কিংবদন্তি শাবানার ফটো অ্যালবাম

ঢাকা, ৫ জুন, ২০১৯ | 2 0 1

কিংবদন্তি শাবানার ফটো অ্যালবাম

পরিবর্তন ডেস্ক: ১:০৮ অপরাহ্ণ, মে ০৯, ২০১৯

কিংবদন্তি শাবানার ফটো অ্যালবাম

কিংবদন্তি চলচ্চিত্র অভিনেত্রী শাবানা। শিশুশিল্পী হিসেবে নতুন সুর চলচ্চিত্রে তার চলচ্চিত্রে আবির্ভাব ঘটে। পরে ১৯৬৭ সালে ‘চকোরী’ চলচ্চিত্রে চিত্রনায়ক নাদিমের বিপরীতে প্রধান নারী চরিত্রে অভিনয় করেন।

শাবানার প্রকৃত নাম রত্না। চিত্র পরিচালক এহতেশাম চকোরী চলচ্চিত্রে তার শাবানা নাম প্রদান করেন। তার পূর্ণ নাম আফরোজা সুলতানা।

তিনি ৩৬ বছর কর্মজীবনে ২৯৯টি চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন। ষাট থেকে নব্বই দশকে জনপ্রিয়তার তুঙ্গে ছিলেন এই অভিনেত্রী। ২০০০ সালে রূপালি জগৎ থেকে নিজেকে আড়াল করে ফেলেন এ নায়িকা।

দীর্ঘ কর্মজীবনে তিনি অভিনয়ের জন্য ৯ বার ও প্রযোজক হিসেবে ১ বার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার লাভ করেন এবং ২০১৭ সালে আজীবন সম্মাননায় ভূষিত হন।

তার উল্লেখযোগ্য চলচ্চিত্র হল:  জননী, সখী তুমি কার, দুই পয়সার আলতা, নাজমা, ভাত দে, অপেক্ষা, রাঙা ভাবী, গরিবের বউ, মরণের পরে, অচেনা।

শাবানা ১৯৫২ সালের ১৫ জুন চট্টগ্রাম জেলার রাউজান উপজেলার ডাবুয়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তার বাবার নাম ফয়েজ চৌধুরী যিনি একজন টাইপিস্ট ছিলেন এবং মা ফজিলাতুন্নেসা ছিলেন গৃহিনী।

শাবানা গেন্ডারিয়া হাই স্কুলে ভর্তি হলেও তার পড়ালেখা ভালো লাগত না। শাবানা প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার তাই ইতি ঘটে মাত্র ৯ বছর বয়সে। চলচ্চিত্রকার এহতেশাম ছিলেন তার চাচা। শাবানার বাবার খালাতো ভাই। তার মাধ্যমেই শাবানার চলচ্চিত্রে অভিষেক হয়।

শাবানা ১৯৭৩ সালে ওয়াহিদ সাদিকের সাথে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন। ওয়াহিদ সাদিক একজন সরকারী কর্মকর্তা ছিলেন। শাবানার প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান এস এস প্রডাকশনের দেখাশোনা করতেন সাদিক।

১৯৯৭ সালে শাবানা হঠাৎ চলচ্চিত্র-অঙ্গন থেকে বিদায় নেওয়ার ঘোষণা দেন এবং ২০০০ সালে সপরিবারে যুক্তরাষ্ট্রে চলে যান।

শাবানা-সাদিক দম্পতির দুই মেয়ে - সুমি ও ঊর্মি এবং এক ছেলে - নাহিন।

জিজাক/

 

ঢালিউড: আরও পড়ুন

আরও