ডিএনসিসি নির্বাচন স্থগিত নিয়ে অবস্থান স্পষ্ট করল ইসি (ভিডিও)

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৬ আগস্ট ২০১৮ | ১ ভাদ্র ১৪২৫

ডিএনসিসি নির্বাচন স্থগিত নিয়ে অবস্থান স্পষ্ট করল ইসি (ভিডিও)

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক ৮:১৮ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ১৮, ২০১৮

print

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়রপদে উপ-নির্বাচন, ১৮টি ওয়ার্ডে সাধারণ নির্বাচন ও ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) ১৮টি ওয়ার্ডে সাধারণ নির্বাচন হাইকোর্ট তিন মাসের জন্য স্থগিত করেছেন। এ নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় আলোচনা-সমালোচনা চলছে। বৃহস্পতিবার নির্বাচন কমিশন (ইসি) এ বিষয়ে তাদের অবস্থান স্পষ্ট করেছে।

সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠানটি জানিয়েছে, নির্বাচন স্থগিতে তাদের কোনো গাফিলতি পাচ্ছে না। তবে হাইকোর্টের আদেশের কপি হাতে পাওয়ার পর এ বিষয়ে করণীয় নির্ধারণ করবে।

বৃহস্পতিবার আগারগাঁওস্থ নির্বাচন ভবনে সাংবাদিকদের কাছে ইসির ভারপ্রাপ্ত সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ জানান, নির্বাচন স্থগিতের আদেশ প্রত্যাহার না হওয়া পর্যন্ত ইসির এ সংক্রান্ত সব কার্যক্রমও বন্ধ থাকবে।

এক রিট আবেদনের শুনানি নিয়ে গতকাল বুধবার হাইকোর্ট ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়রপদে উপ-নির্বাচন, ১৮টি ওয়ার্ড নির্বাচন স্থগিতের আদেশ দেন। আর বৃহস্পতিবার আরেক রিটের আদেশের ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) ১৮টি ওয়ার্ডের নির্বাচন হাইকোর্ট তিন মাসের জন্য স্থগিত করেন।

আদেশের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থায় যাচ্ছেন কিনা জানতে চাইলে ইসির ভারপ্রাপ্ত সচিব বলেন, ‘এখন পর্যন্ত বিস্তারিত আদেশ আমরা পাইনি। গণমাধ্যম ও উকিল নোটিশের মাধ্যমে কিছুটা জানতে পেরেছি। আদেশটি হাতে পাওয়ার পর কমিশনে উপস্থাপন করা হবে এবং পরবর্তী করণীয় নির্ধারণ করবেন ইসি।’

স্থানীয় সরকারমন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন গতকাল বুধবার অবিযোগ করেন, সিটি করপোরেশন নির্বাচন নিয়ে যে জটিলতা তৈরি হয়েছে, সেগুলো দূর করার বিষয়ে মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে নির্বাচন কমিশন যোগাযোগ করেনি।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে হেলালুদ্দীন বলেন, ‘সাংবিধানিক দায়িত্ব হিসেবে নির্বাচন কমিশন সংসদ নির্বাচন পরিচালনা করে থাকে। কিন্তু, স্থানীয় সরকার নির্বাচন মন্ত্রণালয়ের অনুরোধে ইসি ব্যবস্থা করে থাকে। সেক্ষেত্রে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়-ই নির্ধারণ করে দেবে- কোন নির্বাচন আমরা করব, কোনটা করব না। ডিএনসিসির ক্ষেত্রেও মন্ত্রণালয়ের অনুরোধ পাওয়ার পরে আমরা কাজে হাত দিয়েছিলাম। তফসিলও ঘোষণা করা হয়েছিল। এখন হাইকোর্টের আদেশ হাতে পাওয়ার পরই বুঝতে পারব ঠিক কোন কারণে এমনটি ঘটল।’

স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়কে কি আপনারা কোনো ত্রুটি বুঝিয়ে দিয়েছিলেন, যেগুলোর কারণে নির্বাচন বন্ধ হয়ে যেতে পারে- এমন প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, ‘নির্বাচন অনুষ্ঠানে অনুরোধপত্র পাওয়ার পর স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে কোনো যোগাযোগ হয়নি। আমরা ধারণা করি, মন্ত্রণালয় যখন কোনো অনুরোধপত্র পাঠায়, সবকিছু ঠিক করেই পাঠায়।’

নির্বাচন স্থগিতে কমিশনের কোনো গাফিলতি ছিল কিনা জানতে চাইলে ইসির ভারপ্রাপ্ত সচিব বলেন, ‘আমাদের গাফিলতির কোনো প্রশ্নই ওঠে না। আমরা আদেশ পাওয়ার পরই বুঝতে পারব ঠিক কি কারণে হাইকোর্ট নির্বাচন স্থগিত করলেন?’

এইচকে/আইএম

আরো পড়ুন...
'হিজড়া' পরিচয়েই ভোটার হওয়া যাবে

 
.


আলোচিত সংবাদ