ঈদে মিলাদুন্নবী: নবীপ্রেম না অবাধ্যতা

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল ২০১৯ | ১২ বৈশাখ ১৪২৬

ঈদে মিলাদুন্নবী: নবীপ্রেম না অবাধ্যতা

পরিবর্তন ডেস্ক ৯:৫৮ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ১৭, ২০১৮

ঈদে মিলাদুন্নবী: নবীপ্রেম না অবাধ্যতা

ঈদে মিলাদুন্নবী উদযাপনকারীরা দাবি করেন যে, ‘এ ঈদ বা অনুষ্ঠান উদযাপন নবীজী (স.)- এর প্রতি ভালবাসার প্রকাশ। নবীকে ভালবাসা যে কর্তব্য সেটা প্রকাশ করার এটা একটা পন্থা।’ তাদের এ দাবি মোটেও ঠিক নয়।

নিঃসন্দেহে নবীজী (স.)- কে ভালবাসা প্রত্যেক মুসলিমের জন্য বাধ্যতামূলক, প্রত্যেকের উচিৎ তাঁকে তার নিজের জীবন, সন্তান, পিতা-মাতা এবং সকল মানুষ অপেক্ষা বেশি ভালবাসা। কিন্তু, এর মানে এই নয় যে, এ কাজের জন্য আমাদের বিদআতের জন্ম দিতে হবে, যার আদেশ আমাদেরকে দেয়া হয়নি। বরং এ থেকে কঠোর ভাষায় নিষেধ করা হয়েছে।

রাসুলুল্লাহ (স.)- কে ভালবাসা মানে তাঁর আনুগত্য ও অনুসরণ করা। কেন না সেটাই ভালবাসার সবচেয়ে বড় পরিচয়।

নবীজি (স.)- কে ভালবাসার প্রকাশ ঘটে তাঁর সুন্নাতকে জীবন্ত করা, আঁকড়ে ধরা এবং সুন্নাত বিরোধী কথা ও কাজ থেকে বিরত থাকার মাধ্যমে। নিঃসন্দেহে তাঁর সুন্নাত বিরোধী যে কোনো কিছুই হচ্ছে তিরস্কারযোগ্য বিদআত এবং তাঁর প্রকাশ্য অবাধ্যতা।

মিলাদুন্নবী পালন এবং অন্যান্য বিদআত এর আওতাভুক্ত। ভাল নিয়্যত থাকলেই দ্বীনের মধ্যে কোনো বিদআতের অনুপ্রবেশ ঘটানো জায়েয হয়ে যায় না। ইসলাম দুটি বিষয়ের ওপর প্রতিষ্ঠিত: খাঁটি নিয়্যত এবং নবীজী (স.)- এর পরিপূর্ণ অনুসরণ।

আল্লাহ তাআলা বলেন,

بَلَى مَنْ أَسْلَمَ وَجْهَهُ لِلّهِ وَهُوَ مُحْسِنٌ فَلَهُ أَجْرُهُ عِندَ رَبِّهِ وَلاَ خَوْفٌ عَلَيْهِمْ وَلاَ هُمْ يَحْزَنُونَ

‘হ্যাঁ, যে কেউই সৎ কর্মপরায়ণ হিসেবে নিজেকে আল্লাহর নিকট সমর্পণ করবে, তার প্রতিদান তার রবের নিকট রয়েছে, তাদের কোনো ভয় নেই। তারা দুঃখিতও হবে না।’ (সুরা বাকারাহ:১১২)

নিজেকে আল্লাহর নিকট সমর্পণ করা অর্থ আল্লাহর প্রতি ইখলাস। আর সৎ কর্মপরায়ণতা হচ্ছে, আল্লাহর আদেশ ও নবীজীর সুন্নাতের বাস্তবায়ন।

রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন,

« مَنْ أَحْدَثَ فِى أَمْرِنَا هَذَا مَا لَيْسَ فِيهِ فَهُوَ رَدٌّ »

‘আমাদের এই দ্বীনের মাঝে যে নতুন কিছু উদ্ভাবন করবে, তা প্রত্যাখ্যাত হবে।’ সহীহুল বুখারী

তিনি আরও বলেন,

وَإِيَّاكُمْ وَمُحْدَثَاتِ الأُمُورِ فَإِنَّهَا ضَلاَلَةٌ فَمَنْ أَدْرَكَ ذَلِكَ مِنْكُمْ فَعَلَيْهِ بِسُنَّتِى وَسُنَّةِ الْخُلَفَاءِ الرَّاشِدِينَ الْمَهْدِيِّينَ عَضُّوا عَلَيْهَا بِالنَّوَاجِذِ »

‘তোমরা আমার সুন্নাত এবং আমার পরবর্তী খোলাফায়ে রাশেদীনের সুন্নাত পালন করবে। আর তা দৃঢ়তার সাথে ধারণ করবে। সাবধান! তোমরা দ্বীনের মধ্যে নতুন বিষয় আবিষ্কার করা থেকে বিরত থাকবে। কারণ, প্রত্যেক নবপ্রবর্তিত বিষয়ই বিদআত এবং প্রত্যেক বিদআতই ভ্রষ্টতা।’ (তিরমিযী, অনুচ্ছেদ: সুন্নত গ্রহণ, ইমাম তিরমিযী বলেন, হাদীসটি হাসান সহীহ)

উপরোল্লিখিত কোরআনের আয়াত, হাদিসগুলো থেকে স্পষ্ট হয় যে, ঈদে মিলাদুন্নবী নবীজির প্রতি ভালোবাসার প্রকাশ তো নয়ই বরং তার আদেশের অবাধ্যতা। যেই বিদআত থেকে তিনি বাঁচতে বলেছেন, ভালোবাসার নামে সেই বিদআতেই বরং ডুবে যাওয়া হচ্ছে।

আমরা যেন সত্যকে বুঝি ও মিথ্যাকে বর্জন করি। আল্লাহ তাওফিক দান করুন। আমিন।

এমএফ/আইএম

আরও পড়ুন...
‘ঈদে মিলাদুন্নবী : নবীজিকে শ্রদ্ধা প্রদর্শন নাকি বিদআত?
অত্যাসন্ন ১২ রবিউল আউয়াল; ঈদে মিলাদুন্নবী বিদআত কেন?
সীরাতুন্নবী ও মিলাদুন্নবী : পার্থক্য ও সংশ্লিষ্ট কথা
ঈদে মিলাদুন্নবী বিদআতে হাসানা, একটি ভ্রান্ত কথা