টাঙ্গাইলে ২০ কি.মি. সড়কে শত বাঁক! 

ঢাকা, বুধবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৯ | ২৯ কার্তিক ১৪২৬

টাঙ্গাইলে ২০ কি.মি. সড়কে শত বাঁক! 

টাঙ্গাইল প্রতিনিধি ৪:৩৫ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১৯, ২০১৯

টাঙ্গাইলে ২০ কি.মি. সড়কে শত বাঁক! 

টাঙ্গাইলের ঘাটাইলের পোড়াবাড়ি-গারোবাজার ২০কি.মি. সড়কে ছোট বড় একশ’ বাঁক রয়েছে। এক কথায় বলা যায় শত বাঁকের সড়ক এটি। সড়কের বাঁকগুলো এখন মরণফাঁদে পরিণত হয়েছে। দুই এক জায়গায় বাঁকগুলোতে নির্দেশনামূলক সাইনবোর্ড থাকলেও অধিকাংশ জায়গায় সাইনবোর্ড নেই। বাঁকের কারণেই প্রতিনিয়ত এ সড়কে  দুর্ঘটনা ঘটছে বলে এমন অভিযোগ রয়েছে।

উপজেলা প্রকৌশলী অফিস সূত্রে জানা যায়, স্থানীয় সরকার ও প্রকৌশলী অধিদপ্তর সেকেন্ড রুরাল টান্সর্পোট ইমপ্রুভমেন্ট প্রজেক্ট (আরটিআইপি-২) প্রকল্পের আওতায় সড়কটি নির্মিত হয়। প্রায় ২৪ কোটি টাকা ব্যয়ে সড়কটি নির্মাণে আর্থিক সহায়তা প্রদান করে বিশ্বব্যংক ও আইডিএ। ২০১৫ সালের জুলাই থেকে শুরু হয়ে ২০১৬ সালের শেষের দিকে সড়কের নির্মাণ কাজ শেষ হলে যান চলাচলের জন্য খুলে দেয়া হয়।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানা যায়, গত ২৯ সেপ্টেম্বর পোড়াবাড়ি-গারোবাজার সড়কের মানিকপুর মোড়ে সিএনজি ও অটোরিকশার মুখোমুখী সংর্ঘষে জামাল উদ্দিন(৪০) নামে এক সবজি ব্যববসায়ী নিহত ও দুই জন আহত হয় । ৫ আগস্ট গারোবাজারে একটি মালবাহী ট্রাক একটি ভ্যানরিকশাকে চাপা দিলে কামাল মিয়া (২৫) নামে এক ভ্যানযাত্রী নিহত ও আরো পাঁচ জন আহত হয় । একই সড়কে ১৩ আগস্ট ছনখোলা এলাকায় মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় মোটরসাইকেল আরোহী আশরাফ আলী নামে একজন মারা যায়,  আহত হয় দুই জন। শুধু সড়কের বাঁকের কারনে এ সড়কে অহরহ এমন দুর্ঘটনা ঘটে।

ঘোনারদেউলী মোড়, আঙ্গারখোলা, খাগড়াটা , চৈথট্র, রসুলপুর, মোমিনপুর, ছনখোলা, মানিকপুর, মোড়গুলি বেশি বিপদজনক।

স্কুল শিক্ষক সাজ্জাদ রহমান বলেন, ‘সড়কটি নতুন নির্মাণ হলেও নির্মাণের সময় কতৃপক্ষ বিষয়টির দিকে নজর দেননি। ফলে সব সময় ঝুঁকি নিয়ে এ সড়কে চলাচল করতে হয়।’ 

সিএনজি চালক সোলেমান বলেন, ‘আকাবাঁকা সড়কে ঝুঁকি নিয়েই চলাচল করতে হয়।

সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম খান সামু বলেন, ‘সড়কটি নির্মাণের সময় আমি সোজাভাবে নির্মাণের উদ্যোগ নিয়েছিলাম কিন্ত এলাকার কিছু লোকের বিরোধীতার কারণে সড়কটি সোজাভাবে নির্মাণ করা সম্ভব হয়নি। সড়কটি সোজাভাবে নির্মাণ করা গেলে দুর্ঘটনাও কম ঘটবে এবং যান চলাচলে সুবিধা হত সময়ও কম লাগবে।’ 

স্থানীয় প্রকৌশলী বিভাগ জানায়, যে সব বাঁকগুলোতে নির্দেশনামূলক সাইনবোর্ড নেই সেগুলো লাগানোর ব্যবস্থা করা হবে।

এএএন/এইচকে

 

ঢাকা: আরও পড়ুন

আরও