেপ নেবেন কি না৷ এত ব্যায়াম, এত কষ্ট, সব বিফলে চলে যাবে এই ভুলের জন্য৷

অসময়ে কিছু খাওয়ার ইচ্ছা হলে এক গ্লাস পানি বা ফ্রেশ লাইম ওয়াটার খান খুব ধীরে ধীরে৷ অধিকাংশ ক্ষেত্রে লোভ যেমন আসে, তেমন চলে যায়৷

চোখের খিদে পেলে একটু হেঁটে নিন৷ বা দু’–চারটে স্ট্রেচিং করুন৷ কারো সঙ্গে গল্পে মেতে যেতে পারেন৷

বাড়িতে রাখুন কেবল স্বাস্থ্যকর খাবার৷

ডায়েটিংয়ের ধার ধারেন না এমন কারো সঙ্গে খেতে যাবেন না৷

সপ্তাহে এক–আধ দিন, দিনের একটা খাবার ইচ্ছামতো খান৷

নিয়মিত ব্যায়াম করুন৷ ডায়েটিং ও ব্যায়ামের যুগলবন্দিতে শরীর ঝরঝরে লাগতে শুরু করলে মোটিভেশন বাড়বে

ইসি/

 

ফিটনেস: আরও পড়ুন

আরও