চাকুরী শেষে প্রভিডেন্ট ফান্ড থেকে প্রাপ্ত লাভ কি সুদ?

ঢাকা, রবিবার, ২৬ মে ২০১৯ | ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬

চাকুরী শেষে প্রভিডেন্ট ফান্ড থেকে প্রাপ্ত লাভ কি সুদ?

পরিবর্তন ডেস্ক ৭:৩৩ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২০, ২০১৮

চাকুরী শেষে প্রভিডেন্ট ফান্ড থেকে প্রাপ্ত লাভ কি সুদ?

প্রশ্ন: আসসালামু আলাইকুম। সরকারী চাকুরী বা অনেক প্রাইভেট কোম্পানীতেও চাকুরী শেষে প্রভিডেন্ট ফান্ড থেকে যে অতিরিক্ত লাভ দেওয়া হয়, সেটা কি সুদ হিসেবে ধর্তব্য হবে? নাকি এই অর্থ গ্রহণ করা জায়েয ও হালাল হবে?

প্রশ্ন করেছেন: মোহাম্মদ পারভেজ আহম্মেদ, যশোর

উত্তর:

ওয়া আলাইকুমুস সালাম।

প্রভিডেন্ট ফান্ডের দুই অবস্থা। যথাঃ

১. কর্তৃপক্ষ বেতনের নির্দিষ্ট অংশ চাকুরীজীবীর হাতে না দিয়েই বাধ্যতামূলকভাবে জমা রেখে দেয়।

২. বিষয়টি চাকুরীজীবির ইচ্ছাধীন। ইচ্ছে করলে সে রাখতেও পারে, চাইলে উঠিয়েও ফেলতে পারে।

প্রথম প্রথম অবস্থায় চাকুরীজীবী যখন অবসর নেয়, কর্তৃপক্ষ জমা টাকার সাথে যদি অতিরিক্ত টাকা প্রদান করে, তাহলে তা গ্রহণ করতে শরয়ী কোন বিধিনিষেধ নেই। তা জায়েয ও হালাল হবে।

কিন্তু দ্বিতীয় অবস্থায় অর্থাৎ ব্যক্তি ইচ্ছে করে টাকা জমা রেখেছে, কিন্তু মুদারাবা বা মুশারাকা বা এ জাতীয় শরয়ী কোন চুক্তি করেনি, তাহলে চাকুরী থেকে অবসর বা অব্যাহতির সময় জমাকৃত টাকার চেয়ে অতিরিক্ত টাকা গ্রহণ করা জায়েয হবে না। এই টাকা নিজে ভোগ করা জায়েয হবে না। একান্ত গ্রহণ করলে সেই টাকা সওয়াবের নিয়ত ছাড়াই প্রয়োজনগ্রস্ত কাউকে দিয়ে দিতে হবে। অথবা কোন জনকল্যাণ মূলক খাতেও ব্যয় করা যেতে পারে। 

ফতোয়া সূত্র: ফাতাওয়া উসমানী-৩/২৭৮; ইমদাদুল ফাতাওয়া ২/৪৮; আপকি মাসায়েল আওর উনকা হল-৭/৩২৮-৩২৯; জাদীদ ফিক্বহী মাসায়েল-১/৪৩৮-৪৩৯ 

قوله: بالتعجيل أو بشرطه أو بالإستيفاء أو بالتمكن يعنى لا يملك الأجرة الا بواحد من هذه الاربعة والمراد انه لا يستحقها الموجر إلا بذلك (البحر الرائق، كتاب الاجارة-7/511)

واحل الله البيع وحرم الربوا (البقرة-275) كل قرض جر نفعا فهو حرام (رد المحتار، فصل فى القرض-5/166

والله اعلم بالصواب

উত্তর লিখেছেন- লুৎফুর রহমান ফরায়েজী, পরিচালক-তালীমুল ইসলাম ইনষ্টিটিউট এন্ড রিসার্চ সেন্টার, ঢাকা।

এমএফ/

আরও পড়ুন...
সুদী ঋণ নিয়ে ব্যবসার আয় কি হালাল?
সুদী ঋণে পরিচালিত প্রতিষ্ঠানে চাকুরী করা কি জায়েয?
স্বামীর হারাম উপার্জন কি স্ত্রীর জন্যে হারাম হবে?
বন্ধকী বস্তু থেকে উপকার গ্রহণ কি সুদ?