শীতে মিশ্র ত্বকের বিশেষ যত্ন

ঢাকা, বুধবার, ১৬ জানুয়ারি ২০১৯ | ৩ মাঘ ১৪২৫

শীতে মিশ্র ত্বকের বিশেষ যত্ন

পরিবর্তন ডেস্ক ৩:১০ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ১০, ২০১৯

শীতে মিশ্র ত্বকের বিশেষ যত্ন

শীতে ত্বকের জন্য চাই বিশেষ যত্ন। এটা তো আমরা সবাই জানি। তবে এটা জানা জরুরি যে শীতের সময়ও ত্বকের যত্ন নেয়া উচিত ত্বকের ধরন অনুযায়ী। আমাদের দেশে শুষ্ক ও তৈলাক্ত ত্বকের যত্নে বেশি নজর দিয়ে থাকেন। তবে এটা আমারা অনেকেই জানি না যে মিশ্র ত্বকের যত্নে বিশেষ নজর দেয়া উচিত। কারণ মিশ্র ত্বক মানেই হচ্ছে শুষ্ক ও তৈলাক্ত ত্বক অনুযায়ী যত্ন নিতে হবে। আসুন তাহলে আজ আমরা জেনে নেই মিশ্র ত্বকের যত্ন কীভাবে নিয়া উচিত।

মিশ্র ত্বকের যত্ন
প্রতিদিন হালকা ক্লিনজার ব্যবহার করতে পারেন। তবে ত্বকের শুষ্ক জায়গাগুলো অবশ্যই ময়েশ্চারাইজার লাগাবেন। সিদ্ধ করা মিষ্টি কুমড়ো চটকে তার সঙ্গে মধু ও দুধ পরিমাণ মতো মিশিয়ে ২০ মি. রেখে তারপর ম্যাসাজ করে ধুয়ে ফেলুন। এ প্যাকটি সপ্তাহে ৩ দিন ব্যবহার করলে উপকার পাবেন।

এছাড়া ত্বকের যত্নে নিম্নোক্ত কাজগুলো করতে পারেন:

নিয়মিত ত্বকে ময়েশ্চারাইজ করুন
শীতে ত্বকের যত্নের শুরুতে একটি ভালো ময়েশ্চারাইজার বেছে নিন। বাজার থেকে বাদাম তেল বা এভাকাডো সম্বৃদ্ধ ময়েশ্চারাইজার কিনুন। এগুলো ত্বকের স্বাভাবিক আর্দ্রতা বজায় রাখতে সাহায্য করবে। প্রতিদিন অন্তত দুবার অথবা যতবার ত্বক শুষ্ক মনে হবে ততবার ব্যবহার করুন।

সানস্ক্রিন ক্রিম ব্যবহার
শীতকালেও বাইরে বের হওয়ার ৩০ ‍মিনিট আগে এসপিএফ ১৫-৩০ সম্পন্ন সানস্ক্রিন ব্যবহার করুন।
আর্দ্রতা বজায় রাখুন
শীতকালে ত্বকের আর্দ্রতা বজায় রাখতে মাঝে মাঝে মুখে পানির ঝাপটা দিন। তাহলে সহজে ত্বক শুষ্ক হবে না।

অতিরিক্ত গরম পানি ব্যবহার করবেন না
গোসলের সময় আরাম অনুভব হলেও অতিরিক্ত গরম পানি দিয়ে মুখ, মাথা ধোয়া থেকে বিরত থাকার পরামর্শ দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। তারা বলেছেন, অতিরিক্ত গরম পানি ত্বকের কোষকে ক্ষতিগ্রস্ত করে। এর ফলে ত্বকের আর্দ্রতা নষ্ট হয়। গোসলের সময় পানিতে কয়েক ফোটা জোজোবা বা বাদাম তেল দিয়ে নিলে তা ত্বককে আর্দ্র এবং মসৃণ করতে সহায়তা করে।

ভেজা ত্বকে পরিচর্যা করুন
গোসলের পর এবং প্রতিবার মুখ ধোয়ার পর ভেজা ‍অবস্থায় ময়েশ্চারাইজার বা লোশন ব্যবহার করুন। এতে ত্বকের আর্দ্রতা বজায় থাকবে।

ঠোঁটের পরিচর্যা
কখনোই ‍জিভ দিয়ে ঠোঁট ভেজানো উচিৎ নয়। কয়েক ফোঁটা অলিভ অয়েল মধুর সাথে মিশিয়ে ঠোঁটে লাগালে ঠোঁট কখনোই ফেটে যাবে না।

সূত্র: এপি

ইসি/