তুরস্কে এরদোয়ানের জয়

ঢাকা, বুধবার, ২৪ অক্টোবর ২০১৮ | ৮ কার্তিক ১৪২৫

তুরস্কে এরদোয়ানের জয়

পরিবর্তন ডেস্ক ২:৪১ পূর্বাহ্ণ, জুন ২৫, ২০১৮

তুরস্কে এরদোয়ানের জয়

বেসরকারি ফলাফলে সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেয়েছেন দাবি করে নির্বাচনে প্রথম রাউন্ডেই সরাসরি জয়ী ঘোষণা করেছেন তুরস্কের দীর্ঘদিনের নেতা রিসেপ তায়িপ এরদোয়ান। তুরস্কের সরকারি সংবাদ সংস্থা আনাদলু জানাচ্ছে, ইতোমধ্যে ৯৬% ভোট গণনা শেষ। সরকার গঠনে এতেই অর্ধেকের বেশি ভোটে এগিয়ে আছে এরদোয়ানের জোট। রাষ্ট্রপতি নির্বাচনেও দেখা গেছে এদোয়ানের সুনিশ্চিত জয়। এরমধ্যে এরদোয়ানের বিজয়ে নিশ্চিত হয়ে তার দলের কর্মীরা রাস্তায় নেমে এসে উল্লাস শুরু করে দেয়ার দৃশ্য দেখা গেছে।

প্রেসিডেন্ট প্রার্থী হিসেবে এরদোয়ান এগিয়ে আছেন ৫৩% ভোটে। আর তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী এরদোয়ানের প্রতিপক্ষ রিপাবলিকান পিপলস পার্টির মুহাররেম ইনস পেয়েছেন ৩১% ভোট।

এরদোয়ান দাবি করেছেন, জোটের বাইরে দল হিসেবে এককভাবেই একে পার্টি সংসদে সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করেছে।

আনাদলুর প্রতিবেদনে দেখা গেছে, এখন পর্যন্ত গণনা হওয়া ৯৬% ভোটে এরদোয়ানের একে পার্টিই পেয়েছে ৪৩% ভোট। আর প্রতিদ্বন্দ্বী এরদোয়ানের প্রতিপক্ষ মুহাররেম ইনসের রিপাবলিকান পিপলস পার্টি পেয়েছে ২৩% ভোট।

কিন্তু নির্বাচনে বেশ আশা সঞ্চার করলেও কুর্দি সমর্থিত পিপলস ড্যামোক্রেটিক পার্টি পেয়েছে মাত্র ১০% ভোট। এরদোয়ান নেতৃত্বাধীন জোটের কাছে তারা বলতে গেলে অসহায় পড়ে।

রবিবার একইসাথে সংসদীয় ও রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে তুরস্ক জুড়ে ৫৬ মিলিয়নেরও বেশি মানুষ ১ লাখ ৮০ হাজার ব্যালেট বক্সে ভোটাধিকার প্রয়োগ করে। আনাদলু জানায়, এবারের নির্বাচনে ভোট পড়ে ৮৭%।

এবারের তুরস্কের নির্বাচন মূলত দুটি জোটে বিভক্ত হয়ে পড়ে। একটি পিপলস অ্যালায়েন্স। এখানে আছে এরদোয়ানের জাস্টিস অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট পার্টি, ন্যাশনালিস্ট মুভমেন্ট পার্টি ও গ্রেট ইউনিটি পার্টি। অপরটি ন্যাশনাল অ্যালায়েন্স। এছাড়া চারটি দল আছে- শক্তিশালী রিপাবলিকান পিপলস পার্টি, ফ্যালিসিটি পার্টি, আই পার্টি ও ডেমোক্রেটিক পার্টি।

প্রসঙ্গত, ২০১৬ সালের একটি ব্যর্থ সেনা অভ্যুত্থানের পর থেকে তুরস্কে জরুরী অবস্থা চলছে। চলমান নির্বাচনটি ২০১৯ সালে অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল, কিন্তু এরদোয়ান তা এগিয়ে নিয়ে আসেন।

পুনরায় প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হয়ে এরদোয়ান  মন্ত্রী ও ভাইস প্রেসিডেন্টসহ সরকারি ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সরাসরি নিয়োগ দিতে পারবেন। একই সাথে তিনি দেশের আইনি ব্যবস্থায় হস্তক্ষেপ করা ও জরুরি অবস্থা ঘোষণার ক্ষমতা পাবেন।

আরজি/