‘প্রশিক্ষিত ও যাচাই-বাছাই করে গৃহকর্মী পাঠানো হবে’

ঢাকা, শনিবার, ১৪ ডিসেম্বর ২০১৯ | ৩০ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

‘প্রশিক্ষিত ও যাচাই-বাছাই করে গৃহকর্মী পাঠানো হবে’

সৌদি আরব প্রতিনিধি ৫:৩০ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ২৯, ২০১৯

‘প্রশিক্ষিত ও যাচাই-বাছাই করে গৃহকর্মী পাঠানো হবে’

বাংলাদেশ ও সৌদি আরবের মধ্যে যৌথ কারিগরি কমিটির বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। এতে সিদ্ধান্ত হয়েছে, যেন-তেন নয়, বিদেশে কাজ করতে আগ্রহী প্রশিক্ষিত ও যাচাই-বাছাই করে গৃহকর্মী পাঠানো হবে।

সে ক্ষেত্রে নারী শ্রমিকদের বিদাশে পাঠানোর আগে সে দেশের ভাষা, কাজ করার দক্ষতা, বয়সের দিকে খেয়াল রাখতে হবে বলে জানান সৌদি কর্তৃপক্ষ।

গত ২৭ নভেম্বর রিয়াদের একটি অনুষ্ঠানে বাংলাদেশি নারী গৃহকর্মীদের সুরক্ষা নিশ্চিত, পুরুষকর্মীদের জন্য রাষ্ট্রীয়ভাবে চুক্তি স্বাক্ষরের প্রস্তাবসহ দু’দেশের স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা হয়েছে।

বৈঠকে উপস্থিত একটি সূত্র জানান, নিয়োগকর্তার বাসা থেকে কোনো গৃহকর্মী পালিয়ে পুলিশের কাছে আশ্রয় নিলে তাকে পুনরায় ওই নিয়োগকর্তার কাছে ফেরত না দিয়ে বিষয়টি শ্রম ও সামাজিক উন্নয়ন মন্ত্রণালয়কে জানাতে হবে।

শ্রম ও সামাজিক উন্নয়ন মন্ত্রণালয় সংশ্লিষ্ট রিক্রুটিং এজেন্সি ১৫ দিনের মধ্যে ওই গৃহকর্মীকে বাংলাদেশে ফেরত পাঠাতে ব্যবস্থা নেবে।

বিদেশে নারী শ্রমিকদের বিদ্যমান প্রশিক্ষণকে আরও কার্যকর ও সময়োপযোগী করা হবে। প্রশিক্ষণে ত্রুটি পেলে সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করার কথা উঠে আসে বৈঠকে।

সূত্র আরও জানায়, বাংলাদেশি নারী গৃহকর্মীদের সুরক্ষা নিশ্চিতের ব্যাপারে বাংলাদেশের পক্ষ থেকে কিছু প্রস্তাবনা দেয়া হয়েছে। সৌদি আরবের রিক্রুটিং এজেন্সিগুলোকে দূতাবাসের কাছে জবাবদিহির বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে উঠে আসে।

স্থানীয় কোনো এজেন্সি বাংলাদেশি নারীকর্মী আনতে হলে বাংলাদেশ দূতাবাসের অনুমতির প্রয়োজন হবে। দূতাবাস তথ্য যাচাই-বাছাই করে বিএমইটিকে জানানোর পর ওই এজেন্সি কর্মী আনার অনুমতি পাবে- এমন একটি পরিকল্পনার কথাও বৈঠকে তুলে ধরা হয়।

ভিসা ট্রেডিংকে মানবপাচার উল্লেখ করে তা বন্ধে কার্যকর উদ্যোগ নেয়ার জন্য ঐকমত্যে পৌঁছেছে দু’দেশ।

এছাড়াও সৌদি আরবে কর্মরত বাংলাদেশি কর্মীদের স্বাস্থ্যবীমাকে আরও বেশি কার্যকরী করার ওপর গুরুত্ব দেয়া হয়। খুব শিগগিরই দু’দেশের মধ্যে পুরুষকর্মীদের বিষয়ে গাইডলাইনমূলক একটি চুক্তি স্বাক্ষরের বিষয়ে দু’দেশ কাজ করবে বলেও বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়েছে। এখানে উল্লেখ থাকে যে বর্তমানে বাংলাদেশ এবং সৌদি আরবের মধ্যে পুরুষকর্মীদের বিষয়ে কোনো চুক্তি নেই।

বৈঠকে ১০ সদস্যের বাংলাদেশ প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দেন প্রবাসী কল্যাণ সচিব সেলিম রেজা। 

আর ১৩ সদস্যের সৌদি প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দেন সৌদি শ্রম ও সামাজিক উন্নয়ন বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের এসিসট্যান্ট ডেপুটি মিনিস্টার জাবের আল মাহমুদ।

বৈঠকে সৌদি আরবের নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত গোলাম মসীহ, বাংলাদেশ সরকারের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা, সৌদি শ্রম ও সামাজিক উন্নয়ন মন্ত্রণালয়, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, মুসানাদসহ বিভিন্ন দফতরের পদস্থ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

এইচআর

 

প্রবাস: আরও পড়ুন

আরও