ঢাকা উত্তরে ভোট পড়েছে ৩১.০৪%

ঢাকা, বুধবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৯ | ২৯ কার্তিক ১৪২৬

ঢাকা উত্তরে ভোট পড়েছে ৩১.০৪%

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক ১০:৩৬ পূর্বাহ্ণ, মার্চ ০১, ২০১৯

ঢাকা উত্তরে ভোট পড়েছে ৩১.০৪%

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের উপ-নির্বাচনে ৫০ শতাংশ ভোটের প্রত্যাশা করেছিল নির্বাচন কমিশন।

দুপুরে ইসি সচিব হেলালুদ্দীন আহমদতো ঘটা করেই বললেন, এখন পর্যন্ত সেভাবে তথ্য পাইনি। আমরা আশা করছি ঢাকা উত্তর, ঢাকা দক্ষিণ সব মিলিয়ে প্রায় ৫০ শতাংশের মতো ভোট পড়তে পারে। এটা আমরা ধারণা করছি। এটা ফাইনাল নয়।

অবশ্য সকাল থেকেই বিভিন্ন কেন্দ্রে ভোটার খুবই কম দেখা গেছে। ভোটারদের জন্য যেমন নির্বাচনী কর্মকর্তারা অপেক্ষা করেছেন। সংবাদমাধ্যমের কর্মীদেরও উৎসবমুখর একটি ফুটেজ নিতে গলদঘর্ম হতে হয়েছে।

তবে, ভোট শেষে রাতে ঘোষিত ফলাফলে দেখা গেল, ৩১.০৫ শতাংশ ভোট পড়েছে। বৃহস্পতিবার রাতে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে স্থাপিত ফলাফল সংগ্রহ ও পরিবেশন কেন্দ্র থেকে রিটার্নিং কর্মকর্তা আবুল কাসেম ভোটের তথ্য দেন।

তিনি জানান, ঢাকা উত্তর সিটিতে মোট ভোটার ৩০ লাখ ৩৫ হাজার ৬২১ জন। ভোট পড়েছে ৯ লাখ ৪২ হাজার ৫৩৯। এর মধ্যে বাতিল হয়েছে ১৯ হাজার ৫১৩ ভোট। সেই হিসাবে ভোটের হার ৩১.০৫ শতাংশ।

সবগুলো কেন্দ্রের (১২৯৫টি) ফলাফলে দেখা গেছে, মেয়র পদে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী আতিকুল ইসলাম পেয়েছেন ৮ লাখ ৩৯ হাজার ৩০২ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী জাতীয় পার্টি মনোনীত লাঙ্গলের প্রার্থী শাফিন আহমেদ পেয়েছেন ৫২ হাজার ৪২৯ ভোট। তাদের ভোটের ব্যবধান ৭ লাখ ৮৬ হাজার ৮৭৩।

অপর তিন মেয়র প্রার্থীর মধ্যে ন্যাশনাল পিপলস পার্টির মো. আনিসুর রহমান দেওয়ান আম প্রতীকে পেয়েছেন ৬ হাজার ১৫১ ভোট, স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. আব্দুর রহিম টেবিল ঘড়ি প্রতীকে পেয়েছেন ৮ হাজার ৪০৪ ভোট এবং পিপলস ডেমোক্রেটিক পার্টির (পিডিপি) শাহীন খান বাঘ প্রতীকে পেয়েছেন ৫ হাজার ৮২১ ভোট।

এর আগে সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত এই নির্বাচনের ভোটগ্রহণ হয়। বিএনপিসহ বেশিরভাগ বিরোধী দল না আসায় দিনভর বলা চলে নিষ্প্রাণ ভোট হয়।

উল্লেখ্য, ২০১৭ সালের ৩০ নভেম্বর ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র আনিসুল হক মারা যান। এরপর শূন্যঘোষিত সিটিতে ২০১৮ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে মেয়র পদে উপ-নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন।

কিন্তু, সম্প্রসারিত ওয়ার্ডগুলোর সীমানা নির্ধারণ জটিলতার কারণে উত্তর ও দক্ষিণের দু’জন সংক্ষুব্ধ ব্যক্তি এ বিষয়ে হাইকোর্টে রিট করায় নির্বাচন পিছিয়ে যায়। এই রিট জটিলতার সমাধান হওয়ায় উত্তর সিটি করপোরেশনে মেয়র পদে উপ-নির্বাচন এবং উত্তর ও দক্ষিণের সম্প্রসারিত ৩৬টি ওয়ার্ডে নির্বাচন এবং ২১ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলরের মৃত্যু হওয়ায় সেখানে বৃহস্পতিবার উপ-নির্বাচন হলো।

এইচকে/আইএম

 

নির্বাচন কমিশন: আরও পড়ুন

আরও