রমজানে চুলের জন্য চাই বাড়তি যত্ন

ঢাকা, ১৪ জুন, ২০১৯ | 2 0 1

রমজানে চুলের জন্য চাই বাড়তি যত্ন

পরিবর্তন ডেস্ক ১০:১৬ পূর্বাহ্ণ, মে ২২, ২০১৯

রমজানে চুলের জন্য চাই বাড়তি যত্ন

স্বাভাবিক সময়ের চাইতে, রোজার মাসে দীর্ঘ একটা সময় খালি পেটে থাকে। শরীরে পানির অভাব, এছাড়া গরম তো আছেই। সঠিক পুষ্টির অভাবের ফলে অনেকেরই মাথার চুলগুলো কেমন যেন নিষ্প্রাণ দেখা যায়। রমজান মাসে রান্নাঘরের ঝামেলা যেন একটু বেশিই থাকে। আবার সেই সাথে অতিরিক্ত ভাজাপোড়া খাওয়া আর সারাদিন না খেয়ে থাকার ফলে পানি পান করার পরিমাণও হ্রাস পাওয়া, একইসাথে আমাদের চুল আর ত্বকের উপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলে। স্বল্প পানি পান করায় রোজায় আমাদের চুল হয়ে পড়ে রুক্ষ আর নিষ্প্রাণ। তাই এসময় চাই বাড়তি যত্ন। যত্নের প্রভাবে রমজান মাসেও আপনার চুল থাকবে ঝলমলে সুন্দর।

. সপ্তাহে দুইদিন একটি ডিমের সাদা অংশের সাথে ৫ থেকে ৬ টেবিল চামচ টক দই ভালভাবে মিশিয়ে নিন। এবার এই প্যাকটি চুলের গোঁড়া থেকে আগা পর্যন্ত লাগিয়ে নিন। ২০ মিনিট অপেক্ষা করে, চুলের ধরন অনুযায়ী শ্যাম্পু ব্যবহার করে চুল পরিষ্কার করে নিন। এই প্যাকটি চুলের রুক্ষতা দূর করে চুলকে মসৃণ করে তুলবে।

. সপ্তাহে তিনদিন ৩ টেবিল চামচ মধুর সঙ্গে ৫ টেবিল চামচ অলিভ অয়েল মিশিয়ে মাথায় ভালভাবে লাগিয়ে নিন। এভাবে ৩০ মিনিট অপেক্ষা করে চুল স্বাভাবিক উপায়ে ধুয়ে নিন। যাদের চুল শুষ্ক আর রমজানে পানির অভাবে আরও শুষ্ক হয়ে পড়েছে, তাদের জন্য এই প্যাকটি অত্যন্ত উপকারী।

. শুষ্ক চুলের কন্ডিশনার হিসেবে কলা দারুণ কার্যকরী। তাই শুষ্ক চুলের যত্ন নিতে এক চা চামচ মধু, আধা চা চামচ দুধের সর ও এক চা চামচ আমন্ড অয়েল মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করে নিন। এবার পুরো পেস্টটা চুলের আগা পর্যন্ত লাগিয়ে নিন। এক ঘণ্টা বিশ্রাম নিয়ে চুলে শ্যাম্পু করে নিন। এই প্যাক ব্যবহারে চুল হবে নরম আর মসৃণ।

. আগের রাতে মেথি, শিকাকাই ও আমলকীর গুঁড়ো পানিতে ভিজিয়ে রাখুন। ভুলে গেলে কমপক্ষে ৩ ঘন্টার জন্য ভিজিয়ে রাখুন। এবার এই উপকরণগুলো একসাথে বেঁটে নিয়ে, পেস্ট তৈরি করুন। এখন চুলে ১ ঘন্টা রেখে এই প্যাকটি শ্যাম্পু করে ধুয়ে ফেলুন। এতে চুলের রুক্ষতা দূর হবার সাথে সাথে চুল হবে ঝলমলে আর সুন্দর।

সতর্কতাঃ

. অবশ্যই সপ্তাহে দুইদিন চুলে তেল দিতে হবে। এতে করে চুল তার প্রয়োজনীয় পুষ্টির যোগান পায়, ফলে চুল পরা কমে যাওয়ার সাথে সাথে চুল হবে ঝলমলে ও সুন্দর।

. নিয়মিত চুল আঁচড়াতে হবে। চুল আঁচড়ালে ত্বকের রক্ত সঞ্চালন বৃদ্ধি পায়, ফলে চুল পড়া কমে যাবে।

. বাড়ির বাইরে বের হবার সময় মাথায় স্কার্ফ বা ওড়না প্যাচিয়ে নেয়া ভালো। এতে বাইরের ধুলাবালি চুলে কম প্রবেশ করে। প্রয়োজনে ছাতা ব্যবহার করা যায়।

. চুল শুকানোর জন্য হেয়ার ড্রায়ার বা চুলের যে কোন সাজের জন্য কোন ধরনের ইলেকট্রিক যন্ত্র ব্যবহার করা উচিত নয়।

. চুল ভালো রাখতে ইফতার ও সেহরী মাঝ সময়ে প্রচুর পানি পান করতে হবে।

. খাদ্য তালিকায় বেশি বেশি ফলমূল ও শাকসবজি রাখতে হবে।

. ভাজাপোড়া জাতীয় খাবার কম খাওয়াই ভালো। এসময় চা কফি যতটা সম্ভব এড়িয়ে চলুন।

সঠিক যত্ন আর সঠিক নিয়ম মেনে চলার ফলে, চুল তার স্বাভাবিক সৌন্দর্য বজায় রাখবে। তাই নিজের সৌন্দর্য রক্ষায় যত্ন নিন এবং সকল সতর্কতা মেনে চলুন।

ইসি/

 

রুপচর্চা: আরও পড়ুন

আরও