‘অনেক কঠিন সময় পার করছে প্রযোজনা-পরিবেশনা হাউজগুলো’

ঢাকা, বুধবার, ১৫ আগস্ট ২০১৮ | ৩১ শ্রাবণ ১৪২৫

‘অনেক কঠিন সময় পার করছে প্রযোজনা-পরিবেশনা হাউজগুলো’

পরিবর্তন প্রতিবেদক ১০:১১ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ৩০, ২০১৮

print
‘অনেক কঠিন সময় পার করছে প্রযোজনা-পরিবেশনা হাউজগুলো’

জাহিদ হাসান অভি- এ মুহূর্তে বাংলাদেশের সবচেয়ে কম বয়সী প্রযোজক। কিন্তু উপহার দিয়েছেন ‘কিস্তিমাত’ ও ‘সম্রাট’র মতো ব্যবসাসফল ও আলোচিত সিনেমা। একই সাথে ‘ঢাকা অ্যাটাক’ ও ‘হালদা’ পরিবেশনায় চমক দেখিয়েছেন।

এ তরুণের প্রযোজনা সংস্থা টাইগার মিডিয়া এবং দি অভি কথাচিত্র। দি অভি কথাচিত্রের ব্যানারে ২ ফেব্রুয়ারি মুক্তি পেতে যাচ্ছে ‘ভালো থেকো’। সিনেমাটিসহ তার চলচ্চিত্র প্রযোজনার নানা দিক নিয়ে কথা বললেন পরিবর্তন ডটকমের সঙ্গে...

ভালো থেকোসর্বশেষ প্রস্তুতি কেমন চলছে?

‘ভালো থেকো’র ব্যানার সব জায়গায় চলে গেছে। রাস্তায় রাস্তায় পোস্টার লাগানো হয়েছে। আগামীকাল (বুধবার) ঢাকা শহরে ঘোড়ার গাড়ির মাধ্যমে প্রচারণা শুরু করব। ইতোমধ্যে ভিডিও গানগুলো ইউটিউবে ছাড়া হয়েছে, তাতে বেশ ভালো সাড়া পাচ্ছি। এছাড়া মোবাইল অ্যাপ ‘বাংলাফ্লিক্স’র মাধ্যমেও প্রচারণা চালানো হচ্ছে।

দেশের কয়টি সিনেমা হলে মুক্তির পরিকল্পনা?

প্রায় ১০৪টি সিনেমাহলে মুক্তি পাবে ‘ভালো থেকো’। হল লিস্টও আশা রাখছি আগামীকালকে (বুধবার) প্রকাশ করতে পারব।

সিনেমা মুক্তির মাত্র দুদিন, অথচ এখনো ট্রেলার ছাড়া হয়নি কেন?

কিছুটা অভিমান করে ট্রেলার ছাড়িনি। খোলাসা করে বলতে গেলে ট্রেলার দেখে অনেক দর্শক আগাম সিদ্ধান্ত নেয় সিনেমাটি সম্পর্কে- ভালো কিংবা মন্দ। আমি চাই দর্শক হলে এসে ছবি দেখুক তারপর মন্তব্য করুক। তবে সিনেমা মুক্তির আগেই ছাড়বো আশা রাখছি।

আপনি পরিচালক না হয়ে প্রযোজক হলেন কেন?

টাকা থাকলেই যে কেউ প্রযোজনায় আসতে পারবে। তবে আমার ক্ষেত্রে আমি ছোটবেলা থেকেই সিনেমায় আসার চিন্তা-ভাবনা কাজ করতো। হলিউডের সিনেমাগুলো দেখে ভাবতাম আমাদের  দেশের সিনেমার কাজগুলো সেভাবে করা যায় কিনা। সে জায়গা থেকে প্রযোজনায় আসা।

আপনি যে ধ্যান-ধারণা  প্রযোজনায় এসেছেন তার কতটুকু আমাদের দেশের সিনেমাতে দেখা যায়?

অনেক কঠিন সময় পার করছে প্রযোজনা-পরিবেশনা হাউজগুলো। তারপরও সবাই সবার জায়গা থেকে চেষ্টা চালাচ্ছে। সম্প্রতি ‘ঢাকা অ্যাটাক’-এ কিছুটা আলোর মুখ দেখা গেছে। তবে সময় লাগবে আরও। আমি চাই আমাদের দেশের সিনেমা জগতের যে স্বর্ণ যুগ ছিল সেটা ফেরত আসুক।

মাত্র তিনটি সিনেমা প্রযোজনা করেছেন। এরপরও আপনাকে সিনে ইন্ডাস্ট্রির একজন শক্তিশালী প্রযোজ মনে করা হয়, এটা ভেবে কেমন লাগে?

আমি সাফল্য সেভাবে দেখি না। প্রযোজনা-পরিবেশনার কাজ ভালোভাবে করার চেষ্টা করে যাচ্ছি প্রতিনিয়ত। সে চেষ্টায় অনেক সিনেমা হলে আসছেন, এটা সফলতা বলতে পারেন। আর এ প্রচেষ্টায় কোনো ভুল হলে পরবর্তীতে শিক্ষা নেয়ার চেষ্টা করি।

অনেকগুলো স্বল্পদৈর্ঘ্য প্রযোজনা করেছেন, পেছনে কি আলাদা কোনো কারণ আছে?

পূর্ণদৈর্ঘ্য সিনেমায় নানা ধরনের শূন্যতা কাজ করছিল। সাময়িক সমাধান হিসেবে স্বল্পদৈর্ঘ্য করা। তাছাড়া অনেক পরিচালক আছেন যারা অল্প বাজেট ভালো কিছু করতে পারে। অল্টারনেটিভ কিছু কাজ যা দর্শকরা দেখতে চায়, সেগুলোকে প্রমোট করতেই স্বল্পদৈর্ঘ্য প্রযোজনা।

টিআর/এজেডএস/এমএসআই

 
.


আলোচিত সংবাদ