শীতের পোশাকের যত্ন নেয়ার নিয়ম

ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৯ | ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

শীতের পোশাকের যত্ন নেয়ার নিয়ম

পরিবর্তন ডেস্ক ৩:০৫ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১৭, ২০১৯

শীতের পোশাকের যত্ন নেয়ার নিয়ম

শীতের সুরক্ষার জন্য সবাই কম বেশি শীতের গরম কাপড় নামিয়ে ফেলেছেন। আবার কেউ কেউ নতুন কিছু কালেকশানের জন্য বাজারে ঘোরাঘুরি করছেন। হ্যা এটাই সঠিক সময়। এতদিনে বাজারও সেজে উঠেছে গরম পোশাকের সম্ভার নিয়ে। আমাদের সবারই কম বেশি উল্, কাশ্মীরি, লেদার, আঙ্গুরা বা পশমি, ইত্যাদি বিভিন্ন ধরনের শীত কাপড় রয়েছে। কিন্ত আমরা অনেকেই জানি না ঠিক কীভাবে এই সব কাপড়ের যত্ন নিতে হয়। এই কাপড়ে যেমন রয়েছে ভিন্নতা ঠিক তেমনি এর যত্নেও রয়েছে বিভিন্ন ধরন। সঠিক ভাবে যত্ন নিলে বেশ কিছু বছর ধরে আপনি আপনার শখের কাপড়টি ব্যবহার করতে পারবেন।তাই চলুন জেনে আসি কীভাবে যত্ন নিতে হবে শীতের পোশাকগুলোর।

উল: সাধারণত ডিটারজেন্ট বা লিকুইড ডিটারজেন্ট ভালো করে পানির সাথে মিশিয়ে ২০/৩০ মিনিট ভিজিয়ে রেখে উলের কাপড় হালকা হাতে কেঁচে ধুয়ে ফেলতে হবে। মনে রাখতে হবে বেশি জোরে কাঁচা বা নিংড়ানো যাবে না। উলের কাপড় ওয়াশিং মেশিনেও ধোয়া যাবে, কিন্ত তার জন্য আপনাকে wool mode রাখতে হবে। উলের কাপড়ে যদি কোনো দাগ পড়ে তাহলে ঐ দাগের উপর লেবু ঘষে নিতে হবে।

আয়রন করার সময় উলের কাপড় কিংবা শীতের কাপড় উল্টো করে নিয়ে আয়রন করুন। জ্যাকেট কিংবা কোট কোথাও ভাজ করে কিংবা ফেলে রাখবেন না। এটি প্লাস্টিকের হ্যাঙারে ঝুলিয়ে রাখুন। সম্ভব হলে তা কোনো কাগজ কিংবা প্লাস্টিক দিয়ে আপাদমস্তক ঢেকে রাখুন। যাতে বাইরের ধুলো না পরে।

ফ্লানেল: ফ্লানেল কাপড় ডিটারজেন্ট বা লিকুইড ডিটারজেন্ট ভালো করে পানির সাথে মিশিয়ে ২০/৩০ ভিজিয়ে রেখে কেঁচে ধুয়ে ফেলা যায়। এ কাপড় ওয়াশিং মেশিনে ধোয়ার জন্য জেনারেল mode রাখতে হবে। কিন্তু ধোয়ার আগে কিছুক্ষণ ভিনেগার পানিতে ভিজিয়ে রাখতে হবে। কারণ ফ্লানেল কাপড়ের বাড়তি রং থাকলে চলে যাবে।

পশমি: আঙ্গুরা বা পশমি কাপড় ধোয়ার জন্য আপনাকে একটু সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে। এই কাপড় ওয়াশিং মেশিনে ধোয়া যাবে না এবং শুধু মাত্র winter wash বা লিকুইট ডিটারজেন্ট দিয়ে ধুতে হবে। তার জন্য আপনাকে মাত্র ৫/১০ মিনিট ভিজিয়ে নিয়ে কচলে ধুয়ে ফেলতে হবে এবং পানি চেপে চেপে ফেলতে হবে। পশমি কাপড় গুলোকে কখনো অন্য কাপড়ের সাথে ভিজানো বা ধোয়া যাবে না তাহলে পশম গুলো অন্যান্য কাপড়ে লেগে যাবে। আপনি চাইলে ড্রাই ওয়াশ করাতে পারেন। কাপড় ধোয়ার পর টিসু পেপার দিয়ে মুড়িয়ে ভাজ করে পলিথিনে করে বা হ্যাঙ্গারে ঝুলিয়ে রাখতে হবে।

লেদার: লেদারের জ্যাকেট বারবার ওয়াশ করা যায় না। তাই মাঝে মাঝে অল্প রৌদ্রে দিয়ে ব্রাশ করে ঝেড়ে ফেলতে হবে। বছরে ১/২ বার ড্রাই ওয়াশ করানোই ভালো। অবশ্যই লেদারের জ্যাকেট হ্যাঙ্গারে ঝুলিয়ে রাখতে হবে। অনেক দিন ব্যবহার না করার ফলে জ্যাকেটের জিপার জ্যাম হতে পারে। জিপারের চেইনে মোম বা নারিকেল তেল দিয়ে ঘষে নিলেই জিপার ইজি হয়ে যাবে। লেদারের ব্যাপারে একটু খেয়াল রাখুন। লেদার খুব পাতলা হয় এতে টিস্যু রাখতে ভুলবেন না। এবং তুলনামূলক ঠাণ্ডা জায়গায় রাখুন।

কাশ্মিরি: শালের ক্ষেত্রে সবার আগে মাথায় আসে কাশ্মীরি শালের কথা। কাশ্মিরী শাল কিংবা যেকোনো শাল হাতে বাসায় ধোয়াই ভালো। ধোয়ার ক্ষেত্রে ব্যবহার করতে পারেন বেবি শ্যাম্পু। কাশ্মিরি শাল বা সোয়েটার লিকুইট ডিটারজেন্ট দিয়ে ঘরেই ধোয়া যায়। তবে হালকা ধোয়ার পর তোয়ালে দিয়ে চেপে চেপে পানি বের করতে হবে এবং ছায়া যুক্ত স্থানে হ্যাঙ্গারে ঝুলিয়ে শুকাতে হবে। ইস্ত্রি করার সময় একটি তোয়ালে বা সুতির কাপর বিছিয়ে নিয়ে তার উপর আয়রন করতে হবে। কাশ্মিরি শাল বা সোয়েটার শুকানোর পর হ্যাঙ্গারে ঝুলিয়ে বা ভাঁজ করে পলিথিন ব্যাগে করে ন্যাপথালিন দিয়ে রাখুন। শাল কিংবা সোয়েটার আলমারিতে তুলে রাখার সময় অবশ্যই টিস্যু পেপারে মুড়ে রাখুন।

ভেলভেট: তবে শীতের কাপড়ের মধ্যে কিছু কাপড় আছে না ধুলেই ভালো হয়। তার মধ্যে একটি ভেলভেটের কাপড়। ভেলভেটের কাপড় কখনোই আয়রন করা উচিৎ নয়।

শীতের কাপড়গুলোকে মাঝে মাঝে রোদে দিতে হবে কিন্ত খেয়াল রাখতে হবে যাতে বেশি রোদ না পায় তাহলে আপনার শখের পোশাকটির রং জ্বলে নষ্ট হয়ে যেতে পারে। তাই সকালে ১০-১২ মিনিট রোদেই যথেষ্ট। দুপুর বেলার কড়া রোদে কাপড় নষ্ট হবার সম্ভাবনা থাকে। অবশ্যই আলমারিতে রাখার আগে ন্যাপথালিন দিয়ে রাখুন। ভুলেও কখনো কাপড়ে পারফিউম দিয়ে রাখবেন না তাহলে কাপড়ে দাগ পড়ে থাকবে।

ইসি/

 

ফ্যাশন: আরও পড়ুন

আরও