আশুরার রোযা কেমন গুনাহের জন্য কাফফারা হবে?

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৮ | ২৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৫

আশুরার রোযা কেমন গুনাহের জন্য কাফফারা হবে?

পরিবর্তন ডেস্ক ৩:৫৫ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১৯, ২০১৮

আশুরার রোযা কেমন গুনাহের জন্য কাফফারা হবে?

হযরত আবু কাতাদাহ রাদিয়াল্লাহু হতে বর্ণিত হাদিসে এসেছে, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন,

وَصِيَامُ يَوْمِ عَاشُوْرَاءَ أَحْتَسِبُ عَلَى اللهِ أَنْ يُكَفِّرَ السَّنَةَ الَّتِى قَبْلَهُ

‘আমি আশা করি আশুরা বা ১০ই মুহাররমের রোযা আল্লাহর নিকটে বান্দার বিগত এক বছরের (সগীরা) গোনাহের কাফফারা হিসাবে গণ্য হবে’। (মুসলিম হা-১১৬২) 

ইমাম নববি রহ. বলেন, আশুরার রোযা সকল সগিরা গুনাহের কাফ্ফারা। অর্থাৎ এ রোযার কারণে মহান আল্লাহ কবিরা নয় বরং (পূর্ববর্তী একবছরের) যাবতীয় সগিরা গুনাহ ক্ষমা করে দেবেন।

এরপর তিনি বলেন, আরাফার রোযা দুই বছরের (গুনাহের জন্য) কাফ্ফারা, আশুরার রোযা এক বছরের জন্য কাফ্ফারা, নামাযে যার আমীন ফেরেশতাদের আমীনের সাথে মিলে যাবে তার পূর্ববর্তী গুনাহ ক্ষমা করে দেয়া হবে... হাদিসে বর্ণিত এসব গুনাহ মাফের অর্থ হচ্ছে, ব্যক্তির আমলনামায় যদি সগিরা গুনাহ থেকে থাকে তাহলে এসব আমল তার গুনাহের কাফ্ফারা হবে অর্থাৎ আল্লাহ তার সগিরা গুনাহসমূহ ক্ষমা করে দেবেন।

আর যদি সগিরা-কবিরা কোনো গুনাহই না থাকে তাহলে এসব আমলের কারণে তাকে সাওয়াব দান করা হবে, তার মর্যাদার স্তর উঁচু করা হবে। আর আমলনামায় যদি শুধু কবিরা গুনাহ থাকে, সগিরা নয়, তাহলে আমরা আশা করতে পারি, এসব আমলের কারণে তার কবিরা গুনাহসমূহ হালকা করা হবে। -আল-মাজমূ শারহুল মুহাযযাব, ষষ্ঠ খন্ড, সওমু ইয়াওমি আরাফা

শাইখুল ইসলাম ইবনু তাইমিয়া রহ. বলেন, পবিত্রতা অর্জন, নামায, রমযান, আরাফা ও আশুরার রোযা ইত্যাদি কেবল সগিরা গুনাহসমূহের কাফ্ফারা অর্থাৎ এসব আমলের কারণে কেবল সগিরা গুনাহ ক্ষমা করা হয়। -আল-ফাতাওয়াল কুবরা, ৫ম খন্ড

এমএফ/

আরও পড়ুন...
আশুরার রোযা কবে, কয়টি রাখবেন?
কারবালার ঘটনাকে কিভাবে মূল্যায়ন করবেন?
কারবালা নিয়ে ভিত্তিহীন কিছু কথা
আশুরায় কী পালন করবেন?
মুহাররম মাস : ফযিলত, আমল ও বিদআত
সুন্নাহর আলোকে মুহাররম মাসের আমল
হাদিসে বর্ণিত আশুরার ইতিহাস
হুসাইন (রা.)-এর শাহাদাতের প্রকৃত ইতিহাস