হালকা শীতে ত্বকের যত্ন

ঢাকা, বুধবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৯ | ২৯ কার্তিক ১৪২৬

হালকা শীতে ত্বকের যত্ন

পরিবর্তন ডেস্ক ১২:২১ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১৭, ২০১৯

হালকা শীতে ত্বকের যত্ন

শীত আসছে মানেই প্রকৃতি শুষ্ক হয়ে উঠছে। প্রকৃতির এই শুষ্কতার পাশাপাশি এসময় ত্বক আর চেহারাও হয়ে ওঠে শুষ্ক ও অনুজ্জ্বল। আর এই শুষ্ক ও অনুজ্জ্বল চেহারার জন্য এসময় দরকার বাড়তি কিছু যত্ন। সবসময় ঝরঝরে থাকতে এই আসন্ন শীতকে মাথায় রেখে মেনে চলতে হবে এই বিষয়গুলো।

রোদ এড়িয়ে চলবেন

শীতের রোদ অবশ্যই উপভোগ্য। কিন্তু ত্বককে সুন্দর তরতাজা আর উজ্জ্বল রাখতে হলে অতিরিক্ত সূর্যরশ্মি অর্থাৎ অতিবেগুনীরশ্মি এড়িয়ে চলতে হবে। তা না হলে ত্বক কুচকে নিষ্প্রাণ হয়ে যাবে।

ত্বকের ময়েশ্চারাইজার

শীতে ত্বকের যত্নের শুরুতে একটি ভালো ময়েশ্চারাইজার বেছে নিন। এজন্য বাজার থেকে বাদাম তেল বা এভোকাডো সমৃদ্ধ ময়েশ্চারাইজার কিনুন। এগুলো ত্বকের স্বাভাবিক আর্দ্রতা বজায় রাখতে সাহায্য করে। যতবার ত্বক শুষ্ক মনে হবে ততবারই ব্যবহার করুন। গ্লিসারিন রং ও গন্ধহীন কার্বনের যৌগ যা শুষ্ক ত্বক আর্দ্র রাখতে সাহায্য করে। গোলাপ জল ও লেবুর রস গ্লিসারিনের সঙ্গে মিশিয়ে খুব ভালো ময়েশ্চারাইজার তৈরি করা যায়। গোলাপ জল ত্বক কোমল ও পরিস্কার করে আর ত্বকের বিভিন্ন রোগ দূর করে। লেবুর রসে আছে প্রাকৃতিক ব্লিচিং উপাদান। এটা যখন গ্লিসারিন ও গোলাপ জলের সঙ্গে মেশানো হয় তখন আরো বেশি কার্যকর হয়।

বানাতে পারেন ময়েশ্চারাইজার

এই ময়েশ্চারাইজার বানাতে কিছুটা গোলাপজল, ৫ ফোঁটা গ্লিসারিন ও একটি গোটা লেবুর রস নিন। এই তিন উপাদান ভালোভাবে মিশিয়ে শুষ্ক ত্বকে লাগান। মিশ্রণটি চাইলে রেফ্রিজারেটরে একমাস সংরক্ষণ করতে পারেন। ত্বক খুব বেশি শুষ্ক হলে এবং এই ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করুন। সঙ্গে একটা ভিটামিন-ই ক্যাপসুলও দিতে পারেন। এই মিশ্রণ সেটিং স্প্রে হিসেবেও ব্যবহার করা যায়। ময়েশ্চারাইজার একটা স্প্রে বোতলে রাখুন। মেকআপ শেষে তা স্প্রের মতো ব্যবহার করুন। আর গোসলের পর এবং প্রতিবার মুখ ধোয়ার পর ভেজা অবস্থায় ময়েশ্চারাইজার বা লোশন ব্যবহার করুন। এতে ত্বকের আর্দ্রতা বজায় থাকবে।

সানস্ক্রিন ব্যবহার

শীত আসছে বলে যে সানস্ক্রিন ব্যবহার করার প্রয়োজন নেই, এমনটা ভাববেন না। শীতকালেও বাইরে বের হওয়ার ৩০ মিনিট আগে এসপিএফ ১৫-৩০ সম্পন্ন সানস্ক্রিন ব্যবহার করুন। কারণ এই সময়েও রোদে যথেষ্ট তেজ থাকে।

গরম পানি এড়িয়ে চলা

ত্বকের আর্দ্রতা বজায় রাখার জন্য মাঝে মাঝে মুখে পানির ঝাপটা দিন। সহজে ত্বক শুষ্ক হবে না। অতিরিক্ত গরম পানি ব্যবহার থেকে বিরত থাকুন গোসলের সময়। আরাম অনুভব হলেও অতিরিক্ত গরম পানি দিয়ে মুখ, মাথা ধোয়া থেকে বিরত থাকার পরামর্শ দেন বিশেষজ্ঞরা। কারণ, অতিরিক্ত গরম পানি মুখের ত্বকের ফলিকলগুলোকে ক্ষতিগ্রস্ত করে ফেলে যা ত্বককে আর্দ্র রাখতে সাহায্য করে। গোসলের সময় পানিতে কয়েক ফোঁটা জোজোবা বা বাদাম তেল দিয়ে নিলে তা ত্বককে আর্দ্র এবং মসৃণ করতে সহায়তা করে।

ঠোটের যত্নে

ঠোঁট বেশিক্ষণ ভেজানো রাখা উচিত নয়। কয়েক ফোঁটা অলিভ অয়েল মধুর সঙ্গে মিশিয়ে ঠোঁটে লাগালে ঠোঁট কখনোই ফেটে যাবে না। আর হাত পা বেশি শুস্ক হয় বলে ময়েশ্চারাইজার লোশন ব্যবহার করবেন। বিশেষ করে কনুই আর হাঁটুতে।

মেকআপ করার ক্ষেত্রে

মেকআপ করার সময় লিক্যুইড ফাউন্ডেশন ব্যবহার করবেন না। শীতকালে ক্রিম ফাউন্ডেশন ব্যবহার করুন।

চুল

শীতকালে কখনোই ভেজা চুলে বাইরে যাওয়া উচিত নয়। এতে করে চুলের আর্দ্রতা নষ্ট হয় এবং চুল ভেঙে যায়। আর অন্যান্য সময়ের তুলনায় শীতকালে চুলের যত্ন আলাদা রকমের হয়।

ইসি/

 

রুপচর্চা: আরও পড়ুন

আরও